ডিমলায় পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় স্বামীর নির্যাতনে গৃহবধু হাসপাতালে!

Pub: মঙ্গলবার, মার্চ ১৯, ২০১৯ ৭:২৬ অপরাহ্ণ   |   Upd: মঙ্গলবার, মার্চ ১৯, ২০১৯ ৭:২৬ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মহিনুল ইসলাম সুজন,বিশেষ প্রতিনিধি॥ নীলফামারীর ডিমলায় পরকীয়া প্রেমে বাধা দেয়ার ঘটনায় স্বামীসহ তার পরিবারের লোকজন শাপলা বেগম (৩২) নামে এক গৃহবধুকে হত্যা চেষ্টা অভিযোগ উঠেছে।এ ঘটনায় সোমবার(১৮ই মার্চ) সন্ধ্যায় আহত অবস্থায় গৃহবধু শাপলাকে এলাকাবাসী উদ্ধার করে ডিমলা হাসপাতালে ভর্তি করেন।নির্যাতনের শিকার শাপলা উপজেলার খালিশা চাপানি ইউনিয়নের খালিশা চাপানি গ্রামের লালের পাড়ের গ্রামের আশরাফ আলীর কন্যা।
জানা যায়,শাপলার সাথে ২০০৪ সালে বিয়ে হয় একই এলাকার ছপির উদ্দিনের পুত্র মোখলেছার রহমান (কালা)এর সাথে। মোখলেছার রহমান (কালা) বিভিন্ন বাজারে সামুদ্্িরক মাছ বিক্রি করে সংসার চালায়। তাদের সংসারে ২টি কন্যা ও এক পুত্র সন্তান রয়েছে। গত এক বছর থেকে মোখলেছার রহমান (কালা) পাশ্ববর্তী এক স্কুল ছাত্রীর সাথে প্রেমে জড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে ২লক্ষ টাকা আপোষ মিমাংশা করে একটি প্রভাবশালী মহল। কিন্তু কালা পুনরায় ওই স্কুল ছাত্রীটির সাথে আবারও যোগাযোগ করলে শাপলা বুঝতে পেরে বিষয়টি নিষেধ করায় সোমবার বিকেলে তাকে তার স্বামীসহ স্বামীর বাড়ির লোকেরা লোহার রড় দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করলে সে ঘটনাস্থলে সঙ্গা হারিয়ে ফেলেন।পরে তাকে এলাকাবাসী উদ্ধার করে রাতে ডিমলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। ডিমলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শাপলা বেগম বলেন, আমাকে হত্যা করে আমার স্বামী তার প্রেমিকা স্কুল ছাত্রীটিকে বিয়ে করতে চায়। গত ৯মাস আগে ২লক্ষ টাকা জড়িমানা দিয়েছ, আবারও এসব কেনো করছো এমনটা বলার কারনে সে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করাসহ শ্বাষরোধ করে হত্যার উদ্দেশ্যে গলা চেপে ধরে ও আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে রড দিয়ে আঘাত করেন। এ ব্যাপারে শাপলার পিতা আশরাফ আলী বাদী হয়ে তিনজনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দিয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত মোখলেছার রহমান (কালা)এর সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলার চেস্টা করা হলে তিনি কল রিসিভ না করায় তা সম্ভব হয়নি। মামলার বাদী আশরাফ আলী বলেন, বিয়ের সময় জামাতাকে ৭০ হাজার টাকা দিয়াছিলাম। পরে বাড়ী করার জন্য ১০শতক জমি দুইজনের নামে লিখে দেই। আমি বাড়ী বাড়ী ফেরি করে সংসার চালাই। আমার মেয়েটা নির্যাতনের বিচাই চাই আমি। ডিমলা থানার ওসি মফিজ উদ্দিন শেখ বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করছেন।প্রাথমিক তদন্ত শেষে আমরা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করব।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ