fbpx
 

একজন অগ্নি কন্যার কাহিনী

Pub: Tuesday, October 22, 2019 8:17 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এম এ গাফ্ফার রিপন
রাজপথই যার ঠিকানা-স্লোগানই যার ভাষা-প্রতিবাদই যার কন্ঠস্বর-আজকে বলবো সেই অঞ্জনা আলম এর কথা-

মিছিল-মিটিং-সভা-সেমিনার-মানববন্ধন-কোথায় নেই ওনি?আমার দেখা যুক্তরাজ্যে যতো প্রোগ্রাম আছে সব কটাতেই ওনার সরব উপস্থিতি লক্ষনীয়-একজন জিয়ার আদর্শের প্রকৃত সৈনিক-জিয়া পরিবারের আস্থা ভাজন হিসাবেই সব মহলে যার পরিচয়-একজন বয়স্ক মহিলা মানুষ হওয়া স্বত্বেও এতোটা লম্বা সময় ধরে দলের জন্য সার্ভিস দিতে আমি আর কাউকে দেখিনি-সেই কিশোরী বয়স থেকে শুরু করে আজ অবদি চলছে তো চলছেই-এরশাদ বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু আজ পর্যন্তো ক্লান্তি তাকে ছুতে পারেনি-আমার মনে হয় অঞ্জনা আলম নামক দেহটার কাছে আমেরিকার তৈরি ভালো ভালো”টপার”মেসিন গুলোও হার মানবে-এতোটা নীরলস আর এতোটা পরিশ্রমী নেত্রীকে আমি জাষ্ট তুলনা করবো বিএনপির সম্পদ হিসাবে-ওনি বাংলাদেশে থাকতে যেমনটা একটিভ ছিলেন যুক্তরাজ্যেও ঠিক তেমটাই একটিভ আছেন কোন কোন ক্ষেত্রে আমার মনে হয় বয়সের কাছে হার না মেনে ওনার কর্ম দক্ষতা আগের চাইতেও বর্তমানে ঢের বেড়ে গেছে-

বাংলাদেশে ওনি বিএনপির যতো গুলো নির্বাচনী প্রচারে কাজে অংশ নিয়েছেন প্রত্যেকটা কাজে নিরলস প্রচেষ্টা ফুটে উঠেছে-একজন সচ্ছল পরিবারের সন্তান হয়েও সুধু মাত্র বিএনপির পক্ষে ভোট চাওয়ার জন্য ওনি বস্তির ঝুপরি ঘরেও ঢুকে পরতেন এবং বস্তির লোকদের হাতে লিফলেট বিতরন করে ধানের শীষের পক্ষে ভোট চাইতেন-কি রোদ আর কি বৃষ্টি সমান তালে কাজ করে যেতেন দলের অন্য সব মহিলা নেত্রীদের নিয়ে-দলের প্রতি ওনার কাজের প্রমান স্বরুপ এখানে সামান্য কিছু ছবি দেওয়া আছে তা দেখলেই আপনারা বুজতে পারবেন যে ওনি সেই কোন আমল থেকে কতটা পরিশ্রম করে আসছেন-সত্যি বলতে কি ওনার কাজের প্রসংশা বা বিস্তারিত লিখতে গেলে আমার মতো লেখক অতি নগন্য-ফেসবুকের দুই চারটা স্টাটাসে সেগুলা লেখা সম্ভব না-তার পরেও বিবেকের তারনায় লিখতে হয়-দলের প্রতি ওনার টোটাল কার্যক্রম লিখতে গেলে ইয়া মোটা মোটা পাঁচ সাতটা বইতেও কুলাবে না-

যাই হোক আমাদের দল এবং হাই কমান্ডের একটা দূর্নাম আছে হাই কমান্ড কখনোই প্রকৃত পরিশ্রমীদের সঠিক মূল্যায়ন করে না-স্বজনপ্রিতি এবং নগ্ন গ্রুপিং করে নিজেদের বেল্টের লোকদের নেত্রীত্বে বসিয়ে দেয় আর তার প্রভাব পরে রাজপথের আন্দোলন সংগ্রামে-গত তেরো বছর ধরে আমরা দেখেছি সেই ব্যার্থতা..তো জোরালো ভাষায় হাই কমান্ডকে একটা কথাই বলতে চাই অতিতের ন্যায় অযোগ্য নেত্রীত্বকে তৃনমুল আর মেনে নিবে না..নতুন পুরাতনের সংমিশ্রনে কমিটি করে পুরাতন এবং অভিজ্ঞ্য যারা আছেন তাদের যথাযত মুল্যায়ন করুন..
সে ক্ষেত্রে অতিত অভিজ্ঞতা পুরাতন এবং পরিশ্রমী হিসাবে”অঞ্জনা আলম”এর বিকল্প আমরা আর কাউকে দেখিনা-

–অঞ্জনা আলম আপাকে যথাযত মুল্যায়ন করা হোক এবং তাকে আগামীতে যুক্তরাজ্য মহিলা দলের সভানেত্রী করা হোক-আমরা অঞ্জনা আলম ব্যাথিত অন্য নেত্রীত্ব কোন ভাবেই মেনে নিবো না…
অঞ্জনা আপা স্যালুট তোমায় এগিয়ে যাও বীরদর্পে

দলের তৃনমুল তোমার সাথে আছে…

আমাদের বিশ্বাস তারুন্যের অহংকার আগামীর রাষ্ট্র নায়ক “তারেক রহমান” কখনোই পরিশ্রমীদের অবমূল্যায়ন করে না..আপা তুমিই হবে আগামীতে যুক্তরাজ্য মহিলা দলের সভানেত্রী.শুভ কামনা রইলো..

এম এ গাফ্ফার রিপনের ফেইসবুক থেকে


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ