fbpx
 

ধর্মের কল বাতাসে নড়ে

Pub: বুধবার, মার্চ ১১, ২০২০ ৩:০০ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সাম্প্রতিককালের সবচেয়ে বড় দুশ্চিন্তা ও উদ্বেগ হচ্ছে যুগের পর যুগ ধরে যে দুর্নীতি বাংলাদেশের আর্থসামাজিক ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে বিদ্যমান ছিল, গত এক দশকে, বহুলাংশেই সরকারের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ পৃষ্ঠপোষকতায় সে দুর্নীতি জ্যামিতিক হারে বিশালত্ব লাভ করেছে। শুধু আর্থিক দুর্নীতি নয়, বাংলাদেশের সামাজিক নৈতিকতা, শিক্ষা ক্ষেত্রের নৈতিকতা এমনকি ধর্মীয় অঙ্গনের নৈতিকতা ও মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, যার জন্য গত ১২ বছরের শাসনই মূলত দায়ী। ভৌত কাঠামোমূলক উন্নয়ন হলেও অর্থনীতির ভিত্তি দুর্বল হচ্ছে। শেয়ার মার্কেটের কর্মকাণ্ড, ব্যাংকগুলোর অবস্থা, নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান যথা লিজিং কোম্পানি বা ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানিগুলোর অবস্থা, ইত্যাদি কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করলে অর্থনীতির অবস্থা বোঝা যায়।

সমাজে ধর্ষণ-প্রবণতা, গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বৃদ্ধি পেয়েছে, নারীর প্রতি সহিংসতা বৃদ্ধি পেয়েছে। বিভিন্ন দেশের সাথে সম্পর্কের ক্ষেত্রে, এক ধরনের মারাত্মক ভারসাম্যহীনতা গত ১২ বছরে সৃষ্টি হয়েছে। মাথাপিছু বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ভারসাম্যহীনভাবে বেড়েছে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি এবং ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের পার্লামেন্ট নির্বাচনগুলো যেহেতু চরম অনৈতিকতার ওপর দণ্ডায়মান এবং জনগণের অনুভূতির প্রতি বিদ্রƒপ স্বরূপ, তাই বর্তমান রাজনৈতিক সরকার কোনো কিছুই নৈতিক সাহস নিয়ে করতে পারেনি এবং পারছে না। ‘ধর্মের কল বাতাসে নড়ে’ বলে একটি কথা আছে। এই কথাকে সত্য প্রমাণ করেই সম্রাট, এনাম, রূপম, পাপিয়া, প্রশান্ত হালদার প্রমুখের বিষয় জনগণের দৃষ্টিতে আসছে এবং আরো আসবে।

পাঁচ-ছয় মাস আগে মনে করেছিলাম, পরিস্থিতির উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী সিরিয়াস ও আগ্রহী। কিন্তু সেই আশায় খুব সম্ভবত গুড়েবালি। বিশেষভাবে বলতে গেলে বিগত ২০১৯ সালের ১৫ সেপ্টেম্বরের পর থেকে দেশের পরিস্থিতি, পাঠক সমাজের কাছে পরিচিত। দুর্নীতি, লাম্পট্য ও ক্ষমতার অপব্যবহার, অবৈধভাবে টাকা কামানোর ও সম্পদ বাড়ানো এবং বিদেশে টাকা পাচারের কাহিনীগুলো উঠে আসছে এবং এসব খলনায়ক ক্ষমতাসীন দলের। এসব দুর্নীতির আবিষ্কার, শিলাখণ্ডের সর্বোচ্চ ভাগে হাত দেয়ার চেয়েও কম; কারণ ব্যাপকভাবে স্বীকৃত ও আলোচিত কোনো দুর্নীতির বিচার করার প্রবণতা এই সরকার আজ অবধি দেখায়নি।

একাধিক চটকদার কর্মকাণ্ড ও বক্তব্যের মাধ্যমে, গত ১২ বছর যাবত নিপীড়িত, নির্যাতিত সাধারণ মানুষের মনে, নেত্রী ও শাসক দলের প্রতি সহানুভূতি সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে, কিন্তু উল্লেখযোগ্য কোনো সাফল্য আসেনি। রাজনীতির অঙ্গনে গত ১১ বছর ধরে শাসক দল কঠোর সংগ্রাম করছে প্রধান বিরোধীশিবিরকে রাজনৈতিকভাবে মার্জিনালাইজড করতে।

আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী এবং সরকারপ্রধানের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বেগম খালেদা জিয়া। তাকে কারাগারে বন্দী করে রাখা হয়েছে। লাখ লাখ অন্যান্য কারাবন্দী বা মামলার আসামিদের কথা না-ই বা বললাম।

যতটুকু লিখলাম বা বললাম, তার বহুগুণ বেশি না বলা বা অলিখিত থেকেই গেল। মার্চ মাসের এই দিনে সব বাংলাদেশী যারা চিন্তা করতে পারেন, সব মুক্তিযোদ্ধা যাদের বিবেক এখনো সক্রিয়, সব প্রবীণ ব্যক্তি যারা মৃত্যুর আগে পর্যন্ত দেশের জন্য কিছু করতে আগ্রহী, তাদের সবার প্রতি আবেদন- দেশের বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তা করুন।

লেখক : মেজর জেনারেল (অব.); চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি
www.generalibrahim.com.bd

Hits: 220


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ