লেসথোতে বাংলাদেশি নারী উদ্যোক্তা

Pub: মঙ্গলবার, আগস্ট ২৮, ২০১৮ ১০:৪২ অপরাহ্ণ   |   Upd: মঙ্গলবার, আগস্ট ২৮, ২০১৮ ১০:৪২ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

হাসান মাসুম, লেসথো:
লেসথোতে বিগত চল্লিশ বছর ধরে অভিবাসনের অভিপ্রায়ে আসছেন বাংলাদেশিরা। এদের অধিকাংশই অবৈধ পথে আফ্রিকার অন্যান্য দেশ ঘুরে লেসথো এসে থিতু হয়েছেন। এর কারণ অন্যান্য আফ্রিকান দেশের তুলনায় লেসথোর স্থানীয় জনগণ অধিক শান্তিপ্রিয়। আপাতত এখানে স্থানীয় যুদ্ধবিগ্রহ নেই, অভিবাসীদেরকে এরা বিরক্ত করেন না।

বাংলাদেশি অভিবাসীরা লেসথো এসে প্রথমে বিভিন্ন দোকানে চাকরি নেন, বছর পাঁচেক পরে তারা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে নিজেরাই ব্যবসা আরম্ভ করেন। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশিরা কাপড়ের দোকান, মোবাইল ফোন মেরামত ও ফোনের যন্ত্রাংশ বিক্রয়, আসবাব-পত্র, কম্বল, টেলিভিশন সেট, মাঝারি আকারের মুদি দোকান করে চাইনিজ, ভারতীয় ও পাকিস্তানি ব্যবসায়ীদের সাথে প্রতিযোগিতা করে টিকে আছেন।

ওষুধ ব্যবসায় এ পর্যন্ত কোন বাংলাদেশি এগিয়ে আসেননি। ওষুধ ব্যবসায় লেসথোতে যে বাংলাদেশি নারী অগ্রণী ভূমিকা রাখতে এগিয়ে এসেছেন, তার নাম জান্নাতুল ফেরদৌস গোলাপ।

২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে একজন জিম্বাবুয়ের ডাক্তারের সাথে যৌথ উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন ওষুধ বিক্রয় প্রতিষ্ঠান এ-এফ-ফারম। গোলাপ তার স্বামীর সাথে ২০০৮ সালে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন, তার স্বামী সাইদি শাহজাহানের সাথে বৈবাহিক সূত্রে রাজশাহী থেকে লেসথো আসেন, সাঈদি এখানে একটি হাসপাতালে রেডিওগ্রাফার হিসেবে কর্মরত।

সাংসারিক জীবনে গোলাপ দুই সন্তানের মা। গোলাপ পেশায় একজন ডিপ্লোমা সিভিল ইঞ্জিনিয়ার। কিন্তু লেসথো এসে কর্মসংস্থানের যথাযথ সুযোগ না হওয়ায় এতদিন গৃহিনী হিসেবে দিনপাত করছিলেন। হঠাৎ গোলাপ ভাবলেন লেসথোতে একটি ওষুধের ব্যবসা আরম্ভ করা যায় কিনা।

তিনি তার স্বামীর সাথে কথা বলে একজন জিম্বাবুয়ে ডাক্তারের সাথে যৌথ বিনিয়োগে গড়ে তুললেন এ-এফ-ফার্ম।এখন তিনি নিয়মিত ব্যবসা পরিচালনা করছেন এবং লেসথোতে বেশ সুনাম অর্জন করেছেন।

গোলাপ স্বপ্ন দেখেন একদিন বাংলাদেশের বিভিন্ন বড় বড় ওষুধ কারখানা থেকে লেসথোতে ওষুধ আমদানি করতে সক্ষম হবেন তিনি।

তিনি বলেন, বাংলদেশি যুবক-যুবতীদের লেসথোতে নিয়ে এসে তাদের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেবেন ভবিষ্যতে। ইতিমধ্যে রাজশাহী ও নওগাঁ থেকে দুজন যুবককে লেসথো নিয়ে এসে তাদের কর্মসংস্থান করে দিয়েছেন নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ