fbpx
 

শ্যালকদুলাভাই অপহরণ ৭ দিন পর আড়াইহাজার থেকে উদ্ধার

Pub: শুক্রবার, জানুয়ারি ১৮, ২০১৯ ৮:৩২ অপরাহ্ণ   |   Upd: শুক্রবার, জানুয়ারি ১৮, ২০১৯ ৮:৩২ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ : বাড়ী থেকে জরুরী কাজে ঢাকা যাওয়ার পথে মদনপুর থেকে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের শ্যালক-দুলাভাইকে অপহরণ ও ৩ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। এর ৭ দিনের মাথায় অপহৃত ১জনকে আড়াইহাজার উপজেলার ব্রাহ্মন্দী ইউপি উজানগোপিন্দী গ্রামের আলমগীরের বাড়ী থেকে মুমূর্ষু অবস্থায় বৃহষ্পতিবার রাতে উদ্ধার করেছে পুলিশ। অপরজন কৌশলে পালিয়ে গেছে। উদ্ধারকৃত শ্রমিকের নাম শাহ আলম (৩২)। সে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ থানার লোলবাড়িয়া এলাকার হাফেজ আহাম্মদের ছেলে।
উদ্ধারকৃত শাহ আলম জানান, ১০ জানুয়ারী দুপুরে তাকেসহ তার শ্যালক আরিফ (৩০) কে ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কের মদনপুর নামক স্থান থেকে একটি মাইক্রোবাসে তুলে জোরপূর্বক অপহরণ করা হয়। এর পর তাদেরেকে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে গিয়ে হাতÑপা বেঁধে অমানবিক ভাবে নির্যাতন করা হয় এবং বিভিন্ন নম্বর থেকে ফোন করে তাদের পরিবারের কাছে নগদ ৩ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করা হয়।
এর মধ্যে তার সাথে অপহরণে শিকার তার শ্যালক আরিফ কৌশলে পালিয়ে যায়। পরে আরিফ ঘটনাটি মোবাইল ফোনে তার পরিবারকে জানায় এবং ৯৯৯ নম্বর থেকে ফোন করে পুুলিশকে বিষয়টি অবহিত করে।
পুলিশ প্রায় এক সপ্তাহ খোঁজা খূঁজি করে বৃহষ্পতিবার রাতে শাহ আলমকে আড়াইহাজার উপজেলার ব্রাহ্মন্দী ইউনিয়ন পরিষদের অফিসের বারান্দা থেকে হাত-পা বাঁধা ও মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে আড়াইহাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করায়। উদ্ধারকৃত শাহ আলম বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।
এ ব্যাপারে জড়িত থাকার পুলিশ আ’লীগ নেতা ব্রাহ্মন্দী ইউপির চেয়ারম্যান লাক মিয়ার ভাগিনা উজানগোপিন্দী গ্রামের আলমগীর (৩২) কে আটক করেছে। এ বিষয়ে শাহ আলমের বড় ভাই জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে ধৃত আলমগীরসহ ৬ জনের নাম উল্লেখ করে আড়াইহাজার থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছে। মামলার অপরাপর আসামীরা হচ্ছে শাহেদ, আফজাল, রাতুল, আরমান ও মাজহারুল। এদের বাড়ী ব্রাক্ষন্দী ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে।
আড়াইহাজার থানার উপ পরিদর্শক (এস আই) রফিউদৌলা জানান, আটককৃত আলমগীর ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে।
আড়াইহাজার থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি) আক্তার হোসেন জানান, ঘটনার সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন, প্রত্যেককে আইনের আওতায় আনা হবে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ