fbpx
 

নতুন মন্ত্রীসভায় ময়মনসিংহের পাঁচজনকে ঠাঁই দিয়েছেন শেখ হাসিনা

Pub: রবিবার, জানুয়ারি ৬, ২০১৯ ১১:১৬ অপরাহ্ণ   |   Upd: রবিবার, জানুয়ারি ৬, ২০১৯ ১১:১৬ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আনিসুর রহমান ফারুক, ময়মনসিংহ :

নবগঠিত দেশের অষ্টম ময়মনসিংহ বিভাগে এবার নতুন মন্ত্রিসভায় পাঁচজন মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী পেয়েছেন। ৪৬ সদস্যের নতুন মন্ত্রিসভায় ময়মনসিংহ বিভাগে একজন মন্ত্রী ও চারজন প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন।

রোববার (০৬ জানুয়ারি) বিকেলে তাদের দফতর বণ্টনের ঘোষণা দেওয়া হয়। এবার ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হয়েছেন মোস্তাফা জব্বার; নেত্রকোণার খালিয়াজুড়ির এই কৃতিসন্তান এর আগেও এই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলেন।

এছাড়া আশরাফ আলী খান খসরুকে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী, শরীফ আহমেদকে সমাজ কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী, কে এম খালিদ বাবুকে সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এবং মো. মুরাদ হাসানকে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছে।

শপথের জন্য বঙ্গভবনে ডাক পেয়েছেন মোস্তাফা জব্বার। তিনি নেত্রকোণার খালিয়াজুড়ির কৃতি সন্তান। একই জেলা থেকে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী শপথ নেবেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু।

তিনি নেত্রকোণা-২ (সদর-বারহাট্টা) আসন থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি জেলা আওয়ামী লীগের দুইবারের সাধারণ সম্পাদক। নবম সংসদেও সংসদ সদস্য (এমপি) ছিলেন খসরু।

ডাক পেয়েছেন ময়মনসিংহ-২ (ফুলপুর-তারাকান্দা) আসন থেকে টানা দুইবার নির্বাচিত এমপি শরীফ আহমেদও। তার বাবা প্রয়াত ভাষা সৈনিক শামসুল হক একই আসন থেকে বেশ কয়েকবার সংসদে প্রতিনিধিত্ব করেন।

ময়মনসিংহ-৫ (মুক্তাগাছা) আসন থেকে দ্বিতীয়বারের মতো নির্বাচিত সংসদ সদস্য কে এম খালিদ বাবু পেয়েছেন সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব।

জামালপুর-৪ (সরিষাবাড়ি) আসন থেকে নির্বাচিত ডা. মুরাদ হাসান প্রথমবারের মতো মন্ত্রিসভায় স্থান পাচ্ছেন। তাকে দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব। ২০০৮ সালেও তিনি হন এই আসনে।

মুরাদ হাসানের বাবা অ্যাডভোকেট মতিয়র রহমান তালুকদার ছিলেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর। দীর্ঘদিন তিনি জেলা আওয়ামী লীগ ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতিও ছিলেন।

বিদায়ী মন্ত্রিসভায় ময়মনসিংহ জেলা থেকে টেকনোক্র্যাট কোটায় ধর্মমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি প্রিন্সিপাল মতিউর রহমান। আর শেরপুর-২ (নকলা-নালিতাবাড়ী) আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য মতিয়া চৌধুরী ছিলেন কৃষিমন্ত্রী।

জামালপুর-৩ (মেলান্দহ-মাদারগঞ্জ) আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য মির্জা আজম বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী এবং নেত্রকোণা-২ (সদর-বারহাট্টা) আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য আরিফ খান জয় যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছিলেন।

এবার তাদের প্রত্যেকেই মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়েছেন। শেরপুর জেলা থেকে প্রথমবারের মতো কোনো মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী না পেলেও ময়মনসিংহ, নেত্রকোণা ও জামালপুর জেলায় এই পাঁচজনকে মন্ত্রিসভায় ঠাঁই দিয়েছেন শেখ হাসিনা।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ