সৈয়দা ইকবালমান্দ বানুর সাফল্যের মুকুটে যোগ হলো আরো একটি নতুন পালক

Pub: মঙ্গলবার, জুন ৪, ২০১৯ ২:৪৭ পূর্বাহ্ণ   |   Upd: মঙ্গলবার, জুন ৪, ২০১৯ ২:৪৭ পূর্বাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাবার স্বপ্নপুরন করতেই, ৭৮ বছর বয়সে তিনি ‘Painting in China from the Tang Dynasty to the Present Day’ বিষয়ে ডিগ্রি অর্জন করলেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে । উক্ত কোর্সে তিনি বাংলাদেশের প্রথম ও একমাত্র ছাত্রী হিসাবে সাফল্যের সাথে অংশগ্রহণ করেন ।

ইকবালমান্দ বানু বাংলাদেশের অন্যতম একজন শিক্ষানুরাগী, সমাজসেবী, শিল্পী, সাহিত্যিক, সঙ্গীতপ্রেমী । তাঁর বাবা সৈয়দ নুরুল আবসার ছিলেন নারী শিক্ষার অন্যতম পথিকৃৎ । বাবার কাছেই ছোট্ট বানুর ছবি আকার হাতেখড়ি । বাবা আদর করে ডাকতেন গুলু নামে । পাঁচবছর বয়সেই তার হাতে তুলে দিয়েছিলেন রঙ আর তুলি । কচি হাতে রঙতুলি দিয়ে ইকবালমান্দ বানু তখণ থেকেই শুরু করেন আকাবুকি । প্রকৃতির ঋতু বদলের নানা রঙে তিনি মুগ্ধ হতেন । নীল আকাশে ডানা মেলে উড়ে যাওয়া পাখি কিংবা রঙ্গিন প্রজাপতির রঙ তাকে দারুণ ভাবে আকৃষ্ট করতো । তিনি রঙ তুলির ছোঁয়ায় সেই প্রকৃতিকে ফুটিয়ে তুলতেন । বাবা বলতেন আমার স্বপ্ন তুমি একদিন অনেক বড় শিল্পী হবে । তোমাকে বিলেতের অক্সফোর্ডে পড়াশুনা করতে হবে । কিন্তু ছয় বছর বয়সেই বাবাকে হারান ছোট্ট গুলু । কিন্তু তিনি থেমে থাকেননি । পড়াশুনার পাশাপাশি তার শিল্পচর্চা চালিয়ে যান । ছবি আকার পাশাপাশি তিনি নাচ, কবিতা আবৃত্তি আর সঙ্গীত চর্চা করেন । বড় হয়ে বাবার ইচ্ছে পূরণে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন ফাইন আর্টসে । এরই মাঝে ১৯৬০ সালে বিয়ে হয় জনাব মাহবুব আলী খানের সঙ্গে । তিনিও নারী শিক্ষা প্রসারে বিশেষ ভূমিকা রাখেন । বিয়ের পর স্বামীর আগ্রহে পড়াশুনা চালিয়ে যান ইকবালমান্দ বানু । পাশাপাশি বিএ পাস কোর্সে তিনি সম্মিলিত মেধা তালিকায় স্থান করে নেন । সন্তান জন্মের পরে তিনি ইংলিশে অনার্স এবং ইসলামীক ইতিহাসে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে । সৈয়দা ইকবালমান্দ বানু অন্তরালে থেকে নিরলস ভাবে দেশ ও দেশের মানুষের জন্য প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছেন । প্রচার বিমুখ এই নারী নিজের পুরোটা জীবন উৎসর্গ করেছেন সমাজের অসহায়, অবহেলিত, নিগৃহীত মানুষের জন্য । উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া নিজের সম্পদকে ভোগ বিলাসে ব্যয় না করে, নিঃস্বার্থ ভাবে দান করেছেন দরিদ্র, অবলম্বনহীন মানুষের জন্য । গড়ে তুলেছেন ‘সুরভী’ নামক প্রতিষ্ঠান । যার মাধ্যমে সমাজের ছিন্নমূল শিশুদের শিক্ষা দেবার পাশাপাশি গড়ে তোলা হচ্ছে একেকজন দক্ষ কর্মক্ষম মানুষ হিসাবে ।

তাঁকে ‘বাংলাদেশের মাদার তেরেসা’ নামে ডাকা হয় । বাংলাদেশের সমাজ সেবায় বিশেষ অবদান রাখার জন্য ১৯৯৫ সালে তিনি স্বাধীনতা পদক লাভ করেন সৈয়দা ইকবালমান্দ বানু।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ