কুড়িগ্রামবাসীকে খোলা চিঠি লিখলেন সুলতানা পারভীন

Pub: Tuesday, March 17, 2020 1:46 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মধ্যরাতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সাংবাদিককে কারাদণ্ড দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে কুড়িগ্রামের প্রত্যাহারকৃত জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীন সবার আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হন। সর্বস্তরের মানুষ এমন ঘটনায় ডিসির সমালোচনা করেন। সেসব ঘটনা ঘিরে কুড়িগ্রামের সদ্য বিদায়ী জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীন তার ফেসবুক আইডিতে কুড়িগ্রামের সকল মিডিয়াকর্মী, রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিককর্মীসহ কুড়িগ্রামবাসীর উদ্দেশে আবেগঘন এক খোলা চিঠি লিখেছেন।

পাঠকদের জন্য নিচে তার লেখা পুরো চিঠিটি তুলে ধরা হলো-

‘প্রিয় কুড়িগ্রামবাসী, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, সহকর্মী ও সুধীজন,

মোবাইল কোর্ট পরিচালনা নিয়ে সৃষ্ট সম্প্রতি বিভিন্ন মিডিয়ায় পরিবেশিত ও প্রকাশিত সংবাদ বিষয়ে আমার অবস্থান এবং কুড়িগ্রাম জেলায় দু’বছর কর্মকালে আমার কতিপয় গৃহীত উদ্যোগ অবহিত করছি।

গত ১৩ মার্চ ২০২০ দিবাগত রাতে নিয়মিত কার্যক্রমের আওতায় কুড়িগ্রামে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের চাহিদার প্রেক্ষিতে ৬ জন পুলিশ, ৫ জন আনসার এবং মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ইন্সপেক্টরসহ ৩ জন এবং এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে টাস্কফোর্স অভিযানের অংশ হিসেবে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়। আমি পরদিন সকালে ১৪ মার্চ ২০২০ সালে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা ও আদেশের বিষয়টি অবহিত হই। সংশ্লিষ্ট এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের নিকট বিষয়টি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাই। তিনি যথাযথ প্রক্রিয়া অবলম্বন করে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে মর্মে আমাকে অবহতি করেন। অভিযান এবং ভ্রাম্যমান আদালতের রায়ের প্রেক্ষিতে মিডিয়া ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে তা অনাকাঙ্খিত এবং এ বিষয়ে আমাকে দায়ী করে যে সংবাদ প্রকাশিত ও পরিবেশিত হচ্ছে তাতে আমি প্রচণ্ডভাবে মর্মাহত। উল্লেখ্য, অভিযান পরিচালাকারী এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট অপেক্ষাকৃত অনেক নবীন ও যেহেতু আদালত কিছু বিধি-বিধান এবং পদ্ধতির মাধ্যমে পরিচালিত হয় সেহেতু উক্ত বিধি-বিধান এবং পদ্ধতি প্রয়োগে অনিচ্ছাকৃত ভুল হতেই পারে। সার্বিক বিষয় বিবেচনায় নিয়ে আবেদনের প্রেক্ষিতে আপিল মঞ্জুর করে একদিন পর অর্থাৎ ১৫ মার্চ পূর্বাহ্নে আরিফুল ইসলাম রিগ্যানকে জামিন দেয়া হয়। নিয়মিত কার্যক্রমের আওতায় অভিযানটি পরিচালিত হয় যাতে আমার সামান্যতম কোন হস্তক্ষেপ ছিল না। কিন্তু আমাকে প্রত্যক্ষভাবে জড়িয়ে এবং হস্তক্ষেপের বিষয়টি উল্লেখ করে নিষ্ঠুরভাবে দোষী সাব্যস্ত করা হচ্ছে। অভিযান পরিচালনাকালে যদি সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট কোন পদ্ধতিগত ভুল করেও থাকে সেটির দায়ভার কি সরাসরি আমার উপর বর্তায়? মিডিয়া ব্যক্তিত্ব এবং সবার প্রতি বিষয়টি ভেবে দেখার অনুরোধ রইল।

কুড়িগ্রামের সম্মানিত সাংবাদিক ভাইয়েরা আমার আন্তরিক কার্যক্রম ও উদ্যোগের ফলে আমাকে সর্বদাই সাংবাদিক বান্ধব হিসেবে তুলে ধরেছেন অথচ বর্ণিত ঘটনাকে কেন্দ্র করে সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও মিডিয়ায় আমাকে দোষী করে যে ভাবে একপাক্ষিকভাবে গত তিনদিন ধরে যে প্রক্রিয়ায় বিভিন্ন অসত্য ও অশালীন ভাষায় মন্তব্য করা হচ্ছে যা দেখে আমি বিষ্মিত, হতবাক। শুধু তাই নয় নতুন নতুন কৌশল সৃষ্টি করেও আমাকে হ্যারেজ করার চেষ্টা চলছে যে কারনে আমি মানসিকভাবে ভীষণ বিপর্যস্ত।

Hits: 0


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ