হলদে ফুলের সমারোহ টানছে পযর্টকদের

Pub: Thursday, March 5, 2020 3:30 AM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সুনামগঞ্জে পযর্টকদের জন্য আরেকটি আকর্ষণ হয়ে উঠেছে সূর্যমুখী বাগান। হলদে ফুলের সমারোহ এক নজর দেখতে প্রতিদিনই এখানে নানা বয়সের পর্যটকরা ভিড় জমাচ্ছেন। প্রতিদিন সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত ফুটে থাকা এ ফুলের আকষর্ণে টানছে পর্যটকদের। 

সারাদিনই সূর্যমুখী বাগানে ভিড় লেগে থাকে তরুণ তরুণীদের। সূর্যমুখী বাগানে আসা হাজারো তরুণ-তরুণীর ছবি ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা দেখে প্রতিনিয়তই পর্যটকদের ভিড় বাড়ছে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

সুনামগঞ্জ সদরের ভাদেরটেক ইউপির সালামপুরে কৃষি বিভাগের প্রণোদনায় বাণিজ্যিকভাবে ৩৩ শতক জমিতে সূর্যমুখীর আবাদ করেন স্থানীয় কৃষক আব্দুর রহমান। ফেব্রুয়ারির শুরুর দিকে বাগানের তিন শতাধিক গাছে ফুল ফোটে। এতেই সবার নজর পড়ে সূর্যমুখী বাগানে।

সরেজমিনে গিয়ে মঙ্গলবার (৩ মার্চ) দেখা গেছে, সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত ফুটে থাকা এ ফুলের আকষর্ণে টানছে পর্যটকদের। এক নজর হলদে ফুলের সমারোহ দেখতে ভিড় জমাচ্ছেন দূর দূরান্ত থেকে আসা নানা বয়সী পর্যটকরা। সারাদিনই ভিড় লেগে থাকে তরুণ তরুণীদের। 

সূর্যমুখী বাগানে আসা নাজমুর ইসলাম চৌধুরী রাজিব বলেন, হাজারো হলদে ফুলের সমারোহে আমরা মুগ্ধ। সূর্যমুখী ফুলের এমন সৌন্দর্য আগে কখনো দেখিনি। সোশ্যাল মিডিয়ায় বন্ধু-বান্ধবদের ছবি দেখে সূর্যমুখী বাগানের কথা জানতে পারি। হলদের সমারোহে নিজেকে মিশিয়ে দিতে তাই আজ এখানে আসালাম।

আরেক পর্যটক তানজিম আহমদ জানান, সুনামগঞ্জে এমন একটি মনোমুগ্ধকর বাগান আছে শুনেই এখানে এসেছে। সত্যিই খুব ভাল লাগছে। আশা করি দিন দিন এখানে পর্যটক ভিড় বাড়াবে।

বাগান মালিক আবদুর রহমান জানান, সূর্যমুখী বাগানের এ সৌন্দর্য উপভোগ করা যাবে ১৫ মার্চ পর্যন্ত। এরপর বাগানটি আর থাকবে না। গাছ কেটে বিজ সংগ্রহ করা হবে। এখান থেকে প্রায় ২৮-৩০ মন বিজ তোলা হবে। যা থেকে সয়াবিন তেল সংগ্রহ করা হবে। তিনি বলেন এ বাগান গড়ে তুলতে প্রায় ১২ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। কৃষি বিভাগ থেকে বিজ এবং সার দেয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান। 

তিনি আরও জানান, পর্যটকরা ছবি তুলতে গিয়ে অনেক সময় গাছগুলো নষ্ট করে ফেলছেন। অনেকে ফুল ছিড়ে নিচ্ছেন। এতে ফলন কমে যাচ্ছে। সবারই উচিত বাগানের সৌন্দর্য ধরে রাখা।

Hits: 1


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ