নড়াইলে সংসদ নির্বাচন শেষ হতে না হতেই উপজেলা নির্বাচন নিয়ে সরগরম!

Pub: বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১০, ২০১৯ ১১:৫৯ অপরাহ্ণ   |   Upd: বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১০, ২০১৯ ১১:৫৯ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেষ হতে না হতেই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে সরগরম হয়ে উঠেছে ভোটের মাঠ। মার্চে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে বলে ঘোষণা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন থেকে। তাই তো সম্ভাব্য প্রার্থীরা জানান দিচ্ছেন তাদের প্রার্থীতার কথা। প্রার্থীর নিজ নিজ সমর্থকদের বিষয়টি প্রচার করার জন্য বলেছেন কর্মীদের। ইতিমধ্যে সদর উপজেলায় ৭ জন, লোহাগড়ায় ১২ জন এবং কালিয়া উপজেলায় ৫ জনের নাম আলোচনায় এসেছেন। জানাগেছে, নড়াইল জেলার তিনটি উপজেলায় রয়েছে তিন জন নির্বাচিত প্রতিনিধি। পাশাপাশি ভাইস-চেয়ারম্যান পুরুষ ও মহিলা। এবার নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে বলে জানাগেছে। দেওয়া হবে দলীয় মনোনয়ন। আর তাই তো সম্ভাব্য প্রার্থীরা জেলাসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে যোগাযোগ শুরু করেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও শুরু হয়েছে প্রচারণা। সম্প্রতি ইসি সচিব হেলাল উদ্দিন ঘোষণা করেছেন, চলতি মাসের শেষ অথবা ফেব্রুয়ারির প্রথম দিকে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে আর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে মার্চ মাসে। এমন ঘোষণার পর পরই সরগরম হয়ে উঠেছে ভোটের মাঠ। প্রার্থীতা জানান দিতে প্রার্থী নিজে বা তার সমর্থকরা জানান দিতে চায়ের দোকানে চালাচ্ছেন জোর আলোচনা। যাদের নাম আলোচনায় শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শরীফ হুমায়ুন কবীর, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট অচিন চক্রবর্ত্তী, আওয়ামী লীগ নেতা ও চন্ডিবরপুর ইউনিয়নের বারবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান ভূঁইয়া, জেলা আওয়ামী লীগের নেতা ও জেলা বাস ও মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজী জহিরুল হক জহির, জেলা পরিষদের সদস্য ও পৌর যুবলীগের সভাপতি বিপ্লব বিশ্বাস বিলো, জেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক সাবেক ভিপি গাউসুল আযম মাসুম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম পলাশের নাম শোনা যাচ্ছে। লোহাগড়া উপজেলায় যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শিকদার আব্দুল হান্নান রুনু, বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফয়জুল আমির লিটু, সাবেক নোয়াগ্রাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফয়জুল হক রোম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি তারিকুল ইসলাম উজ্জ্বল, আওয়ামী লীগ নেতা এ এম আব্দুল্লাহ, সাজ্জাদুল ইসলাম মুন্না, মঞ্জুরুল করিম মুন, বি এম কামাল হোসেন, শেখ সিয়ানুক ইসলাম, আব্দুল্লাহ আল আজাদ সুজন, মোশারফ হোসেন মোল্লা ও কাশিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান। কালিয়া উপজেলায় যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, বর্তমান চেয়ারম্যান খাঁন শামীম রহমান ওছি, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হারুন অর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক কৃষ্ণপদ ঘোষ, আওয়ামী লীগ নেতা ফুরকান মোল্লা ও সরোয়ার হোসেনের নাম শোনা যাচ্ছে। তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যেহেতু দলীয় মনোনয়নের ভিত্তিতে প্রতীকে নির্বাচন হবে তাই মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে সম্ভাব্য প্রার্থীরা বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন। কারণ নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের ঘাঁটি বলে পরিচিত হওয়ায় দলীয় মনোনয়ন পেলেই নির্বাচনী বৈতরনী পার হওয়া সহজ হবে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ