হামলার প্রতিবাদে ইবি শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক অবরোধ

Pub: বুধবার, এপ্রিল ১০, ২০১৯ ৯:৫৩ অপরাহ্ণ   |   Upd: বুধবার, এপ্রিল ১০, ২০১৯ ৯:৫৩ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শিক্ষার্থীদের অতর্কিত হামলায় রক্তাক্ত হয়েছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) হ্যান্ডবল দলের খেলোয়াড়রা। এ হামলার খবর পেয়ে বিকেল ৬ টার দিকে কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করে ইবি শিক্ষার্থীরা।

দীর্ঘ দেড় ঘণ্টা অবরোধের পর সাধারণ মানুষের ভোগান্তির কথা বিবেচনা করে ২৪ ঘন্টার মধ্যে জাবি প্রশাসনের লিখিত ক্ষমা, ৫-১০ বছরের জন্য জাবিতে ইভেন্ট অব্যহতি ও বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশীপ-২০১৯ কলঙ্কিত করায় এর সাথে জড়িতদের বহিষ্কারের দাবি জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

বুধবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশীপ-২০১৯ এর জাবিতে অনুষ্ঠিত সেমিফাইনাল খেলায় ১৩-১০ গোলের সময় অতর্কিত হামলা চালায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এতে ইবি হ্যান্ডবল দলের খেলোয়াড় রাব্বি, ইমন, সৌরভ, শুভসহ আরো অনেকে গুরুতর আহত হয়েছে।

এছাড়াও ইবির শারীরিক শিক্ষা বিভাগের পরিচালক মোহাম্মদ এর নাক ফাটিয়ে দেয়া হয়েছে বলে জানান ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় এর শারীরিক শিক্ষা বিভাগের ডেপুটি পরিচালক। পরে তাদেরকে সাভারের এনাম মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।

এ খেলার সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন জানান, এর আগে বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটে যাওয়ার পর উভয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কথা বলেছিলেন, জাবি কর্তৃপক্ষ আমাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে বলে আশ্বস্ত করেছিল। তখন আমরা খেলাটা ওখানে দেই। আজকের ঘটনায় জাবি কর্তৃপক্ষ দুঃখ প্রকাশ করেছেন ও এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিবেন বলে জানিয়েছেন। আহতদের আমরা মেডিকেলে পর্যাপ্ত সেবা দিচ্ছি। পরবর্তীতে আমাদের কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী খেলার তারিখ নির্ধারণ করা হবে।

এ ব্যাপারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল- হাসান বলেন, পিস্তল ঠেকানোর হুমকি আসলে কে বা কারা দিয়েছে তা আমরা জানতাম না, সেটা মাঠের বাহিরে ছিল। আজকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা যথেষ্ট নিশ্চিত ছিল, অনাকাঙ্খিতভাবে খুব অল্প সময়েই দর্শকরা মাঠে ডুকে যায়। পুরো খেলার ভিডিও আছে তা দেখে যারা এই অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করবো।

এ ব্যাপারে ইবি উপাচার্য ড. রাশিদ আসকারী বলেন, খেলার মাঠে এটি একটি বর্বর মামলা। এই হামলার নিন্দা জানানোর ভাষা আমার জানা নেই। আমি বিচার চেয়েছি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে। তিনি আমাকে আশ্বস্ত করেছেন। তারা যদি যথাযথ বিচার না করে আমরা বিচার চেয়েছি ইউজিসি, শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং অ্যাসোসিয়েশন অব ইউনিভার্সিটির কাছে। জাহাঙ্গীরনগরে ইবি আর কখনও খেলতে যাবেনা। খেলার পরিবেশ নিশ্চিত করতে কর্তৃপক্ষ সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ

সংবাদটি পড়া হয়েছে 1067 বার