fbpx
 

করোনা ভাইরাস নারায়ণগঞ্জে ৪০ জন পর্যবেক্ষণে

Pub: মঙ্গলবার, মার্চ ১০, ২০২০ ৬:১৪ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জে ৪০ জনকে নিজ নিজ বাসায় কোয়ারেন্টাইনে (সংক্রমণ রোধে কোনো একটি স্থানে আবদ্ধ করে রাখা) রাখা হয়েছে। আইইডিসিআর এর চিকিৎসাধীন দুইজন এ ৪০ জনের তালিকা প্রদান করে। বিগত দিনে ইতালী থেকে ফেরতের পর এ ৪০ জনের সংস্পর্শে এসেছিলেন তাঁরা। সে কারণেই তাদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। তারা স্ব স্ব বাড়িতেই রয়েছেন। তাদের সঙ্গে আইইডিসিআর কর্মকর্তা ছাড়া আর কেউ ভিড়তে দেওয়া হচ্ছে না।
১০ মার্চ নারায়ণগঞ্জ জেলা ১০০ শয্যা হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল সার্জন আসাদুজ্জামান এ প্রতিবেদককে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, যেহেতু তাদের সঙ্গে আক্রান্ত ২জন সংস্পর্শে ছিল সেহেতু অহেতুক ভয় কাটানো ও ভীতি এড়াতেই ৪০ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।
এদিকে বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সরকারের নির্দেশনায় সারাদেশের মত রাজধানী লগোয়া নারায়ণগঞ্জেও অতিরিক্তভাবে কোয়ারেন্টাইনের ৫০ শয্যা প্রস্তুত রাখা হয়েছে। শহরের শায়েস্তা খান সড়কে নির্মিত জুডিশিয়াল ভবনে ওই ৫০টি শয্যার ইউনিট খোলা হয়েছে। এর আগে শহরের ১০০ শয্যা ও ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ৫টি করে ১০ শয্যার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। এখন এ ১০ শয্যার সঙ্গে নতুন করে ৫০ শয্যা যুক্ত হয়েছে।
এর আগে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে নারায়ণগঞ্জের ৩০০ শয্যা হাসপাতাল ও নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে (১০০ শয্যা হাসপাতাল) ৫টি করে ১০টি শয্যার ব্যবস্থা করা হয় প্রতিরোধ এবং চিকিৎসার জন্য।
এদিকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নারায়ণগঞ্জে জেলা মাল্টিসেক্টরাল কমিটি গঠন করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিনকে সভাপতি এবং জেলা সিভিল সার্জন ডা. ইমতিয়াজ আহম্মেদকে সদস্য সচিব করে এ কমিটি করা হয়।
উল্লেখ্য গত ৮মার্চ রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত তিনজন শনাক্ত করে। তিনজনের মধ্যে একজন নারী ও দুইজন পুরুষ। আক্রান্ত দুইজন দুই পরিবারের। তারা ইতালি থেকে বাংলাদেশে এসেছেন। তাদের মাধ্যমে অপরজন আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডা. মুহাম্মদ ইমতিয়াজ বলেন, নারায়ণগঞ্জে সন্দেহজনক যদি কেউ করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত হয়ে যায় তাহলে তাৎক্ষনিক যাতে আমরা রাখতে পারি এজন্য আইইডিসিআর এর পরামর্শ অনুযায়ী ৫০ শয্যা করোনা সেল ব্যবস্থা করা হয়েছে। এটা প্রয়োজন হতেও পারে আবার নাও হতে পারে। প্রয়োজন হলে যেন তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নিতে পারি এজন্য করে রাখা হয়েছে।
মুহাম্মদ ইমতিয়াজ আরো বলেন, করোনা ভাইরাস পজেটিভ কিংবা নেগেটিভ পরীক্ষার যন্ত্রাংশ দেশের কোন জেলাতেই নাই। শুধু মাত্র ঢাকাতেই আছে। প্রথমে যদি সন্দেহ হয় আপনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কিংবা আপনি, আপনার ভাই বা আত্মীয় স্বজন ১০ থেকে ১৫ দিন আগে করোনা আক্রান্ত দেশ থেকে ভ্রমণ করে এসেছে তখনই আমরা তাকে সন্দেহ করবো। তখনই তাকে আমরা এ ৫০ শয্যার আইসোলেশন ইউনিটে রাখবো। এখানে চিকিৎসা দিবো ও রক্ত পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠাবো। তখন ঢাকা থেকে যদি বলে সে করনো ভাইরাসে আক্রান্ত এবং তাকে এখানে রাখবো না ঢাকায় পাঠিয়ে দিবে তাদের নির্দেশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Hits: 29


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ