English Version   
আজ শনিবার,২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৮ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৩রা মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী

আজকে

  • ৮ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
  • ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
  • ৩রা মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

 

শীর্ষখবর ডটকম

লক্ষ্মীপুর ৪ চতুর্মুখী লড়াই

Pub: বুধবার, আগস্ট ১৬, ২০১৭ ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ   |   Modi: বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৭, ২০১৭ ১২:৪৩ পূর্বাহ্ণ
 
 

শীর্ষ খবর

লক্ষ্মীপুর থেকে : মেঘনা নদী পরিবেষ্টিত লক্ষ্মীপুর-৪ সংসদীয় আসন। রামগতি ও কমলনগর উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসন। সংসদ নির্বাচনের দেড় বছর বাকি থাকলেও এই আসনের ভোটারদের মধ্যে নির্বাচন নিয়ে ভাবনা শুরু হয়েছে। মেঘনার ভাঙনে বিগত কয়েক বছরে এ আসনের অনেক এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভিটা-মাটি হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছেন হাজার হাজার মানুষ। নদীভাঙন আর প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করেই এখানকার মানুষ প্রতিদিন বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখেন। ১৭টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত এই আসনের অধিকাংশ মানুষ মৎস্য শিকার এবং কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। রাজনীতি নিয়ে এ অঞ্চলের মানুষের তেমন একটা মাথাব্যথা নেই। কিন্তু আগামী সংসদ নির্বাচনে এ আসনে সক্রিয় হয়ে উঠেছেন প্রধান দুই রাজনৈতিক জোটের নেতা-কর্মীরা। মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগ-বিএনপি’র দলীয় নেতারা ছাড়াও এ আসনে জোটের শরিক অন্যান্য হেভিওয়েট প্রার্থীরা দৌড়ঝাঁপ চালিয়ে যাচ্ছেন। মনোনয়ন পেতে কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে ধরনা দিচ্ছেন তারা। পাশাপাশি ঘুরে বেড়াচ্ছেন সাধারণ ভোটারদের কাছেও। দিচ্ছেন নানান প্রতিশ্রুতি। ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জেএসডি (জাসদ) ও এলডিপি সমর্থিত মনোনয়ন প্রত্যাশীরা নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা, সভা-সমাবেশ ও গণসংযোগ শুরু করে দিয়েছেন। শহর থেকে গ্রামাঞ্চলে ব্যানার ও ফেস্টুন টাঙিয়ে নিজেদের প্রার্থিতা ঘোষণা করছেন।
এ আসনেই জন্ম নিয়েছেন, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও স্বাধীনতার প্রথম পতাকা উত্তোলক জেএসডি’র কেন্দ্রীয় সভাপতি আ.স.ম আবদুুর রব। এরশাদ সরকারের সময় তিনি একবার সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালের ১২ই জুনের নির্বাচনে এ আসন থেকে এমপি নির্বাচিত হয়ে আওয়ামী লীগের ঐকমত্যের সরকারের মন্ত্রী হন তিনি। আগামী নির্বাচনে এ আসন থেকে নির্বাচন করবেন আ.স.ম আবদুর রব। ২০১৪ সালের ১০ম সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। এরপর থেকে এলাকার উন্নয়নমূলক ও মেঘনার ভাঙন প্রতিরোধে কাজ করছেন তিনি। মেঘনার ভাঙন প্রতিরোধে ১৩৪৯ কোটি টাকার একটি প্রকল্প একনেকে অনুমোদন হওয়ার পর ১ম পর্যায় ২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে সাড়ে ৫ কিলোমিটার বাঁধের কাজ ইতিমধ্যে শেষ হওয়ার পথে। এছাড়া তার রয়েছে ব্যক্তিগত ভোট ব্যাংক। তাকে সবাই ক্লিন ইমেজের একজন সংসদ সদস্য হিসেবে চেনেন। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর লক্ষ্মীপুর সফরে নদীভাঙন রোধের দ্বিতীয় দফায় অর্থ বরাদ্দের প্রতিশ্রুতি আদায় করতে সক্ষম হন তিনি।
এ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন, বর্তমান এমপি মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পাদক এবং এ আসনের সাবেক সংরক্ষিত এমপি ফরিদুন্নাহার লাইলী। ফরিদুন্নাহার লাইলী পার্শ্ববর্তী নোয়াখালী সদরের বাসিন্দা। আগামী নির্বাচনে এ আসন থেকে মনোনয়ন চাইবেন তিনি।
এ আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন, সাবেক এমপি আশ্রাফ উদ্দিন নিজান, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সফিউল বারী বাবু এবং তাঁতীদলের সহ-সভাপতি আবদুল মতিন চৌধুরী। ২০০১ ও ২০০৮ এর নির্বাচনে আশ্রাফ উদ্দিন নিজান ধানের শীষ প্রতীকে দুইবার এমপি নির্বাচিত হন। এখানে আওয়ামী লীগ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) সমর্থিত ভোটের বাইরেও বিএনপি-জামায়াতের ভোট একেবারে কম নয়। তবে আগামী নির্বাচনে আশ্রাফ উদ্দিন নিজানের চেয়ে মনোনয়ন পাওয়ার দৌড়ে সফিউল বারী বাবু এগিয়ে রয়েছেন বলে দলীয় নেতাকর্মীরা জানান। তবে তাঁতীদলের সহ-সভাপতি আবদুল মতিন চৌধুরীও দুর্দিনে নেতাকর্মীদের পাশে ছিলেন। বর্তমানে বিএনপি’র সিনিয়র নেতাদের সাথে ২০ মামলার আসামিও আবদুল মতিন চৌধুরী।
আগামী নির্বাচনে এই আসনে আরেক হেভিওয়েট প্রার্থী এক সময়ের বিএনপি সরকারের বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী মেজর (অব.) আবদুল মন্নান। তিনি সাবেক প্রেসিডেন্ট ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর পার্টি বিকল্পধারার কেন্দ্রীয় মহাসচিব। এলাকার উন্নয়নে তার অনেক অবদান রয়েছে বলে স্থানীয় ভোটাররা জানান। এ আসনে মেজর (অব.) আবদুল মান্নানের নিজস্ব একটি ভোট ব্যাংক রয়েছে। তিনি আগামী নির্বাচনে ২০ দলীয় জোটের পক্ষ থেকেও মনোনয়ন পাওয়ার আশা করছেন। এছাড়া এই আসনে নাগরিক ঐক্যের ব্যানারে কমলনগর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান আবুল বারাকাত দুলাল প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সম্প্রতি তিনিও এলাকায় ভোটারদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন।
বর্তমান এমপি ও আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, রামগতি-কমলনগরে অনেক উন্নয়ন কাজ করেছি। এ অঞ্চলের মানুষের সবচেয়ে বড় যে দাবি ছিল নদী ভাঙন প্রতিরোধ। সে বিষয়ে বর্তমান সরকার কাজ করছে। ইতিমধ্যে ১৩৪৯ কোটি টাকা একনেকে পাশ হয়ে প্রায় ২শ’ কোটি টাকা ব্যায়ে ১ম পর্যায়ের সাড়ে ৫ কিলোমিটার বাঁধের কাজ শেষ হয়েছে। দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজ শিগগিরই শুরু হবে। বর্তমান সরকারের আমলে এ আসনে যে উন্নয়ন হয়েছে। অতীতে তার বিন্দু পরিমাণ কাজও হয়নি বলে দাবি করেন তিনি। নেতাকর্মীদের দুর্দিনে ছিলাম। ভবিষ্যতে থাকবো। অতীতের চেয়ে নেতাকর্মীরা এখন অনেক উজ্জীবিত। ইনশাআল্লাহ্‌ নেত্রী মনোনয়ন দিলে আমি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। ডাকসু’র সাবেক ভিপি ও স্বাধীনতার প্রথম পতাকা উত্তোলক আ.স.ম আবদুর রব বলেন, গণতন্ত্র এখন অনেকটা শৃঙ্খলিত। গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য একটি অবাধ ও সুষ্ঠু এবং অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দরকার। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন সব দলের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করতে পারলে তিনি আগামী নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।
বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী ও সাবেক এমপি আশরাফ উদ্দিন নিজান জানান, আন্দোলন-সংগ্রাম ও দলের দুর্দিনে নেতাকর্মীদের পাশে ছিলাম। ভবিষ্যতে থাকবো। মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী তিনি। যদি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট হয়, তাহলে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হবো।
কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু জানান, যদি নির্দলীয় সরকারের অধীনে শান্তিপূর্ণ ভোট হয়। বিএনপি যদি ভোটে অংশ নেয়, তাহলে এ আসন থেকে মনোনয়ন চাইব। আন্দোলন সংগ্রামসহ নেতাকর্মীদের পাশে সব সময় ছিলাম। অতীতেও থাকব। তাই মনোনয়ন পাওয়ার আশা করছি। মনোনয়ন পেলে নির্বাচিত হয়ে মানুষের জন্য কাজ করে যাব।
অপরদিকে মনোনয়ন প্রত্যাশী ও তাঁতীদলের সহ-সভাপতি আবদুল মতিন চৌধুরী জানান, ছাত্রজীবন থেকে বিএনপি’র রাজনীতি করে আসছি। লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে থেকে সব সময় দলের পক্ষে কাজ করছি। স্থানীয় নেতাকর্মীদের পাশে দুর্দিন ছিলাম। রাজনীতি করতে গিয়ে বর্তমানে আমার বিরুদ্ধে ২০ মামলা দেয়া হয়েছে। আগামী নির্বানে এ আসন থেকে মনোনয়ন চাইব। যদি মনোনয়ন দেয়, তাহলে নির্বাচন করব। দল যদি আমাকে না দিয়েও অন্য কাউকে মনোনয়ন দেয়, তার পক্ষে কাজ করব বলে আশাবাদ প্রকাশ করেন তিনি।
সাধারণ ভোটাররা জানান, লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি-কমলনগর) আসনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জেএসডি, বিকল্পধারা প্রায় সব দলেরই নিজস্ব ভোট ব্যাংক রয়েছে। আগামী নির্বাচনে এসব দলের প্রার্থীরা আলাদা আলাদা ভোট করলে নির্বাচনে চতুর্মুখী লড়াই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
 
 

শীর্ষ খবর/আ আ

 
 
সংবাদটি পড়া হয়েছে 1118 বার
 
 

সর্বশেষ সংবাদ

 
 

সর্বাধিক পঠিত

 
 
 
 

জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:


কপিরাইট ©২০১০-২০১৬ সকল সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত শীর্ষ খবর ডটকম

প্রধান সম্পাদক : ডাঃ আব্দুল আজিজ

পরিচালক বৃন্দ: সামছু মিয়া,
মোঃ দেলোয়ার হোসেন আহাদ

ফোন নাম্বার: +447536574441
ই-মেইল: info.skhobor@gmail.com