fbpx
 

সন্ধ্যার পর ‘বুলবুল’ আঘাত হানতে পারে!

Pub: Saturday, November 9, 2019 6:04 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বঙ্গোপোসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আরও উত্তর দিকে অগ্রসর হয়েছে। এর প্রভাবে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরসহ ৯ উপকূলীয় জেলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখানো হচ্ছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই সতর্কতা জারি থাকবে। শনিবার (৮ নভেম্বর) রাত ৮টা নাগাদ এটি সুন্দরবনের পাশ দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ ও খুলনা উপকূলে আঘাত হানতে পরে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ড. এনামুর রহমান। 

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল দেশের উপকূলীয় ৯ জেলায় আঘাত হানতে পারে বলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও মন্ত্রণালয়ের বৈঠক শেষে এ তথ্য জানানো হয়।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান জানান, ঘূর্ণিঝড়টি মোংলা বন্দর থেকে ২৮০ কিলোমিটারের মধ্যে চলে এসেছে। এটি এখন ১৫/২০ কিলোমিটার গতিতে এগুচ্ছে। আঘাত হানার সময় ঝড়ের গতি গতি বেগ হতে পারে ১৪০ থেকে ১৫০ কিলোমিটার। তাতে ধারণা করা হচ্ছে রাত ৮টা থেকে মধ্যরাতের মধ্যে ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানতে পারে। 

বৈঠকে জানানো হয়, ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলো ১০ নম্বর সতর্কতার আওতায় রয়েছে।

প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্য

বরিশাল: বরিশালে ব্যাপক প্রচার চালানোর পরও ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার অনেকের মধ্যে আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিতে অনীহা দেখা গেছে। এজন্য শনিবার বেলা দুইটার মধ্যে লোকজন ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্রে স্বেচ্ছায় না গেলে তাদের জোর করে নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী। ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবিলায় এক জরুরি সভায় তিনি এ নির্দেশ দেন।

ভোলা: ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবিলায় ভোলায় ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। জেলার সবখানে রাস্তায় বেদিবাঁধে স্বেচ্ছাসেবকদের প্রচার-প্রচারণা ও মাইকিং চলছে। চরাঞ্চলের লোকদের কাছে আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়া হচ্ছে। শুরুতে অনেকে আশ্রয়কেন্দ্রে আসতে না চাইলেও ১০ নম্বর বিপদ সংকেত ঘোষণার পর লোকজন আশ্রয়কেন্দ্রে আসতে শুরু করেছে। বুলবুল মোকাবিলায় জেলায় ৬৬৮টি আশ্রয়কেন্দ্র ও ১২ হাজার স্বেচ্ছাসেবী প্রস্তুত রয়েছে।

বরগুনা: ১০ নম্বর বিপদ সংকেত ঘোষণার পরপরই আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন জেলার বসবাসকারী লোকজন। ঘূর্ণিঝরে আঘাত হানার ঝুঁকিতে রয়েছেন জেলার ছয়টি উপজেলার দুইলাখ মানুষ। জনসাধারণকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি সংগঠনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর: ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের জন্য ১০ নম্বর সতর্ক সংকেত জারি করা হলেও  আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে মানুষের সমাগম বাড়েনি। মেঘনা নদী সংলগ্ন রামগতি ও কমলনগর উপজেলায় ১০০টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হচ্ছে। শনিবার দুপুর থেকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হয়েছে। জেলার বিভিন্ন চরাঞ্চলে লোকজন আনার জন্য ট্রলার পাঠানো হয়েছে। 

খুলনা: খুলনায় ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’এর প্রভাবে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হচ্ছে। শনিবার ভোর থেকে আকাশ পুরো মেঘে ঢাকা। সেই সঙ্গে মাঝে মাঝে দমকা ও ঝড়ো হাওয়া বইছে।এরই মধ্যে খুলনায় ৩৪৯টি সাইক্লোন শেল্টার ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার লোকজনের জন্য খুলে রাখা হয়েছে। মাইকিং করে আজ দুপুর ২টার মধ্যে উপকূলীয় মানুষদের নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য বলা হচ্ছে।  

এ ব্যাপারে খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন জানিয়েছেন, ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার লোকজনকে আশ্রয় কেন্দ্রে পাঠানোর জন্য উপজেলা প্রশাসন এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা চেষ্টা করছেন বলে জানান তিনি।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ