না’গঞ্জে ঈদের আগের বেতন না পেলে ঘর থেকে বের করে দিবে

Pub: বুধবার, জুন ১৩, ২০১৮ ৩:৪৪ অপরাহ্ণ   |   Upd: বুধবার, জুন ১৩, ২০১৮ ৩:৪৪ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ : ঈদের আর মাত্র কয়েকদিন বাকি। এখনও বেতন দেয় নাই। ছেলে মেয়েকে ঈদের পোশাকও কিনে দিতে পারি নাই। এদিকে বাসা ভাড়া, দোকান খরচ, গ্যাস বিদ্যুৎ বিল সবই এখনো বাকি আছে। ঈদের সময় পরিশোধ করে দিবে বলে রাখছি কিন্তু এখনও বেতনই পাই না। ঈদের আগে এগুলো পরিশোধ না করলে ঘর থেকে বের করে দিবে আর না খেয়ে থাকতে হবে।
বুধবার (১৩ জুন) দুপুরে শহরের চাষাঢ়ায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে বকেয়া বেতনের দাবিতে দ্বিতীয় দিন ব্যাপী অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তব্যে কথাগুলো বলেন গার্মেন্ট শ্রমিক আছিয়া বেগম।
তিনি আরো বলেন, সুইং সেকশনে ৫ হাজার টাকা মাসিক বেতনে কাজ করি। এরমধ্যে ঘর ভাড়া বকেয়া আছে তিন মাসে ৯ হাজার টাকা। মেয়ের স্যারের বেতন দিতে পারি নাই। এভাবে থাকলে আমাদের না খেয়ে ঈদ করতে হবে।
শহরের টানবাজার এলাকার রিতীকা ফ্যাশন ওয়্যার লিমিটেডের শ্রমিকদের মার্চ থেকে মে পর্যন্ত টানা তিন মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ওই অবস্থান কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। গার্মেন্টসটিতে মোট শ্রমিক সংখ্যা ৯০ জন। সর্বনি¤œ ৩ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ৮ হাজার টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন অংকের শ্রমিকদের এক মাসের বেতন।
রিতিকা ফ্যাশন ওয়ার লিমিটেডের ইনচার্জ আনিছুর জামানের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, শ্রমিক হনুফা বেগম, মর্জিনা আক্তার, রিপা আক্তার, রোমা আক্তার, আছিয়া বেগম, ওমর ফারুক, ইউসুফ মিয়া, জুয়েল রানা প্রমুখ।
এছাড়াও শ্রমিকদের আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় সিবিবি নেতা এডভোকেট মন্টু ঘোষ, ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি হাফিজুল ইসলাম, গার্মেন্ট ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি এমএ শাহিন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, গার্মেন্ট শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদ, গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতি জেলার সভাপতি অঞ্জন দাস, গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশন নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি হাফিজুর রহমান।
একই গার্মেন্টেস শ্রমিক রিপা আক্তার বলেন, আমরা দুই মাস আগেও বলেছি অন্য কোন গার্মেন্টে কাজ করি। কিন্তু মালিক শোনে নাই। বলছে ঈদের মধ্যে আস্তে আস্তে বেতন সব পরিশোধ করে দিবে। এখন কাজ কম তাই সমস্যায় আছি। কিন্তু গত ৭ মে কাউকে কিছু না জানিয়ে হঠাৎ করে কারখানা বন্ধ করে দেয়। আর তাই কোন গার্মেন্টে চাকরিও পাইনি।
গার্মেন্ট ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি এমএ শাহিন বলেন, ৩০ মে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও ৭ জুন কালকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর নারায়ণগঞ্জ জেলা উপ মহা পরিদর্শক ইকবাল আহমেদ কাছে স্মরকলিপি দেয়া হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত শ্রমিকদের সমস্যা সমাধান না হওয়ায় মঙ্গলবার সকাল থেকে অবস্থান কর্মসূচি শুরু হয়েছে। এতে দাবি আদায় না হলে কাঠোর আন্দোলন করা হবে।
কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর নারায়ণগঞ্জ জেলা উপ মহা পরিদর্শক ইকবাল আহমেদ বলেন, রিতীকা ফ্যাশন ওয়ার লিমিটেড এর মালিক পলাতক রয়েছে। পর পর তিনবার তারিখ দিয়েও শ্রমিকদের বেতন দেয়নি। তাই তাকে গ্রেফতারের জন্য ইতোমধ্যে শিল্প পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এছাড়াও আমরা ঈদের পর মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি। আর শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের জন্য জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেছি যাতে কারখানার মেশিন ও আসবাবপত্র বিক্রি করে শ্রমিকদের বেতন পরিশোধ করা হয়। তবে সেটাও ঈদের আগের দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। যদি এর মধ্যে বেতন পরিশোধ করে দেয়। আর না হলে আমরা আসবাবপত্র বিক্রি করে শ্রমিকদের টাকা পরিশোধ করা হবে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ

সংবাদটি পড়া হয়েছে 1051 বার