খালেদা জিয়ার সাময়িক মুক্তি চেয়ে হয়তো আবেদন করেছে পরিবার, ঠিক জানি না: ফখরুল

Pub: Sunday, March 8, 2020 7:22 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিএসএমএমইউতে গুরুতর অসুস্থ কারাবন্দি বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করে থাকতে পারে তাঁর পরিবার বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

রবিবার (৮ মার্চ) দুপুরে গাজীপুর জেলা বিএনপির নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটির নেতাদের সঙ্গে নিয়ে শের-ই-বাংলা নগরে জিয়াউর রহমানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পর সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে তার সাময়িক মুক্তির জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি আবেদন করা হয়েছে। সেই আবেদনে আসলে তাতে কি লেখা আছে জানতে চাইলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এটা আমি ঠিক বলতে পারবো না, পরিবারের পক্ষ থেকে করা হলেও হতে পারে। আবেদনে সঠিকভাবে কি আছে আমার জানা নেই।’

সরকারের পক্ষ থেকে যদি সুস্পষ্টভাবে প্যারোলের আশ্বাস দেয়া হয় সেক্ষেত্রে আপনারা কী বিষয়টা বিবেচনা করবেন কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘আমরা বহুবার বলেছি, এটা (প্যারোল) সম্পূর্ণভাবে তাঁর (খালেদা জিয়া) ব্যক্তিগত ব্যাপার, ম্যাডামের ব্যক্তিগত ব্যাপার, তাঁর পরিবারের ব্যাপার। সেই ক্ষেত্রে আমরা এখন কিছু্ বলছি না।’

যে আবেদনটা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পরিবার করেছে আপনারা কী সরকারের প্রতি আহবান জানাবেন কিনা যে, আবদেনটা বিবেচনা করা হোক-এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এটা তো তার পরিবার জানিয়েছেন। দলের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত আমরা সেই সিদ্ধান্ত নেইনি।’

খালেদা জিয়ার জামিন না হলে অস্ত্র মামলায় ঠিকাদার জি একে শামীমের জামিন প্রদান এবং রাষ্ট্র পক্ষের না জানান বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা অনেক দিন থেকে বলে আসছি যে, এই রাষ্ট্র বর্তমানে অকার্যকর রাষ্ট্র হয়ে গেছে, এটা ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। যার ফলে রাষ্ট্রের কোনো প্রতিষ্ঠানে এখন কোনো শৃঙ্খলা-জবাবদিহিতার জায়গায় নেই। এই কারণে আজকে একজন কুখ্যাত আসামি যাকে গ্রেফতার করা হয়েছিলো এবং যার কাছে কোটি কোটি টাকা পাওয়া গেছে। বেআইনিভাবে তাকে জামিন দেয়া হয়েছে অথচ রাষ্ট্র জানে না। এতে প্রমাণিত হয়েছে এই রাষ্ট্র একটা ব্যর্থ রাষ্ট্রের পরিণত হয়েছে এবং সরকার ব্যর্থ হয়েছে দেশে একটা প্রতিষ্ঠানিক শাসন প্রতিষ্ঠার করবার জন্য।’

‘একই সঙ্গে এটা প্রমাণিত হয়েছে যে, শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণেই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আটক করে রাখা হয়েছে যেখানে একজন কুখ্যাত সন্ত্রাসী-দুর্বৃত্ত আসামিকে এভাবে জামিন দেয়া হয়। অথচ দেশনেত্রী জেন্যুয়েনলি জামিন পান না। এতেই প্রমাণিত হয় যে, দেশে আইনের শাসন বলতে কিছু নেই। এটা এখন একনায়কোতন্ত্র স্বৈরাচারের একটি দেশে পরিণত হয়েছে।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, শহিদুল ইসলাম বাবুল, রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, হুমায়ুন কবির খান, ওমর ফারুক শাফিন, গাজীপুরের মজিবুর রহমান, সাখাওয়াত হোসেন সবুজ, সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, ভিপি ইব্রাহিম, শাহ রেজাউল হান্নান, রাশেদুল হক প্রমুখ নেতৃবন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Hits: 0


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ