খুলনায় আরো একটি করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল স্থাপনের দাবি

Pub: Sunday, July 5, 2020 3:40 AM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় জরুরিভিত্তিতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শয্যাবিশিষ্ট আরো একটি করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল স্থাপনের জোর দাবি জানিয়েছে বিএমএ খুলনা শাখার নেতৃবৃন্দ। 

শনিবার (৪ জুলাই) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী বরাবর সংগঠনের সভাপতি ডা. শেখ বাহারুল আলম প্রেরিত ই-মেইল বার্তায় এ দাবি জানিয়েছেন।

এতে উল্লেখ্য করেন, গত জুন থেকে খুলনা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ও সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় খুলনার একমাত্র করোনা ডেডিকেটেট হাসপাতালটিতে এখন রোগী পরিপূর্ণ। নতুন আক্রান্ত মুমূর্ষু রোগীদের জন্য খুলনায় চিকিৎসার কোনো বিকল্প ব্যবস্থা নাই। যে কারণে বাড়ীতে থেকে ঘাটতি চিকিৎসায় অনেকেই মৃত্যবরণ করছেন। জটিল অবস্থায় অক্সিজেনের অভাবে অনেকেই শ্বাসকষ্টে বাড়িতে দুর্ভাগ্যজনক মৃত্যুবরণ করছেন। উপর্যুক্ত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা সম্ভব হলে এরমধ্যে অনেক মৃত্যুয় হয়তো ঠেকানো যেতো। বিশেষজ্ঞরা করোনা চিকিৎসায় সর্বোচ্চ গুরুত্বপ্রদান করার উপর জোর দিলেও চিকিৎসা ব্যবস্থাপনায় এখন খামতি রয়েছে। 

আরো বলা হয়েছে, খুলনায় করোনা আক্রান্ত বিকল্প চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা সম্ভব না হলে চিকিৎসার অভাবে রোগীর মৃত্যু ঘটলে সেই দায় হয়ত চিকিৎসকদের উপর চাপিয়ে ডা. মো. আব্দুর রকিব খাঁনের মতো আর কোনো মেধাবী চিকিৎসকে হয়তো প্রকাশ্যে পিটিয়ে মারা হবে। এইধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা বিএমএ’র কাম্য নয়। তাই আপৎকালীন পরিস্থিতিতে জরুরি ভিত্তিতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার সকল ব্যবস্থাপনাসহ আর একটি কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হাসপাতাল স্থাপন করা এ অঞ্চলের মানুষদের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজন।

খুলনা বিভাগের অন্যতম চিকিৎসা কেন্দ্র খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রতিদিন শত শত সন্দেহভাজন করোনা আক্রান্ত রোগী পরীক্ষা করানোর জন্য আসেন। দীর্ঘ সময় লাইনে থেকেও সবাই নমুনা প্রদান করতে পারেন না। যারা নমুনা প্রদান করেন তাদেরও দীর্ঘদিন রির্পোট সংগ্রহ করার জন্য অপেক্ষা করতে হয়। দীর্ঘ সময়ে রোগাক্রান্ত থেকে পথে যাওয়া আসা ও ঘুরাঘুরি করার কারনে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতিপূর্বে জনসাধারণ এর স্বাস্থ্য ঝুঁকি বিবেচনা করে খুলনায় কমপক্ষে আরো দু’টি আরটি পিসিআর ল্যাব স্থাপন করার দাবি জানানো হয়েছে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ