এক নজরে রাজশাহীর নির্বাচনী মাঠ

Pub: শনিবার, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৮ ৭:৪৩ অপরাহ্ণ   |   Upd: শনিবার, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৮ ৭:৪৩ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

রাজশাহী প্রতিনিধি:
বরেন্দ্র ভূমির জেলা রাজশাহী। পদ্মা পাড়ের এই জেলাকে উত্তরাঞ্চলের প্রাণকেন্দ্র বলা হয়। রাজশাহী মহানগরসহ নয়টি উপজেলা নিয়ে গঠিত এই জেলা। এখানে রয়েছে একটি সিটি করপোরেশন, ১৪টি পৌরসভা ও ৭২টি ইউনিয়ন। আর সংসদীয় আসন সংখ্যা ছয়টি।

রাজশাহীতে মোট ভোটার রয়েছে ১৯ লাখ ৪২ হাজার ৫৬২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯ লাখ ৬৭ হাজার ৭১০ এবং নারী ভোটার ৯ লাখ ৭৪ হাজার ৮৫২ জন। এ জেলায় এবার নতুন ভোটার ১ লাখ ৯৯ হাজার ৯০৫ জন। আর ভোট কেন্দ্র ৬৯৫টি। মোট ভোট কক্ষ ৪ হাজার ১৩৪।
শনিবার (২৯ ডিসম্বর) সকাল থেকে বেলা ৩ টার মধ্যেই কেন্দ্রে কেন্দ্রের ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনী সামগ্রী পৌছে গেছে।

রাজশাহীর ছয়টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ২৫ জন প্রার্থী। এর মধ্যে রাজশাহী-১ আসনে চারজন, রাজশাহী-২ আসনে চারজন, রাজশাহী-৩ আসনে পাঁচজন, রাজশাহী-৪ আসনে চারজন, রাজশাহী-৫ আসনে পাঁচজন ও রাজশাহী-৬ আসনে তিনজন। এর মধ্যে পাঁচটি আসনে নৌকা ও ধানের শীষের প্রার্থী রয়েছে। শুধু রাজশাহী-৬ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী শূন্য রয়েছে।

শনিবার (২৯ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজশাহী-২ আসনে নির্বাচনী সামগ্রী বিতরণ উদ্বোধনকালে রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, ‘রাজশাহীর ছয়টি আসনের ৬৯৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৩৮৯টি গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ন) হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ ভোট কেন্দ্রগুলোতে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘সকাল থেকে ভোট কেন্দ্রগুলোতে ব্যালটসহ নির্বাচনী সামগ্রী পাঠানো শুরু হয়েছে। বিকেলের মধ্যে সব ভোট কেন্দ্রে সেগুলো পৌঁছে যাবে।’

ভোটারদের উদেশ্যে রিটানিং কর্মকর্তা বলেন, ‘আপনারা (ভোটার) নির্বিগ্নে ভোট কেন্দ্রে যাবেন এবং ভোট দিয়ে নিরাপদে ফিরে যাবেন। ভোট গ্রহনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।’

এদিকে, সকাল থেকে রাজশাহীতে টহল পরিচালনা করে সেনাবাহিনীসহ আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা। বিভিন্ন পয়েন্টে চেক পোষ্ট বসিয়ে তল্লাশী চালায় পুলিশ ও র‌্যাব।

র‌্যাব-৫ এর কোম্পানী কমান্ডার লে: কর্নেল নুর মোহাম্মদ বলেন, ‘ভোটাররা নির্বিগ্নে ভোট কেন্দ্র যেতে পারেন এবং ভোট দিয়ে নিরাপদে বাড়ি ফিরতে পারেন আমরা সে ব্যবস্থা করেছি।’ সবাইকে নির্ভয়ে ভোট কেন্দ্র যাওয়ার কথা ভোটোরদের উদ্দেশ্যে বলেন এই র‌্যাব কর্মকর্তা।

রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর): গোদাগাড়ী ও তানোর উপজেলা নিয়ে রাজশাহী-১ আসন। এ আসনে মোট ভোট কেন্দ্র ১৪৫টি। এর মধ্যে গোদাগাড়ীতে ৯৪টি এবং তানোরে ৫১টি। এ আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ৮৩ হাজার ৩৫২ জন। এর মধ্যে নারী ১ লাখ ৯২ হাজার ৭২৩ ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৯০ হাজার ৬২৯ জন। এ আসনের গোদাগাড়ী উপজেলায় মোট ভোটার ২ লাখ ৩৮ হাজার ৩৪। আর তানোরে ১ লাখ ৪৫ হাজার ৩১৮ জন।

এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, আওয়ামী লীগের ওমর ফারুক চৌধুরী, বিএনপির ব্যারিস্টার আমিনুল হক, ইসলামী আন্দোলনের আব্দুল মান্নান ও বাসদের আলফাজ হোসেন। এদের মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে ওমর ফারুক চৌধুরীর নৌকা প্রতীক ও ব্যারিস্টার আমিনুল হকের ধনের শীষের মধ্যে।

রাজশাহী-২ (সদর): সিটি করপোরেশন নিয়ে গঠিত রাজশাহী-২ আসন। এ আসনে মোট ভোট কেন্দ্র ১০৪টি। এখানে মোট ভোটার ৩ লাখ ১৭ হাজার ৮৫২ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৬১ হাজার ৯৪৫ ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৫ হাজার ৯০৭ জন।

এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের প্রার্থী ফজলে হোসেন বাদশা, বিএনপির মিজানুর রহমান মিনু, ইসলামী আন্দোলনের ফয়সাল হোসেন, সিপিবির এনামুল হক। এদের মধ্যে মূল প্রতিদন্দ্বিতা হবে ফজলে হোসেন বাদশার নৌকা প্রতিক ও মিজানুর রহমান মিনুর ধানের শীষের মধ্যে।

রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর): পবা ও মোহনপুর উপজেলা নিয়ে রাজশাহী-৩ আসন। এ আসনে মোট ভোট কেন্দ্র ১২০টি। এর মধ্যে পবায় ৭৬টি ও মোহনপুরে ৪৪টি। এ আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৩৭৫ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৭৮ হাজার ৯৪০ ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৭৮ হাজার ৪৩৫ জন। এ আসনের পবা উপজেলায় ভোটার ২ লাখ ২৮ হাজার ১২৭ জন। আর মোহনপুরে ১ লাখ ২৯ হাজার ২৪৮।

এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, আওয়ামী লীগের আয়েন উদ্দিন এমপি, বিএনপির শফিকুল হক মিলন, ইসলামী আন্দোলনের ফজলুর রহমান, যুক্তফ্রন্ট (এলডিপি) এর মনিরুজ্জামান ও সাম্যবাদী দল এমএলএল এর সাজ্জাদ আলী। এদের মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে আয়েন উদ্দিনের নৌকা প্রতীক ও শফিকুল হক মিলনের ধানের শীষের মধ্যে।

রাজশাহী-৪ (বাগমারা) : বাগমারা উপজেলা নিয়ে রাজশাহী-৪ আসন। এ আসনে মোট ভোট কেন্দ্র ১০৬টি। এখানে মোট ভোটার ২ লাখ ৭৮ হাজার ৮ জন। তাদের মধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৩৯ হাজার ২৯৭ জন ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৩৮ হাজার ৭১১ জন।

এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, আওয়ামী লীগের এনামুল হক, বিএনপির আবু হেনা, ইসলামী আন্দোলনের তাজুল ইসলাম খান ও সরদার সিরাজুল করিম এবল। এদের মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে এনামুল হকের নৌকা প্রতীক ও আবু হেনার ধানের শীষের মধ্যে।

রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর): পুঠিয়া ও দুর্গাপুর উপজেলা নিয়ে রাজশাহী-৫ আসন। এ আসনে মোট ভোট কেন্দ্র ১১৩টি। এর মধ্যে দুর্গাপুরে ৫৩টি ও পুঠিয়ায় ৬০টি। এখানে মোট ভোটার ৩ লাখ ১ হাজার ৬৭৭ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৫০ হাজার ২৫০ ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫১ হাজার ৪২৭ জন। এ আসনের পুঠিয়া উপজেলার ভোটার ১ লাখ ৬০ হাজার ৫৭২। আর দুর্গাপুরে ১ লাখ ৪১ হাজার ১০৫ জন।

এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, আওয়ামী লীগের ডা: মনসুর রহমান, বিএনপির অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, জাতীয় পার্টির আবুল হোসেন, ইসলামী আন্দোলনের রুহুল আমিন ও জাকের পার্টির শফিকুল ইসলাম। এর মধ্যে মূল প্রতিদন্দ্বিতা হবে ডা: মনসুর রহমানের নৌকা প্রতীক ও অধ্যাপক নজরুল ইসলামের ধানের শীষের মধ্যে।

রাজশাহী-৬ (চারঘাট-বাঘা): চারঘাট ও বাঘা উপজেলা নিয়ে রাজশাহী-৬ আসন। এ আসনে মোট ভোটকেন্দ্র ১০৭টি। এর মধ্যে চারঘাটে ৫২টি ও বাঘায় ৫৫টি। এখানে মোট ভোটার ৩ লাখ ৪ হাজার ২৯৮ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৫১ হাজার ৬৯৭ জন ও পুরুষ ভোটার ১৫২ হাজার ৬০১ জন। এ আসনের চারঘাট উপজেলায় ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৫৯ হাজার ৭২৫ জন। আর বাঘায় ১ লাখ ৪৪ হাজার ৫৭৩।

এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, আওয়ামী লীগের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, ইসলামী আন্দোলনের আব্দুস সালাম সুরুজ ও জাতীয় পার্টির ইকবাল হোসেন। এ আসনে বিএনপির প্রার্থী নেই। ফলে এ আসনে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে শাহরিয়ার আলমের নৌকা ও আব্দুস সালাম সুরুজের হাতপাখার মধ্যে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ

সংবাদটি পড়া হয়েছে 1095 বার