fbpx
 

আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের বাসায় মূলহোতাদের খুঁজে পাওয়া যায়নি

Pub: Sunday, October 27, 2019 11:37 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

চলচ্চিত্র প্রযোজক ও ব্যবসায়ী আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের মালিকানাধীন গুলশান-২ এর ৫৭ নম্বর ১১/এ বাড়িটির দুইটি ফ্ল্যাটে ও ছাদে অভিযান পরিচালনা করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর। অভিযানে বিপুল পরিমাণে অবৈধ বিদেশি নামিদামি ব্র্যান্ডের মদ, গাঁজা, সিসা খাওয়ার সামগ্রী, ক্যাসিনো খেলার সামগ্রী জব্দ করা হয়। অভিযানে নবীন ও পারভেজ নামের দুজন কেয়ারটেকারকে আটক করা হয়। এছাড়া অভিযানে একটি মিনি বারের সন্ধানও পাওয়া যায়।

রবিবার (২৭ অক্টোবর) আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের বাড়িতে অভিযান শেষে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক মোহাম্মদ ফজলুর রহমান সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

তবে ঘণ্টাব্যাপী এ অভিযানে এসব অবৈধ জিনিসপত্রের মালিক বা মূলহোতা কে তা খুঁজে বের করতে পারেনি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর। এর সঙ্গে আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের পরিবারের কেউ সংশ্লিষ্ট কি-না তাও নিশ্চিত করতে পারেনি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর।

মোহাম্মদ ফজলুর রহমান জানান, আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের বাড়িটি দুইটি ভবনে বিভক্ত। একটি ভবনের চার তলার একটি ফ্ল্যাটে মদের গোডাউনের সন্ধান পাওয়া যায়। যেখানে প্রচুর পরিমাণে বিদেশি মদ ও সিসা খাওয়ার সামগ্রী পাওয়া যায়। এছাড়া ওপর ভবনটির চার তলা থেকে ১০ বোতল মদ এবং ভবনের ছাদে একটি মিনি বারের সন্ধান পাওয়া যায়। যেখানে সিসা সেবনসহ ক্যাসিনো খেলা হত। প্রচুর পরিমাণে মদ জব্দ হওয়া এগুলো এখন  গণনা করা হচ্ছে। গণনা শেষে সঠিক সংখ্যা জানানো হবে।

তিনি আরও জানান, মিনি মদের বারটির কোনো অনুমোদন ছিল না। এছাড়া এই বাড়িতে মদ সংরক্ষণ ও কেনাবেচারও কোনো অনুমোদন নেই। অভিযানে দুজনকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী তারা মদ কেনাবেচা করতো। তবে বিস্তারিত জানার জন্য তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

এসব অবৈধ মদ ও ক্যাসিনো খেলার সঙ্গে কারা সংশ্লিষ্ট এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের জানা মতো আজিজ মোহাম্মদ ভাই দীর্ঘ দিন ধরে বিদেশে থাকেন। তবে অভিযান চলা ফ্ল্যাটগুলোর মধ্যে একটিতে তার ভাতিজা ওমর মোহাম্মদ ভাই থাকতেন। তবে তিনি অভিযানের আগেই বাসা থেকে পালিয়ে যান। তাকে আটকের চেষ্টা আমরা করছি। তবে এর সঙ্গে আর কারা সংশ্লিষ্ট তা বের করার জন্য আমরা তদন্ত করছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা খোঁজখবর নিয়ে দেখছি যে এর সঙ্গে আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের কোনো সংশ্লিষ্টতা আছে কিনা। যদি থেকে থাকে অবশ্যই আমরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। তাদের আত্মীয়-স্বজনের যদি সংশ্লিষ্টতা থাকে তাহলেও আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

এই বাড়িটিতে এসব কার্যক্রম কত দিন ধরে চলছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমরা জিজ্ঞাসাবাদ করছি। তবে শুধুমাত্র সেবনের জন্য এখানে মদ সংগ্রহ করা হয়েছে বিষয়টি এমন নয়। এত মদ সেবনের জন্য কেউ সংরক্ষণ করে না।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ