মেলান্দহে মরা গাছে রশি বেঁধে উচ্ছেদ ষড়যন্ত্র

Pub: শনিবার, মে ১১, ২০১৯ ৬:৩৮ অপরাহ্ণ   |   Upd: শনিবার, মে ১১, ২০১৯ ৬:৩৮ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শহিদুল ইসলাম কাজল,জামালপুর ॥মেলান্দহের কুলিয়া গ্রামের আব্দুল গনিকে নিজ বাড়ী থেকে উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র করছে প্রতিপক্ষরা। তারা নিজ সীমানা পেরিয়ে একটি মরা কাঠাল গাছে রশি লাগিয়েছে। ওই রশি দিয়ে দ্বন্দ¦ সৃষ্টির ফাদ পেতেছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সরেজমিন ঘুরে জানাগেছে, মেলান্দহ উপজেলার কুলিয়া ইউনিয়নের সাদিপাটি গ্রামের সরকারী চাকুরী জীবি আব্দুল গনি। তিনি বাংলাদেশ তুলা উন্নয়ন বোর্ড জামালপুর জেলা ইউনিটের কটন ইউনিট অফিসার (ভারপ্রাপ্ত)। আব্দুল গনি পেশাগত দায়িত্ব পালনের কারণে নিজ বাড়ীতে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে পারেন না। সেই সুযোগে প্রভাবশালী প্রতিবেশী চান মিয়া গংরা দীর্ঘদিন যাবত আব্দুল গনির নিরীহ পরিবারকে পৈতৃক সম্পত্তি থেকে উচ্ছেদ ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এনিয়ে ইতিমধ্যেই দুপক্ষের মাঝে কয়েক দফা দ্বন্দ্ব কলহ হয়েছে এবং মামলা মোকদ্দমাও চলছে। বিগত ১২ বছরে স্থানীয় ইউপি সদস্য এবং গ্রাম্য মাতাব্বরগন দুপক্ষের দ্বন্দ্ব নিরসন কল্পে শালিশ বৈঠক করে কয়েক দফা সীমানা নির্ধারণ করেছেন। অথচ চান মিয়া গংরা বারবার ওই সীমানা উঠিয়ে দ্বন্দ্ব কলহ সৃষ্টি করায় গ্রাম্য মাতাব্বরগনের পরামর্শে আব্দুল গনি দুপক্ষের সীমানায় প্রাচীর নির্মাণ করেছে। এরপরও পূর্ব বিরোধের জেরধরে চান মিয়া গংরা সম্প্রতি তার বসত ভিটার একটি মরা কাঠাল গাছে মোটা রশি লাগিয়েছে। ওই রশি অন্যায় ভাবে নিজ সীমানা পেরিয়ে আব্দুল গনির বসত ভিটায় থাকা অপর একটি তাজা গাছের সাথে বেঁধে রেখেছে। মূলত: ওই রশি দিয়ে চান মিয়া তার মরা গাছ ফেলে আব্দুল গনির সীমানা প্রাচীর ভাঙ্গার ষড়যন্ত্রে মেতেছে এবং শত্রুতা সৃষ্টি করেছে। এছাড়াও ওই রশি নিয়ে যেকোন ধরণের দ্বন্দ্ব কলহকে পূঁজি করে চান মিয়া গংরা আব্দুল গনিকে পৈতৃক সম্পত্তি থেকে উচ্ছেদ করার গভীর ষড়যন্ত্রে নানা উস্কানী অব্যাহত রেখেছেন।
এব্যপারে ভোক্তভুগী আব্দুল গনি জানান, কুলিয়া ইউনিয়নের সাদিপাটি গ্রামের চান মিয়া গংরা দীর্ঘদিন যাবত তাদের নিরীহ পরিবারটিকে নিজ বসতবিটা থেকে উচ্ছেদের ষড়যন্ত্রে অন্যায় ভাবে নানা অত্যাচার নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। এজন্য তিনি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, জেলা পরিষদের স্থানীয় সদস্য এবং মেলান্দহ উপজেলা চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ