fbpx
 

মেরে ফেললেও শান্তি পেতাম, এই যন্ত্রণা আর সহ্য হয় না

Pub: Tuesday, April 30, 2019 2:45 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে নিম্ন আদালতে চলমান অবৈধ অস্ত্র ও গুলি নিজ হেফাজতে রাখার অপরাধে তেজগাঁও থানার অশীতিপর রাবেয়া খাতুনসহ তিনজনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার নথি তলব করেছেন হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে এই মামলায় বিচারে বিলম্ব কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না রুলে তার ব্যাখ্যা চেয়েছেন আদালত। সংশ্লিষ্ট কোর্টের বিচারককে আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৩০ এপ্রিল) বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি মো. রিয়াজ উদ্দিন খানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল জাহিদ সরওয়ার কাজল আদালতের আদেশের বিষয়টি রাইজিংবিডিকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘আশরাফুল আলম নোবেল নামে এক আইনজীবীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত এ আদেশ দিয়েছেন। আগামী ১২ মে মামলাটি শুনানির জন্য আসবে।’

এর আগে গত ২৫ এপ্রিল একটি দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদন ‘অশীতিপর রাবেয়া : আদালতের বারান্দায় আর কত ঘুরবেন তিনি’ এই প্রতিবেদন যুক্ত করে হাইকোর্টে রিট করা হয়।

ওই প্রতিবেদনে বৃদ্ধার বরাত দিয়ে বলা হয়, ‘১৮ বছর ধরে আদালতে হাজিরা দেই। মামলা শেষ হয় না। কবে শেষ হবে, তাও জানি না। পুলিশরে শরবত, মোরাব্বা বানাই খাওয়াছি। তারপরেও মামলায় আমারে আসামি বানাইছে। আমি আর বাঁচতে চাই না। মরতে চাই। অনেকদিন ধরে এই মামলায় হাজিরা দেই। আদালত আমাকে মামলা থেকে খালাসও দেয় না, শাস্তিও দেয় না।’

অবৈধ অস্ত্র ও গুলি নিজ হেফাজতে রাখার অপরাধে তেজগাঁও থানার এসআই আবদুর রাজ্জাক বাদী হয়ে অশীতিপর রাবেয়া খাতুনসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেছিলেন ২০০২ সালের ২ জুন। মামলা নম্বর ১৯৩৮/০২। এরপর তিনি গ্রেপ্তার হন, ছয় মাস কারাগারে থেকে জামিনও পান। পরে তাকেসহ দুই আসামি জুলহাস ও মাসুদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে ২০০৩ সালের ২৪ মার্চ শুরু হয় মামলার বিচার।

তেজগাঁও থানা এলাকার ৩/ক গার্ডেন রোড, কাজী আবদুল জাহিদের ঘরের দক্ষিণ পাশ থেকে গ্রেপ্তার করা হয় রাবেয়া খাতুনকে। গ্রেপ্তারের সময় তার কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল ও ছয় রাউন্ড গুলি উদ্ধারের দাবি করে পুলিশ। সেই মামলা থেকে মুক্তি পেতে ঢাকার আদালতের বারান্দায় ১৮ বছর ধরে ঘুরছেন এই অশীতিপর মানুষটি।

রাবেয়ার আদালতে হাজিরার দিন ছিল গতকাল সোমবার। যথাসময়ে সকাল সাড়ে ৯টায় তিনি ঢাকা মহানগর ১ নম্বর অতিরিক্ত জজ আদালতের দোতলায় লাঠিতে ভর দিয়ে হাজির হন। পরনে ম্যাক্সি ও চোখে চশমা। এক হাতে পানের পলিথিন ব্যাগ, সঙ্গে মোবাইল। হাজির হন এজলাস কক্ষের পেছনের বেঞ্চে। ন্যুব্জ হয়ে গেছেন বয়সের ভারে।

পরিচয় দিয়ে মামলা সম্পর্কে জানতে চাইলে হাউমাউ করে কেঁদে ওঠেন তিনি, ‘কেউ যদি আমাকে গলা কেটে মেরে ফেলত তাও শান্তি পেতাম। এই যন্ত্রণা আর সহ্য হয় না।’


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ