English Version   
আজ শনিবার,২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৮ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৩রা মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী

আজকে

  • ৮ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
  • ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
  • ৩রা মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

 

শীর্ষখবর ডটকম

নারায়ণগঞ্জে ছিনতাইকারী চক্রের হাতেই খুন হয়েছে কলেজ ছাত্র

Pub: বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭ ৪:৫২ অপরাহ্ণ   |   Modi: বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭ ৪:৫২ অপরাহ্ণ
 
 

শীর্ষ খবর

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জে ছিণতাইকারী চক্রের হাতেই খুন হয়েছে সরকারি তোলারাম কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ও যুগের চিন্তা ২৪ ডট কমের শিক্ষানবিশ সাংবাদিক শাহরিয়াজ মাহমুদ শুভ্র। চাষাঢ়া হতে সাইনবোর্ড পর্যন্ত চলাচল করা সিএনজি চালিত অটো রিকশা চালকদের একটি ছিনতাইকারী চক্র এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে। ইতোমধ্যে ওই ঘটনায় ৪ জন ডিবি’র হাতে আটক হয়েছে। প্রাথমিকভাবে তারা এ হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেছে। তাদের তথ্যানুযায়ী মাত্র ৫শ টাকা ও একটি মোবাইল সেট ছিনিয়ে নিতেই শুভ্রকে তারা খুন করে।
পুলিশের একটি সূত্র জানান, গত ৮ সেপ্টেম্বর সকালে শুভ্র ঢাকা যাওয়ার জন্য সিএনজি অটো রিকশাতে উঠে। ওই অটো রিকশাটি মূলত ছিনতাইয়ের কাজে ব্যবহৃত হতো। চালক ও যাত্রীবেশী কয়েকজন মিলে শুভ্রকে হত্যা করে লাশ রাস্তার পাশের একটি ডোবায় ফেলে দেয়। আটককৃতদের অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। মুলত ছিনতাইয়ের ঘটনায়ই শুভ্র খুন হয়েছে বলে পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে।
উল্লেখ্য, ভূঁইঘর কাজীপাড়া বাসষ্ট্যান্ড থেকে মাত্র ১৫ গজ দূরে সংবাদ কর্মী ও কলেজ ছাত্র শাহরিয়াজ মাহমুদ শুভ্র’র লাশ গত ৯ সেপ্টেম্বর শনিবার উদ্ধার করেছিল পুলিশ। সে সময় ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ শুভ্রর লাশটিকে একটি অজ্ঞাত পরিচয় ব্যাক্তির লাশ হিসেবে পোষ্ট মর্টেমের জন্য পাঠায় ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে।
গত ১০ সেপ্টেম্বর সকালে শুভ্রর বাবা-মা লাশটি শুভ্রর বলে সনাক্ত করে দাফন করে। এরপর ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। শুভ্র হত্যা মামলা দায়েরের ৩৬ ঘন্টার মধ্যে জেলা ডিবি পুলিশ হত্যা কান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে ৪ ছিনতাইকারীকে আটক করেছে। আটকরা পেশাদার ছিনতাই চক্রের সদস্য বলে জানিয়েছে পুলিশ।
শুভ্র হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ মঙ্গলবার ভোর সকালে যখন অভিযানে বের হবেন, ঠিক সেই মূহুর্তে জেলা ডিবি পুলিশের হাতে আটক হলো শুভ্র হত্যার সাথে জড়িত সন্দেহে চার ছিনতাইকারী। শুভ্র হত্যাকান্ডের পর ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ ও জেলা ডিবি পুলিশ রহস্য উদঘাটনে তৎপর ছিলেন। বুধবার শুভ্র হত্যাকান্ডের সংবাদ সম্মেলন করা হবে বলে জানা গেছে।
শাহরিয়াজ মাহমুদ শুভ্র ছিলেন নারায়ণগঞ্জ সরকারী তোলারাম কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ও স্থানীয় দৈনিক যুগের চিন্তা পত্রিকার একজন সংবাদ কর্মী। শুভ্রর বাবা-মায়ের দাবী অনুযায়ী শুভ্র শুক্রবার সকালে বাসা থেকে বের হয়েছিল সে। কিন্তু পুলিশের মোবাইল কল লিষ্টে উঠে এসেছে শুভ্র গত ৭ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে বাড়ির বাইরে ছিল ।
একটি সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে শুভ্র ফতুল্লাস্থ গোল্ডেন ফ্যাশন এলাকায় অবস্থান করছিল। বৃহস্পতিার রাত ১২ টা থেকে রাত ২টা ৪৫ মিনিট পর্যন্ত শুভ্র তার মেয়ে বন্ধু প্রমি খিসার সাথে একাধিকবার কথা বলেছিল। পমি সে সময় রাঙ্গামাটি থেকে ঢাকার কল্যানপুরে ফিরছিল।
ওই সময়ের মধ্যে শুভ্র নারায়ণগঞ্জে তার আরেক ছেলে বন্ধু ইলিয়াসের সাথে সর্বশেষ কথা বলেছিলেন। এর মধ্যে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মধ্যে প্রশ্ন ঘুরপাক খায় রাত ১২টা থেকে ৩টা পর্যন্ত দীর্ঘ সময় শুভ্র কোথায় ছিল?। পুলিশের মোবাইল ট্রেকিংয়ে শুভ্র ওই সময়ের মধ্যে কুতুবপুর এলাকায় অবস্থান করছিল। পুলিশ মোবাইল ট্রেকিং করে শুভ্রে’র মোবাইলের সর্বশেষ অবস্থান ভূঁইঘরের রূপায়নের কাছে।
শুভ্রের লাশ সনাক্তের পর ফতুল্লা মডেল থানায় হয় একটি হত্যা মামলা। থানায় হত্যা মামলা দায়েরের পর পুলিশ হত্যা রহস্য উদঘাটনে তৎপরতা চালায়। এরমধ্যে শুভ্রর দুই বন্ধুকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। বন্ধুদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতেই এগোতে থাকে থানা পুলিশ।
শুভ্র হত্যা মামলায় পুলিশ ৫টি সূত্র ধরে এগোতে থাকে। পুলিশের ধারণা ছিল ১. প্রেম ২. সংবাদকর্মী ৩. অপরাধ কর্মকান্ডের সাথে জড়ানো ৪. ছাত্র রাজনীতি ৫. ছিনতাই কারনে হত্যাকান্ডের শিকার হয়ে থাকতে পারে শুভ্র। পুলিশ সর্বশেষ যে সূত্র ধরে এগুচ্ছিলেন তা হলো ছিনতাই। অবশেষে ডিবি পুলিশের সমিকরণে ছিনতাই চক্রের ৪ সদস্য গ্রেফতার হয়েছে গত সোমবার দিবাগত রাতেই। হত্যাকান্ডের ৪দিন আর মামলা দায়েরের ৩৬ ঘন্টার মধ্যে ডিবি পুলিশের জালে সিএনজি দ্বারা ছিনতাই চক্রের ৪ সদস্য গ্রেফতার হলো।
পুলিশ শুভ্র হত্যাকান্ডের রহস্য ও অপরাধীদের গ্রেফতারে ৫টি বিষয়কে সামনে নিয়ে এগুচ্ছিল। প্রেম ঘটিত বিষয় থাকতে পারে বলে শুভ্রর দুই বন্ধুকে রোববার থেকে সোমবার পর্যন্ত ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। ক্লু না পাওয়ায় প্রেম ঘটিত বিষয়টি থেকে পুলিশ পরে আসে।
এরপর পুলিশ সংবাদ কর্মীর বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করে, কিন্তু সেখানেও পুলিশ কোন ক্লু পাননি। পরবর্তীতে পুলিশ ধারণা করেছিলেন সংবাদ কর্মী থেকে সে সরে আসার পিছনে হয়তো সে কোন অপরাধ কর্মকান্ডের সাথে জড়িয়ে থাকতে পারেন। সে বিষয়ে দীর্ঘ তদন্ত করে সেখানেও কিছু পাননি আনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।
যেহেতু শুভ্র ছাত্র ফেডারেশনের প্রাথমিক সদস্য ছিলেন সে ক্ষেত্রে দলের মধ্যে কোন কোন্দল ছিল কিনা সে বিষয়েও কাজ করেন তারা। কিন্তু সেখানেও কিছু পাননি ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। শুভ্র হত্যা কান্ডের বিষয়টি যেহেতু একটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা, সেহেতু থানা পুলিশ ও জেলা ডিবি পুলিশ ৫ নম্বর বিষয়টি অর্থাৎ ছিনতাইয়ের বিষয়টিকে টার্গেট করে এগুতে থাকেন। এর মধ্যে গত সোমবার রাতে জেলা ডিবি পুলিশ শুভ্র হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ৪ জনকে গ্রেফতার করতে সমক্ষম হন।
শুভ্রর মেয়ে বন্ধু প্রমি খিসা : সংবাদ কর্মী কলেজ ছাত্র শাহরিয়াজ মাহমুদ শুভ্র’র সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পরিচয় হয় প্রমি খিসা’র। প্রমি ঢাকা কমার্স কলেজের ছাত্রী। মিরপুর হোস্টেলে থাকে সে। ফেইজবুকে সাহিত্য ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা হতো শুভ্র’র সাথে তার।
ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় হওয়ার পর দুই মাসে মোট ৪ বার শুভ্রের সাথে প্রমির দেখা হয়েছিল। শুভ্র ঢাকায় গিয়ে প্রমির হোষ্টেলের সামনে গিয়ে দেখা করতো বলে জানায় প্রমি। রাঙ্গামাটির রাজবাড়ী এলাকার প্রগতি খিসার মেয়ে শুভ্রর সাথে বন্ধুত্বের সম্পর্ক ছিল শুভ্র’র।
গত ২৭ আগষ্ট প্রমি ঈদের ছুটিতে রাঙ্গামাটি যাওয়ার আগে শুভ্রকে দেখা করতে বলেছিল। শুভ্র কথা অনুযায়ী ২৭ আগষ্ট বিকেলে ঢাকার বনফুল এলাকা থেকে রাঙ্গামাটির বাসে উঠিয়ে দিয়েছিল প্রমিকে। ঈদের ছুটির পর গত ৮ সেপ্টেম্বর শুক্রবার প্রমিকে ঢাকার কল্যাণপুর এলাকায় রিসিভ করার কথা ছিল। ঘটনার দিন রাত ২টা ৪৫ মিনিটে সর্বশেষ কথা হয় প্রমির সাথে।
সে সময় প্রমিকে শুভ্র বলেছিল সে বাসায় রয়েছে, সময় মতো কল্যাণপুর এসে তার সাথে দেখা করবে। রাত ৩ টার দিকে শুভ্র তার বন্ধু ইলিয়াসকে ফোন করে বলেছিল সে ঢাকার উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হয়েছে।
বাড়ির বাইরে শুভ্র : গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে বাসা থেকে শুভ্র বের হয়েছিলেন বলে ধারণা করছে পুলিশ। কারণ মোবাইল ট্রেকিংয়ে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ফতুল্লার গোল্ডেন ফ্যাশন এলাকায় রাতে অবস্থান করেছিল জানায় একটি সূত্র।
সূত্রের ধারণা, শুভ্র লালপুরের বাসা থেকে বের হয়ে ফতুল্লাস্থ পোষ্ট অফিস রোডের জালাল হাজী রোড দিয়ে, শিবু মার্কেট এলাকায় গিয়ে অবস্থান করে থাকতে পারে। শিবু মার্কেট এলাকা থেকে রাত ৩টার দিকে হয়তো সে সাইনবোর্ড এলাকায় যাওয়ার জন্য সিএনজিতে উঠে। সিএনজিতে যাত্রীবেশী ৪ ছিনতাইকারীর খপ্পড়ে পড়ে শুভ্র। হাতে থাকা মোবাইল ও প্রমির জন্য আলতা ও কপালের টিপ ছিল তার একটি ব্যাগে। ছিনতাইকারী চক্র শুভ্র’র হাতের মোবাইল ও ব্যাগের থাকা জিনিসকে টার্গেট করেই ঐ হত্যাকান্ডটি সংঘঠিত হয়ে থাকতে পারে বলে দাবী সূত্রের।
এ ব্যাপারে জেলা ডিবি পুলিশের ওসি মাহবুব রহমান বলেন, শুভ্র হত্যাকান্ডের ব্যাপারে এখনো কিছু বলা যাবে না। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে ৪ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে গ্রেফতারকৃতদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন এসপি মহোদয়।
উল্লেখ্য, গত শুক্রবার বাসা থেকে নিখোঁজ হয় শুভ্র। এ ব্যাপারে গত শনিবার দুপুরে শুভ্রর বাবা কামাল সিদ্দিকী শুভ্রের নিখোঁজ হওয়ার ব্যাপারে ফতুল্লা মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়রী করেছিলেন (জিডি নং-৩২৮)। শনিবার সকালেই পুলিশ ভূঁইঘর হাজী পাড়া এলাকা থেকে একটি অজ্ঞাতনামা লাশ উদ্ধার করে।
কিন্তু তখনও শুভ্রর পরিবার জানতে পারেনি শূভ্রকে হত্যা করে ভূইঘরের একটি ডোবায় ফেলে রাখা হয়েছিল। গতকাল সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে শূভ্রর মা ফতুল্লা মডেল থানায় প্রথম অজ্ঞাত পরিচয় ব্যাক্তির লাশের গায়ের শার্ট, প্যান্ট ও জুতা জোড়া দেখে তা নিজের ছেলের বলে সনাক্ত করেন। এরপর নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া হাসপাতালের মর্গে গিয়ে শূভ্রের স্বজনরা লাশ সনাক্ত করেছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email
 
 

শীর্ষ খবর/আ আ

 
 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1025 বার
 
 

সর্বশেষ সংবাদ

 
 

সর্বাধিক পঠিত

 
 
 
 

জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:


কপিরাইট ©২০১০-২০১৬ সকল সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত শীর্ষ খবর ডটকম

প্রধান সম্পাদক : ডাঃ আব্দুল আজিজ

পরিচালক বৃন্দ: সামছু মিয়া,
মোঃ দেলোয়ার হোসেন আহাদ

ফোন নাম্বার: +447536574441
ই-মেইল: info.skhobor@gmail.com