গ্রীস যাওয়ার পথে সিলেটের ফয়ছলের মৃত্যু

Pub: Thursday, February 13, 2020 3:03 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

তুরস্ক থেকে গ্রীস যাওয়ার পথে আকষ্মিক মৃত্যুর কুলে ঢলে পড়েন এনামুল এহসান জায়গীরদার ফয়ছল (৩০)। তিনি সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার বোয়ালজুড় ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের মহুদ আহমদ জায়গীরদারের ছেলে। তিন ভাই এক বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন দ্বিতীয়।

মারা যাওয়ার ৬দিন পর অনেক চেষ্টা করে ১২ফেব্রুয়ারি গ্রীসের সীমানার কাছাকাছি পাহাড়ি এলাকায় বরফের তল থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করে গ্রীসে বাংলাদেশের হাইকমিশনার জসীম উদ্দিন গণমাধ্যমকে জানান মরদেহ দেশে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

ফয়ছলের ছোট ভাই রুজেল আহমদ জানান, দালালের প্ররোচনায় ফয়সলসহ কয়েকজন তুর্কী থেকে গ্রীসে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। দালাল তাদের সাথে চুক্তি করে কয়েকবার চেষ্টা করেও গ্রীসে পৌঁছাতে পারেনি। সর্বশেষ ৪ ফেব্রুয়ারি ফয়ছলসহ কয়েকজন গ্রীসের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। জঙ্গল এলাকা পাড়ি দিয়ে তুর্কী থেকে গ্রীসের সীমানায় প্রবেশের পর ৭ ফেব্রুয়ারি ভোরের দিকে গাড়িতে প্রায় আধা ঘণ্টা পথ পাড়ি দিয়ে একটি নির্জন স্থানে ফয়ছলসহ তার সাথে থাকা ৫ জনকে নামিয়ে দেয়া হয়।

অনাহারে দুর্গম পথ পাড়ি দেয়ায় খুবই ক্লান্ত ছিলেন তারা। সেখানে অপেক্ষমান অবস্থায় গ্রীসের সময় অনুমানিক বেলা একটা থেকে দুইটার মধ্যে ফয়ছল আকষ্মিক ভাবে অজ্ঞান হয়ে যান। কিছুক্ষণ পর জ্ঞান ফিরলে কিছু খেতে চান কিন্তু তাদের সাথে কোনো খাবার না থাকায় মৃত্যুর কুলে ঢলে পড়েন তিনি।

ধারণা করা হচ্ছে তুষার পাহাড়ে অতিরিক্ত ঠান্ডার কারণে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা যান। সঙ্গীরা মুঠোফোনে ফয়ছলের মৃত দেহের ছবি এবং ওই স্থানটির ছবি তুলেন। এসময় দালালের লোকজন সেখানে গিয়ে ফয়ছলের লাশ ফেলে রেখে তার সঙ্গীদের ভয় দেখিয়ে সেখান থেকে সরিয়ে নিয়ে যায়। এরপর থেকে গ্রীসের দালাল লাপাত্তা হয়ে যাওয়ায় ওই স্থানটি চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বেশ কয়েক বছর আগে ভিসা নিয়ে তিনি ওমান যান। তার বড় ভাই আলীমুল হাসানও সেখানে থাকেন। ওমান থাকাবস্থায় কয়েকবার দেশে আসা-যাওয়া করেছেন। মাস ছয়েক পূর্বে তিনি ওমান থেকে ইরাক হয়ে তুর্কী যান। সেখান থেকে তিনি নিয়মিত পরিবারের সাথে যোগাযোগ করতেন। সর্বশেষ ৪ ফেব্রুয়ারি পরিবারের সদস্যদের কাছে ফোন দিয়ে দোয়া চান তিনি। এরপর পর থেকে নিখোঁজ তিনি ছিলেন।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি ফয়ছলের সফর সঙ্গী ওই যুবক ফয়ছলের বাড়িতে মৃত্যুর সংবাদটি জানিয়ে মৃত দেহের ছবি পাঠান। সেই ছবি ভাইরাল হলে দুতাবাসের সহযোগীতায় ওই স্থানটি চিহ্নিত করে বরফের তল থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ