নিখোঁজ বাবাকে খুঁজে ফিরছেন ১০ মা‌সের নাঈমা

Pub: মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮ ৭:২৫ অপরাহ্ণ   |   Upd: মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮ ৭:২৫ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ব্যানারে থাকা নিখোঁজ বাবার ছবিটার দিকে তাকিয়ে ১০ মাস বয়সী শিশু নাঈমা সুলতানা বারবার বলছে, ‘বাবাই, বাবাই, বাবাই।’ তবে তার ডাকে সাড়া নেই নির্বাক বাবার, উত্তর দিচ্ছে না মায়াবী মুখের ছোট্ট শিশুর ডাকে।

সাড়া দেয়ার উপাও নেই। কেননা নাঈমার বাবা শওকত আকবর গত ৫ দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন।

মঙ্গলবার (১১ সে‌প্টেম্বর) ক্রাইম রিপোর্টাস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্র্যাব) কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে নিখোঁজ বাবা অ্যাডভোকেট মো. শওকত আকবরের ছবি দেখে এভাবেই ডাকছিলেন নাঈমা সুলতানা।

সংবাদ সম্মেলনে অ্যাডভোকেট মো.শওকত আকবর স্ত্রী সানিয়া আক্তার বলেন, ‘দশ মাস বয়সী বাচ্চা আমার। এখনও কোনও শব্দ ভালোভাবে উচ্চারণ করতে পারে না। শুধু বাবা ডাকতে পারে। কিন্তু তার বাবা নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে শুধু ‘বাবাই বাবাই’ ডাকতেই আছে।’

স্বামীর নিখোঁজ হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমার স্বামী ঢাকা আইনজীবী সমিতির সদস্য। চলতি মাসের ৭ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১২টার দিকে মিরপুরের পল্লবীতে আমাদের বাসার পাশেই মধু বেপারী জামে মসজিদে জুমার নামায পড়তে যায়। নামাজের আগে তার চুলে কালি করে দেই এবং কি জামা পরে যাবে সেটাও ঠিক করে দেই। নামাজের পরে আমরা একসঙ্গে একটা বিয়ের অনুষ্ঠানে যাবো বলে ঠিক করি। কিন্তু নামাজ পড়ে তিনি আজোপর্যন্ত বাসায় ফিরে আসেনি।’

তিনি আরও ‘আমার স্বজন ও তার বন্ধুদের বাড়ির ঠিকানায় খুঁজ নিয়েও কোনও সন্ধান পাইনি। নিখোঁজের দিনে সন্ধ্যায় আমি নিজেই পল্লবী থানায় একটি জিডি করি এবং র্যা ব-৪ একটি অভিযোগ করি।’

সানিয়া আক্তার বলেন, ‘নিখোঁজের পরে বাসার সিসিটিভি ফুটেজে দেখেছি, সে যখন বের হচ্ছিল। তখন বাসার গেটের বাহিরে একজন লোক ফোনে কথা বলছিল এবং আমার স্বামীর দিকে বারবার তাকাচ্ছিল। তবে তাকে আমি কখনও দেখিনি। এছাড়া মসজিদ ফুটেজে দেখেছি, যখন মসজিদ থেকে তিনি বের হচ্ছিলেন, তখন তার পেছনে অল্প কিছু লোক ছিল। তারপরই হয়তো তাকে তুলে নিয়ে গেছে।’

কাউকে সন্দেহ হয় কিনা- জানতে চাইলে বলেন, ‘আমার স্বামীর গ্রামের বাড়ি লক্ষ্মীপুরের সম্পত্তি নিয়ে তার বাবার চাচাতো ভাই মো. আলী খোকন, শওকত আলী বাবুল ও আমজাদ আলী বাদলদের সাথে দীর্ঘদিন যাবৎ মনোমালিন্য চলছিল। এমনকি তারা বিভিন্ন সময় আমার স্বামীকে মেরে ফেলার হুমকি দিতো। এনিয়ে গত বছরের ১৭ অক্টোবর পল্লবী থানায় একটি জিডি করেন, যার নম্বর ১৩৫২/১৭ ইং। আর এই বিরোধের শুরু হয় ২০০৯ সাল থেকে। আমার সন্দেহ হয় তারা কোনও কিছু করতে পারে। তবে আমি আপনাদের নিশ্চিত করতে চাই- তারা ছাড়া আমার স্বামীর অন্য কোনও শত্রু নেই। আমার স্বামী একজন ভালো মানুষ, তিনি কোনও রাজনৈতিক দলের সাথে জড়িত নন। তিনি কখনও রাজনৈতিক দলের সাথে জড়িত ছিলেন না।’

যেকোনও কিছুর বিনিময়ে তিনি তার স্বামীকে ফেরত পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সহায়তা কামনা করেন।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ

সংবাদটি পড়া হয়েছে 1149 বার