চাঞ্চল্যকর রাসেল হত্যায় গ্রেফতার-২ :প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে প্রভাবশালী মহলের অপচেষ্টা

Pub: বৃহস্পতিবার, মে ১৬, ২০১৯ ১:২১ পূর্বাহ্ণ   |   Upd: বৃহস্পতিবার, মে ১৬, ২০১৯ ১:২১ পূর্বাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি :

নগরীতে জেলা যুবলীগের অন্যতম নেতা রেজাউল করিম রাসেল হত্যার ঘটনায় নিহত রাসেলের বাবা জালাল উদ্দিন ওরফে জালাল ডিলার বাদি হয়ে কোতোয়ালী মডেল থানায় গত ১৪ মে রাতে ৪ জনের নাম উল্লেখ ও ৮ থেকে ১০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর পরই হত্যায় জড়িত দুই আসামি মোবারক ও আজিজুলকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি।

এ দিকে, যুবলীগের সদস্য ও সাবেক ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রেজাউল করিম রাসেল হত্যাকান্ডকে ঘিরে এলাকার রাজনৈতিক প্রভাবশালী একটি মহল বিভিন্ন সময়ে রাজনৈতিক ফায়েদা ও ব্যবসায়ীক স্বার্থহাসিলসহ বিভিন্ন কারনে জনপ্রিয় ও মেধাবী ছাত্রনেতা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ন সম্পাদক ও সদ্য বিলুপ্ত শহর ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন আরিফকে প্রতিপক্ষ হিসেবে ফাঁসানোর অপচেষ্টায় লিপ্ত থাকা মহলটি রাসেলের পরিবারকে অব্যাহতভাবে চাপ সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে দাবী করেছেন আরিফের পরিবার।

এ ঘটনায় ছাত্রলীগের দলীয় নেতাকর্মী ও এলাকাবাসির মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। পাশাপাশি ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত করে আসল রহস্য বের করার দাবী তুলেছেন সচেতন নাগরিক মহল।

অপরদিকে, রাসেল হত্যায় বুধবার (১৫ মে) বিকেলে গ্রেপ্তারকৃত দু’জনকে আদালতে সোপর্দ করা হলে তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন বিজ্ঞ বিচারক।

এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহ মো. কামাল আকন্দ।

তিনি বলেন, জেলা যুবলীগ নেতা রেজাউল করিম রাসেল হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত মোবারক ও আজিজুলকে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে বিকেলে ময়মনসিংহ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেটের ১ নং আমলি আদালতে ওই দুজনকে হাজির করা হয়। তখন বিচারকের উপস্থিতিতে ১৬৪ ধারা স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দী প্রদান করেন ওই দুই আসামি। এরপর তাদের দুজনকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন বিচারক।

এর আগে রাসেল হত্যার ঘটনায় তার বাবা জালাল উদ্দিন ওরপে জালাল ডিলার বাদি হয়ে কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা দায়েরের পর মামলাটি সুষ্ঠ তদন্তের জন্য জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি শাহ কামালের কাছে দায়িত্ব দেন জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) শাহ আবিদ হাসান। পরে এ হত্যার রহস্য উদ্বঘাটনের জন্য পুলিশ সুপারের নির্দেশেই তদন্তে নামে ডিবি পুলিশ। এখনও গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তবে হত্যার সঙ্গে যারা জড়িত রয়েছে, তাদের সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে বলেও জানিয়েছে পুলিশের এই কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য: মঙ্গলবার (১৪ মে) রাত ২টার দিকে নগরীর মৃতু্ঞ্জয় স্কুল রোড এলাকার ডিফেন্স পাটির কার্যালয়ের সামনে জেলা যুবলীগের সদস্য রেজাউল করিম রাসেলকে (৩৬) ছুড়িকাঘাত ও এলোপাথারী কুপিয়ে হত্যা করা হয়। নিহত রাসেল শহরতলীর শম্ভুগঞ্জ চর হরিপুর এলাকার জালাল উদ্দিন ওরফে জালাল ডিলারের ছেলে বলে জানা গেছে। তবে কি কারণে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে তা এখনো জানা যায়নি।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ