নির্বাচন, মানবাধিকার পরিস্থিতির সমালোচনা ‘খালেদা জিয়ার সাজার পেছনে ষড়যন্ত্র’

Pub: Thursday, March 12, 2020 4:50 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

কূটনৈতিক প্রতিবেদক

নির্বাচন, মানবাধিকার পরিস্থিতির সমালোচনা

বাংলাদেশে ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অনিয়ম ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের জোরালো অভিযোগ তুলে ধরেছে যুক্তরাষ্ট্র। গতকাল বুধবার রাতে ওয়াশিংটনে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর প্রকাশিত বৈশ্বিক মানবাধিকার চর্চাবিষয়ক প্রতিবেদনে বাংলাদেশ অংশে এসব অভিযোগ স্থান পায়। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও আনুষ্ঠানিকভাবে বৈশ্বিক ওই প্রতিবেদন প্রকাশ করেন।

প্রতিবেদনের বাংলাদেশ অংশে রাজনৈতিক বন্দি অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর সদস্যদের গ্রেপ্তার ও বিচারে প্রায়শ রাজনৈতিক সম্পৃক্ততাকে দৃশ্যত কারণ হিসেবে প্রতীয়মান। বিরোধী বিএনপি তাদের কয়েক হাজার কর্মী বছরজুড়ে গ্রেপ্তার হয়েছে বলে দাবি করে আসছে।

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া প্রসঙ্গে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুর্নীতি ও অর্থ তছরুপের অভিযোগে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। ২০০৮ সালে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় প্রথম ওই মামলাটি দায়ের করা করেছিল। ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে হাইকোর্ট খালেদা জিয়ার সাজা বাড়িয়ে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয়।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘দেশীয় ও আন্তর্জাতিক আইন বিশেষজ্ঞরা খালেদা জিয়াকে দোষী সাব্যস্ত করার ক্ষেত্রে সাক্ষ্যের ঘাটতি থাকার কথা বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন যে বিরোধীদলীয় নেত্রীকে নির্বাচনী প্রক্রিয়ার বাইরে রাখতে রাজনৈতিক পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এটি করা হয়েছে।’

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের অবনতিশীল পরিস্থিতি সত্ত্বেও আদালত তাঁর জামিন আবেদন বিবেচনার ক্ষেত্রে সাধারণত ধীর গতির ছিল।

১৯৯৪ সালে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রেনে হামলার জন্য গত ৩ জুলাই ৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড ও ২৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেওয়ার বিষয়টি তুলে ধরে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই হামলায় শেখ হাসিনা আহত হননি। সাজাপ্রাপ্তদের সবাই বিএনপি সদস্য।

প্রতিবেদনে বাংলাদেশে গুম-খুনম বিচার বহির্ভূতহত্যা-নির্যাতনের ঘটনা বেড়েছে বলে অভিযোগ করে এগুলোর প্রতিকারে কর্তৃপক্ষের ধীর গতি ও কোনো কোনো কোনো ক্ষেত্রে উদাসীনতাকে দায়ী করা হয়েছে। প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, জাতিসংঘের গুমবিষয়ক ওয়ার্কিং গ্রুপ বাংলাদেশ সফরে আগ্রহ দেখালেও সরকার তাতে সাড়া দেয়নি।

প্রতিবেদনে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ, প্রচারণার সময় দমন পীড়নের অভিযোগ স্থান পেয়েছে।

Hits: 1


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ