আজকে

  • ৭ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
  • ২০শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং
  • ৪ঠা শাবান, ১৪৩৯ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

সখিপুরে বিধবার বাড়ি জবর দখল নিরুপায় বিধবার ভিক্ষাবৃত্তি

Pub: রবিবার, জানুয়ারি ১৪, ২০১৮ ৪:২৩ অপরাহ্ণ   |   Upd: রবিবার, জানুয়ারি ১৪, ২০১৮ ৪:২৩ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

শরীয়তপুর প্রতিনিধি । ভেদরগঞ্জের সখিপুর থানার চরভাগা ইউনিয়নের আজগর হাওলাদার কান্দি গ্রামে এক বিধবার বাড়ি জোরপূর্বক জবরদখল করে বিধবাকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে। একই এলাকার বাসিন্দা মফিজুর রহমান খান এর বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করছে মৃত কালাচান খানের স্ত্রী চাহারন নেছা (৬৮)নামের এক বৃদ্ধা। ঘরবাড়ি ও জমিজমা হারিয়ে এ বিধবা অন্যের বাড়ি আশ্রয় নিয়ে এখন ভিক্ষাবৃত্তি করে দিন পার করছেন। সরকারের পক্ষ থেকে চাহেরন নেছা কোন ভাতা আজও পায়নি।প্রশাসন বলছে শীঘ্রই ভাতার ব্যবস্থা করবেন। জমি দখলের বিষয়ে এখনো লিখিত ওকোন অভিযোগ পায়নি।
সখিপুর থানার চরভাগা ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার আলাউদ্দিন মোল্যা ও অন্যান্যদের সাথে আলাপ করে জানাগেছে, সখিপুর থানার আজগর হাওলাদার কান্দি গ্রামের মৃত কালাচান খানের বিধবা স্ত্রী চাহারন নেছার (৬৮)কোন পুত্র সন্তান নেই। দুই মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন পার্শ্ববর্তী চাদঁপুরে জলায় দীর্ঘ ১০ বছর পূর্বে তার স্বামী কালাচান খান মারা যান। তখন তিনি নিজের স্বামীর ভিটাতেই বসবাস করেছিলেন। স্বামী মারা যাওয়ার কয়েক বছর পর স্থানীয় বাসিন্দা প্রভাবশালী মফিজ খাঁন জোরপূর্বক চরভাগা মৌজাির ৬শতাংশ বাড়ি ও ঘরদরজা জমিজমা দখল করে নেয় এমনকি তার ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায় প্রভাবশালী মাফজ খান। এ নিয়ে এলাকায় একাধিকবার সালিশ বৈঠক করা হলেও মফিজ খানের দাপটের কাছে কোন প্রকার সমাধান দিতে পারেনি স্থানীয়রা।এ দিকে অত্যাচারী মফিজ খানের কাছে জমি ও ঘরবাড়ি হারানো বিধবা ৬৮বছর বয়সী চাহারন নেছার এখনো পর্যন্ত কোন প্রকার বয়স্কভাতা বা সরকারি সহযোগিতা পাননি তিনি। জীবন জীবিকার প্রয়োজনে কোন উপায়ান্ত না পেয়ে অসু¯্য’ শরীর নিয়ে ভিক্ষাবৃত্তি করতে নেমে পড়েন চাহারন নেছা। এখন তিনি আশ্রয় নিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দা নূর হোসেন হাওলাদারের বাড়িতে । খেয়ে না খেয়ে কোন রকম দিনাতিপাত করছেন।
বিধবা চাহারন নেছা ভিক্ষাবৃত্তি করতে এসে চোখের জল মুছতে মুছতে বলেন, “অনেকবার মেম্বারগো কাছে গেছি ।কেউ আমারে বয়স্কভাতা দেয় নাই। আমার কেউ নাই, আমাগো জমি ও ঘরবাড়ি মফিজ খাঁ নিয়ে গেছে। জমি চাইতে গেলে মফিজ খাঁ আমারে মারধর করে। আমি তার বিচার চাই না তো মরন চাই।” হাউমাউ করে কেঁদে কেঁদে বলছিলেন চাহারন নেছা।
চরভাগা ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য বাসেদ চোকদার ও আকতার হোসেন বলেন, মফিজ খাঁন অনেক আগে থেকেই জোরপূর্বক এ বিধবা মহিলার জমি ও ঘরবাড়ি জবরদখল করে আসছিল। এ নিয়ে অনেকবার সালিশ বৈঠক হয়েছে কিন্তু কোন সমাধান হয়নি। বিষয়টি আইনগত ভাবে সমাধান হওয়া জরুরি।
অভিযুক্ত মফিজ খান বলেন, এ বিষয়ে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি কথা বলতে রাজি হয়নি।
এ বিষয়ে ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাব্বির আহমেদ বলেন, জমি দখলেরর বিষয়ে আমার কাছে কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। বয়স্ক ভাতার বিষয়ে বলেন জরুরী ভিত্তিতে ভাতা পাওয়ার ব্যবস্থা নিব।

Print

শীর্ষ খবর/আ আ

সংবাদটি পড়া হয়েছে 1085 বার

 
 
 
 
জানুয়ারি ২০১৮
রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
« ডিসেম্বর   ফেব্রুয়ারি »
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  
 
 
 
 
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com