করোনায় কোন হরমোনে মৃত্যুঝুঁকি বেশি?

Pub: Sunday, June 28, 2020 2:36 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মহামারি করোনা ভাইরাসে দিশেহারা বিশ্ব। দেশে দেশে লাখ লাখ মানুষ আক্রান্ত। বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল। কিন্তু একটা বিষয় খেয়াল করলে দেখা যাচ্ছে যে, করোনায় যে পরিমাণ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন মৃত্যুর হার তার চেয়ে অনেকটা কম। অর্থাৎ আক্রান্তদের বেশিরভাগই সুস্থ হয়ে উঠছেন। যাদের অবস্থা একেবারে গুরুতর তারাই মৃত্যুঝুঁকিতে পড়ছেন। তাহলে করোনায় আক্রান্ত কোনও রোগীদের ক্ষেত্রে মৃত্যুঝুঁকি বেশি?  

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শরীরে আগে থেকে গেড়ে বসা কিছু রোগ করোনা রোগীদের জটিলতার ঝুঁকি বাড়ায়। এছাড়া বয়স্ক মানুষ, হার্টের রোগী, ফুসফুসের রোগী, দুর্বল ইমিউন সিস্টেমের মানুষ, লিভারের রোগী, কিডনি ও ডায়াবেটিসের রোগীদের ক্ষেত্রেও উচ্চ ঝুঁকি দেখা যায়।

কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে মৃত্যু এড়াতে কোন রোগীদের অগ্রাধিকার দেয়া প্রয়োজন তা জানতে কাজ করছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা। 

সম্প্রতি তেমনই একটি গবেষণায় দেখা যায়, রক্তে ‘করটিসল’ নামক স্ট্রেস হরমোনের উচ্চমাত্রা করোনা রোগীদের গুরুতর ঝুঁকির দিকে নিয়ে যায়। এক্ষেত্রে মৃত্যুর আশঙ্কাও বাড়ে। 

দ্য ল্যানসেটে প্রকাশিত ওই গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, সংশ্লিষ্ট গবেষকরা আশাবাদী যে, রক্তে করটিসলের মাত্রা দেখেই কোনও রোগীর মৃত্যুঝুঁকি কতটা তা অনুমান করা যাবে। উদাহরণ হিসেবে তারা দেখিয়েছেন, খুব উচ্চমাত্রার করটিসল করোনা সংক্রমণে মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে। 

লন্ডনের একটি হাসপাতালে ভর্তিকৃত ৫৩৫ জন রোগীর রক্ত পরীক্ষা পর্যবেক্ষণ করে এ গবেষণা চালানো হয়। ওই রোগীদের মধ্যে ৪০৩ জনই ছিলেন কোভিড আক্রান্ত। 

দেখা গেছে, করোনা রোগীদের রক্তে করটিসলের মাত্রা বড় সার্জারির রোগীদের চেয়েও তিনগুণ বেশি ছিল। সাধারণত সার্জারিতে করটিসলের মাত্রা ব্যাপক হারে বেড়ে যায়। যেসব করোনা রোগীর রক্তে খুব উচ্চমাত্রার করটিসল পাওয়া গেছে তাদের মধ্যে মৃত্যুর হারও সর্বোচ্চ ছিল। এমনকি এই রক্তের গ্রুপের মধ্যে জটিলতাও বেশি লক্ষ্য করা যায় এবং ওই রোগীদের সুস্থ হতেও অনেক বেশি সময় লেগেছে। 

গবেষকরা বলছেন, একটি সাধারণ রক্ত পরীক্ষায় করটিসলের মাত্রা শনাক্ত করে কিছু রোগীদের জরুরি মেডিকেল সেবা দেয়া সম্ভব হবে। যার ফলে তাদের জীবন রক্ষা পাবে।

এই বিষয়ে গবেষণা প্রতিবেদনটির প্রধান লেখক ও ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের ফ্যাকাল্টি অব মেডিসিনের মেটাবলিজম, ডাইজেশন অ্যান্ড রিপ্রোডাকশনের অধ্যাপক ওয়ালজিত দিল্যু বলেন, ‘কোনও রোগী হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর আমরা তার রক্তে অক্সিজেন স্যাচুরেশনের মাত্রা দেখে বুঝতে পারি, কার কতটা জরুরি চিকিৎসাসেবা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে রক্তে করটিসলের মাত্রা নতুন মার্কার হিসেবে যুক্ত হয়েছে।’


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ