ঢাকা উত্তরে বিএনপির তাবিথ আউয়াল আওয়ামীলীগের কে?

Pub: সোমবার, ডিসেম্বর ৪, ২০১৭ ৭:৩৭ অপরাহ্ণ   |   Upd: সোমবার, ডিসেম্বর ৪, ২০১৭ ৭:৩৭ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ব্যাপক জনপ্রিয়তা নিয়ে নগরবাসীকে কাঁদিয়ে সব মহলের আফসোস দীর্ঘশ্বাস রেখে অকালে চিরনিদ্রায় শায়িত আনিসুল হকের কবরের মাটি এখনো শুকায়নি।  তাই বলে সমাজ জীবন, রাষ্ট্র, আইন থেমে থাকে না।  তার শূন্য আসনে মেয়র পদে উপনির্বাচনে প্রস্তুতির চিন্তাভাবনা যেমন শুরু করেছে সরকার এবং নির্বাচন কমিশন, তেমনি রাজনৈতিক অঙ্গনে জল্পনা কল্পনার শেষ নেই।  কে হচ্ছেন ঢাকা উত্তরে অকাল প্রয়াত আনিসুল হকের উত্তরসুরী? বিএনপির হয়ে তরুণ শিল্পপতি তাবিথ আউয়াল প্রার্থী হচ্ছেন এনিয়ে কোনো সন্দেহ নেই।  বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্র বলেছে, সব মেয়র নির্বাচনের মতো এই উপনির্বাচনেও তারা প্রতিদ্বন্ধিতা করবে। সেখানে দুঃসময়ে আনিসুল হকের সঙ্গে লড়াই করে চমক সৃষ্টি করা তাবিথ আউয়ালই বিএনপির শক্তিশালী প্রার্থী।  সেই নির্বাচনে ব্যবসায়ি সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টুর নির্বাচন করার কথা ছিল।তিনি পলাতক জীবনে তার মনোনয়ন বাতিল হয়ে যাওয়ায় পুত্র তাবিথ আউয়াল প্রার্থী হয়ে চমক সৃষ্টি করেছিলেন। বেগম খালেদা জিয়ার স্নেহভাজন তাবিথ আউয়ালই শেষ পর্যন্ত প্রার্থী হচ্ছেন।

আওয়ামীলীগ কোনোদিন রাজনীতিতে না থাকায় ব্যবসায়িদের জনপ্রিয় নেতা ও টেলিভিশনের দর্শক হৃদয় জয় করা উপস্থাপক  আনিসুল হককে ঢাকা উত্তরের মেয়র প্রার্থী করে চমক সৃষ্টি করেনি উত্তরের নগরবাসীর হৃদয় জয় করেছিল তার কাজ দিয়ে। আনিসুল হক আওয়ামীলীগ কতটা হতে পেরেছিলেন তা নিয়ে দলে প্রশ্ন থাকতে পারে, কিন্তু মৃত্যুতে মানুষের দীর্ঘশ্বাস আহাজারি আলোচনা জানিয়ে দিয়েছে মেয়র হিসাবে সাফল্যের মুকুট তিনি পরেছিলেন।  নগরবাসীর সেবক হিসাবে তিনি কতটা উদ্যমী স্বাপ্নিক ও মানুষের প্রত্যাশ্যা পূরণের অঙ্গীকারের জায়গা থেকে কতটা সফল তার প্রমাণ করেছিলেন। অবৈধ ট্রাক স্ট্যান্ড থেকে সিটি করপোরেশনের জায়গার দখলবাজদের উচ্ছেদ করেই উন্নয়নের গতিধারায় দ্রুত ঢাকা উত্তরকে তিলোত্তমা নগরীর চেহারা দিয়ে। তার নগর ভবন থেকে দুর্নীতি দীর্ঘসূত্রীতা হঠিয়ে প্রমাণ করেছিলেন সৎ নির্লোভ সাহসী নেতৃত্ব লক্ষ্য অর্জনে উদ্যমী ও নিরন্তর সংগ্রাম করলে ফলাফল ঘরে তোলা যায়।  টেন্ডারবাজি ব্যবসায়ি সিন্ডিকেট এবং কমিশন প্রথাকে তিনি নির্বাসিত করেছিলেন বলেই যে জনপ্রিয় হয়েছিলেন তা নয়। তিনি প্রমাণ করেছিলেন প্রকৃতপক্ষেই দলমত নির্বিশেষে তিনি মূলত নগরবাসীর পিতা।  নগরপিতা হিসাবে সাফল্যের পথ পাড়ি দিতে দিতে নিয়তির কাছে হেরে অকালেই চলে গেছেন।

এই পরিস্থিতিতে আওয়ামীলীগ নেতৃত্ব এখনও নির্ধারণ করতে পারেনি শেষপর্যন্ত এখানে মেয়র পদে উপনির্বচনে কাকে প্রার্থী করবে? আওয়ামীলীগের সাবের হোসেন চৌধুরী, রহমত উল্লাহ্, সাদেক খান অনেকের নামই আলোচিত হচ্ছে। নেতাদের কেউ কেউ বলেছেন, আগে মৃত্যুশোক কাটিয়ে উঠি দেখবেন আবারও বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রার্থী নির্বাচনে চমক দেবেন। আনিসুল হকের পত্নী রুবানা হক একজন উচ্চশিক্ষিত মেধাবী সৃজনশীল ও সব মহলেই গ্রহনযোগ্য স্বজ্জন নারী হিসাবে পরিচিত। বলাবলি হচ্ছে, পরিবার থেকে তাকেও প্রার্থী করা হতে পারে।  এমনকি তার পুত্র নাভিদুল হক নামও শোনা যাচ্ছে। এক্ষেত্রে কেউ কেউ আগামী জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে মেয়র উপনির্বাচনকে গুরুত্বপর্ণ মনে করছেন।  মনে করছেন, এখানে চমকের সঙ্গে সঙ্গে বিজয়ের বিষয়টি মাথায় রেখে প্রার্থী দিতে হবে যিনি দলীয় ও নেতৃত্বের প্রশ্নে আওয়ামীলীগ ও শেখ হাসিনার প্রতি আনুগত্যের ব্যাপারে প্রশ্নের উর্ধ্বে। কেউ কেউ অনেক গার্মেন্টস ব্যবসায়ির নাম প্রচার করলেও নেপথ্যে যে নামটি শক্তভাবে আলোচিত হচ্ছে তিনি হচ্ছেন ছাত্রলীগের রাজনীতি দিয়ে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীর পথ হয়ে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে কঠিন দু”সময় শেখ হাসিনা ও দলের প্রশ্নে আনুগত্যের পরীক্ষায়  বারবার উত্তীর্ণ, তিনি হচ্ছেন আলাউদ্দিন চৌধুরি হামিদ নাসিম। কখনো চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সভাপতি কখনও সরকারি আমলা হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রটোকল অফিসার এবং বিরোধী দলের নেত্রী শেখ হাসিনার একান্ত সচিব। ওয়ান ইলেভেনসহ সকল দুঃসময়ে অবিচল পাশে থাকা মানুষ।  দলের নেতাকর্মীদের সাথে তার যেমন নিবিঢ় সম্পর্ক, তেমনি সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের সাথে সামাজিক হৃদ্যতা রয়েছে গভীর। বিএনপির তাবিথ আউয়াল ও তার জন্মজেলা অভিন্ন। মরহুম মেয়র আনিসুল হকের পৈত্রিক বাড়িও সেখানে। ঢাকা উত্তরে নোয়াখালী ভোট ব্যাংকেও এদের রয়েছে প্রভাব। সবমিলিয়ে বিএনপির তাবিথ আউয়াল প্রার্থী হচ্ছেন এটি নিশ্চিত হলেও আওয়ামীলীগের কে সেটি জানতে শেখ হাসিনার দেশে ফেরা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ

সংবাদটি পড়া হয়েছে 1923 বার