নিউমার্কেটে ঈদবাজার: ফুটপাতেও মধ্যবিত্তদের ভিড়

Pub: শুক্রবার, মে ৩১, ২০১৯ ৮:৫৯ অপরাহ্ণ   |   Upd: শুক্রবার, মে ৩১, ২০১৯ ৮:৫৯ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ঈদ ধর্মপ্রাণ মুসলিমদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব। একমাস সিয়াম সাধনার পরে মুসলিম উম্মাহ অপেক্ষার প্রহর গুনতে থাকে ঈদের। তাই এই ঈদকে ঘিরে মানুষের ব্যস্ততার কোনও শেষ থাকে না। আর এই ব্যস্ততার প্রধান অনুষঙ্গ হলো নতুন পোশাক কেনাকাটা। এরইমধ্যে রাজধানীসহ দেশের সকল মার্কেটগুলোতে ঈদের কেনাকাটার ধুম পড়েছে। কেনাকাটা চলবে চাঁদরাত পর্যন্ত। 

অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার ঈদে কেনাটাকার ক্ষেত্রে কিছুটা বাড়তি আগ্রহ দেখা যাচ্ছে। কারণ এবারের ঈদে গেলবারের থেকে পোশাকের দাম তুলনামুলকভাবে একটু কম বলেই জানাচ্ছেন পোশাক ব্যবসায়ীরা। ঈদে মধ্যবিত্তদের কেনাটাকায় বিপনিবিতানগুলোও পাশাপাশি ফুটপাতের অস্থায়ী দোকানগুলোতেও উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। 

বছর কয়েক আগেও ঈদের কেনাকাটার ধুম পড়তো মূলত ঈদের ৭ দিন আগে থেকে। কিন্তু দিন বদলেছে, এখন রোজার প্রথম থেকেই শুরু হয় কেনাকার ব্যস্ততা। শপিং মল কিংবা নিউমার্কেট বঙ্গবাজারের মতো জায়গাগুলো মানুষের পদচারণায় মুখর উঠেছে সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত। ক্রেতাদের চাপ সামলাতে গিয়ে দম ফেলারও এখন ফুরসত পাচ্ছেন না দোকানিরাও। 

রাজধানীতে মধ্যবিত্তদের কেনাকাটার সবচেয়ে বড় বাজার নিউমার্কেট। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত ঢাকার নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত ঘুরে দেখছেন এ বাজারের বিভিন্ন পণ্যের দোকান। সবচেয়ে বেশি ভিড় কাপড়ের দোকানে। কাপড়ের মধ্যে পছন্দের শীর্ষে রয়েছে শাড়ি ও থ্রি পিস। এরপরেই গয়না ও প্রসাধনী কিনতে ছুটছেন মানুষ।

গতকাল বৃহস্পতিবার সরেজমিনে নিউমার্কেট এলাকায় গিয়ে এমনই চিত্র দেখা গেছে। ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে এ ভিড়ের মাত্রা ততই বাড়ছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

সাভারের নবীনগর থেকে নিউমার্কেটে ঈদ মার্কেট করতে আসা লাভলী বেগম ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘সাভার নিউ মার্কেটে কাপড়চোপড়ের অনেক দাম। তাই কিছুটা কম দামে রুচিশীল পোশাক কিনতেই ঢাকায় আসা। এখানে বাজেটের মধ্যে পরিবারের সবার কেনাকাটা সারতে পারবো বলেই মনে হচ্ছে। পরিবারের সবার জন্য কেনাটাকা শেষে আমার জন্য ফুটপাত থেকে কিছু গহনা এবং ওড়না কিনবো। এখানে ফুটপাতেও মার্কেটের জিনিস পাওয়া যায়।’

ঢাকা কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী আদনান রাসেল বলেন, ‘আসলে আমাদের মত ছাত্রদের জন্য নিউমার্কেট এবং চন্দ্রিমায় থেকে ভাল কমদামের মধ্যে পছন্দনীয় শার্ট প্যান্ট ঢাকার আর অন্য কোথাও পাওয়া যায় না। তাই আমি নিউমার্কেট ছাড়া কখনোই কেনাকাটা করি না বললেই চলে। তবে অন্য সময়ের চেয়ে ঈদের সময় পোশাকের দামটা একটু বেশিই নিচ্ছেন দোকানিরা।’ 

নিউমার্কের সামনের ফুটপাতের জুতা দোকানি বরকত মিয়া বলেন, ‘গেলবারের চেয়ে এবার বেচাকেনা অনেক ভাল। লোকজনের এত চাপ যে ঠিকমত ক্রেতাদের সাপ্লাই দিতেই পারছি না। ফুটপাতে কমদামে পছন্দসই নতুন মডেলের জুতা সেন্ডেল পাওয়া যায়। তাই হয়তো ক্রেতারা বেশি এখানে আসছেন। আমরাও বেশ ভাল আছি। কারণ প্রত্যাশার চেয়েও বেশি বেচাবিক্রি হচ্ছে।’ 

শিরিন আক্তার নামে এক ক্রেতা বলেন, ‘যে জিনিস এখানে ২৫০ টাকা মার্কেটে সেটাই ৫০০/৬০০ টাকা। তা হলে কেন আমি মার্কেটে গিয়ে বেশি টাকা খরচ করবো।’ 

ফুটপাতের দোকানিরা বলেন, ‘আমাদের এসি খরচ নেই, লাইট খরচ নেই, তাই আমরা কম দামে বিক্রি করছি। নিউমার্কেটে আর ফুটপাতের কাপড়ের মান একই, আমরা এক জায়গা থেকেই ক্রয় করি। ওরা এনে ঘরে তোলে, আর আমরা রাস্তায় বসি।’

এদিকে নিউ মার্কেটের পাশে চাঁদনি চক, গাউছিয়া, এলিফ্যান্ট রোড, চন্দ্রিমা এবং উচ্চবিত্ত ক্রেতাদের ইস্টার্ন প্লাজায় একই রকম ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ইস্টার্ন প্লাজায় প্রযুক্তিপণ্যের কদর বেশি হলেও অন্য মার্কেটগুলোতে বেশিরভাগ ক্রেতারা এসেছেন কাপড় কিনতে। রাজধানীর যেকোনও মার্কেটের তুলনায় এসব মার্কেটে পণ্যমূল্য অনেক কম বলেই ক্রেতাসাধারণ এখানে বেশি ঝুকছে।

এবার ফুটপাতে যেসব দোকান বসেছে সেখানে ছেলেদের শার্ট বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ থেকে ৫০০ টাকা, জিনস প্যান্ট ৩৫০ থেকে ৭৫০ টাকা, টি-শার্ট ২৫০ থেকে ৪০০, অপরদিকে মেয়েদের থ্রি-পিস ৪৫০ থেকে ১২০০, শাড়ি ৪৫০ থেকে ১০০০,বাচ্চা শিশুদের থ্রি-কোয়ার্টার জিনস প্যান্ট ৩০০ টাকা, গেঞ্জির সেট ২০০ থেকে ৫০০, ফ্রক ও টপস ২৫০ থেকে ৫০০, যেকোন ধরনের শাড়ি  ৫০০ থেকে ১৫০০ এবং ছেলে ও মেয়ে শিশুদের কাপড় ২০০ থেকে ৪০০ টাকায়।

তাই এই ঈদে সাধ্যের মধ্যে নতুন কাপড় কিনে নিতে ঢাকা ও ঢাকার বাইরে থেকেও অনেকেই ছুটে আসছেন নিউমার্কেটের ঈদবাজারে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ