fbpx
 

লালমনিরহাটের জেলা জজ সাময়িক বরখাস্ত

Pub: Saturday, May 25, 2019 8:23 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মোঃ ইউনুস আলী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

দুই নারীর লিখিত অভিযোগে লালমনিরহাট জেলা ও দায়রা জজ মোঃ মোস্তাকিনুর রহমানকে সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শে স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়েছিল। এর ১২ দিন পর আবার সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের বিচার শাখা-৩।

৯ মে (বৃহস্পতিবার) আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের বিচার শাখা-৩ এর উপ-সচিব (প্রশাসন-১) মোহাম্মদ ইফতেখার বিন আজিজ স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ অনুযায়ী লালমনিরহাট জেলা ও দায়রা জজ কে এম মোস্তাকিনুর রহমানকে বর্তমান কর্মস্থল হতে বদলি করে পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগে সংযুক্ত হল।
এরপর গত ২১ মে (মঙ্গলবার) আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব আবু সালেহ শেখ মোঃ জহিরুল হক স্বাক্ষরিত নং ১.০০.০০০০.০০৯.১৯-৩৫০, ২১ মে তারিখের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, লালমনিরহাটের সাবেক জেলা ও দায়রা জজ বর্তমানে আইন ও বিচার বিভাগে সংযুক্ত কর্মকর্তা কে এম মোস্তাকিনুর রহমানকে বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিস (শৃঙ্খলা) বিধিমালা, ২০১৭ এর বিধি ১১ অনুযায়ী চাকরি হতে সাময়িক বরখাস্ত করা হল।

আইন ও বিচার বিভাগের প্রজ্ঞাপন সূত্রে জানা গেছে, লালমনিরহাট জেলা ও দায়রা জজ কে এম মোস্তাকিনুর রহমানের বিরুদ্ধে লালমনিরহাটের দুই নারীর আনিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বিভাগীয় মামলা রুজু করার জন্য বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট পরামর্শ প্রদান করেছে এবং যেহেতু অভিযুক্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ গুরুতর। তবে সাময়িক বরখাস্তকালীন থাকাবস্থায় অভিযুক্ত কর্মকর্তা প্রচলিত বিধি মোতাবেক খোরাকী ভাতা প্রাপ্ত হবেন।
অভিযোগকারী দুই নারী লালমনিরহাটের কাকিনা উত্তরবাংলা কলেজের শিক্ষক। এরমধ্যে মধ্যে একজন যুক্তরাজ্যের স্কটল্যান্ডের অধিবাসী অতিথি শিক্ষক। তিনি এরই মধ্যে নিজ দেশে ফেরত চলে গেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন ওই কলেজের ইংরেজি বিষয়ের বিভাগীয় প্রধান নন্দা রানী সরকার। তবে অভিযোগের বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে জানিয়েছেন।
অপরদিকে অভিযোগকারী অপর নারীর ব্যক্তিগত মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। এছাড়া মোবাইল এবং ফেসবুক মেসেঞ্জারে ক্ষুদেবার্তা পাঠানোর পরও তিনি কোনো প্রকার জবাব দেননি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত কে এম মোস্তাকিনুর রহমান এই বিষয়ে গণমাধ্যমে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।
এই বিষয়ে কাকিনা উত্তরবাংলা কলেজের অধ্যক্ষ এএসএম মনওয়ারুল ইসলাম বলেন, ওই দুই শিক্ষক আমাকে কোন কিছু জানাননি। ক্যাম্পাসের বাইরে তাদের কোন ঘটনা আছে কি না, তাও আমার জানা নেই।

উল্লেখ্য, লালমনিরহাট জেলা ও দায়রা জজ আদালত সূত্রে জানা গেছে, কে, এম, মোস্তাকিনুর রহমান ২০১৮ সালের ২৭ নভেম্বর রাজশাহীর বিভাগীয় স্পেশাল জজ পদ থেকে বদলি হয়ে লালমনিরহাট জেলা ও দায়রা জজ হিসেবে যোগদান করেন। স্থানীয় একটি কলেজের দুই শিক্ষকের লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৯ মে মোস্তাকিনুর রহমানকে স্ট্যান্ড রিলিজ করে আইন ও বিচার বিভাগে সংযুক্ত করা হয়। পরে ২১ মে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে বিভাগীয় মামলা রুজু করার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ