fbpx
 

যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় ২২ জনের মৃত্যু, ছড়িয়েছে ৩৪ অঙ্গরাজ্যে

Pub: সোমবার, মার্চ ৯, ২০২০ ১:৫২ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

যুক্তরাষ্ট্রে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে করোনা ভাইরাস। দেশটির রাজধানী ওয়াশিংটনে রবিবার আরও দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে এ ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২২ এবং আক্রান্তের সংখ্যা ৫৫৪। ইতোমধ্যেই ৫০টি অঙ্গরাজ্যের মধ্যে ৩৪টিতে ছড়িয়ে পড়ছে এ ভাইরাস।

হোয়াইট হাউসে এক ব্রিফিংয়ে বিদ্যমান পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেছেন ইউএস ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন কমিশনার ড. স্টিফেন হ্যান। তিনি জানান, করোনা ভাইরাস শনাক্তে তার প্রতিষ্ঠান এ পর্যন্ত অন্তত ৫ হাজার ৮৬১টি পরীক্ষা সম্পন্ন করেছে। 

তবে মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, প্রকৃতপক্ষে ড. স্টিফেন হ্যান এর মন্তব্যের অর্থ এটা নয় যে, যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ৫ হাজার ৮৬১ জনকে পরীক্ষা করা হয়েছে। কেননা, বর্তমানে এ ভাইরাস শনাক্তে প্রতিটি ব্যক্তিকে দুই দফায় পরীক্ষা করা হয়। এর একটি করা হয় নাকে এবং অন্যটি গলায়। তাছাড়া ব্যক্তিগতভাবে কিংবা বাণিজ্যিক ল্যাবে যারা পরীক্ষা করিয়েছেন তাদেরও এ হিসাবে ধরা হয়নি। সারা দেশে এ পর্যন্ত ঠিক কতজনকে পরীক্ষা করা হয়েছে সে সম্পর্কে তথ্য দিতেও অপারগতার কথা জানিয়েছেন স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা।

অন্যদিকে নিউ ইয়র্কে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৭৬ জনে দাঁড়ানোর পর, সেখানে জরুরি অবস্থা জারির ঘোষণা দিয়েছেন রাজ্যের গভর্নর অ্যান্ড্রু কুমো। তিনি জানান, ২৪ ঘণ্টায় ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে যাওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে নিউ ইয়র্ক ছাড়াও অরেগন, ক্যালিফোর্নিয়া, ফ্লোরিডা, ইন্ডিয়ানা, কেন্টাকি, মেরিল্যান্ড, উতাহ এবং ওয়াশিংটনেও জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। এছাড়া সাউথ ক্যারোলাইনা, হাওয়াই, ওকলাহোমা, নেব্রাস্কা, মিনেসোটা ও পেনসিলভানিয়ার মতো রাজ্যগুলোতেও এ ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটেছে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান শহরের একটি বন্যপ্রাণীর বাজার থেকে ছড়িয়ে পড়ে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস। এরপর প্রথমে তা চীনে ছড়িয়ে পড়ে। বর্তমানে বিশ্বের ১০৯টি দেশে করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে। একপর্যায়ে এ ভাইরাস নিয়ে বিশ্বজুড়ে জরুরি স্বাস্থ্য পরিস্থিতি (হেলথ ইমার্জেন্সি) ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। ইতোমধ্যেই দুনিয়াজুড়ে এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা লাখ ছাড়িয়েছে। এর বেশিরভাগই চীনা নাগরিক।

এছাড়া করোনা ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে নিহত হয়েছে ৩ হাজার ৮৩১ জন। শুধু চীনেই মৃতের সংখ্যা ৩ হাজার ১২০ জন। চীনের বাইরে নিহত হয়েছে ৭১১ জন। 

এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ১০ হাজার ৮৭ জনে দাঁড়িয়েছে। চীনে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ৭৩৫ জন। চীনের বাইরে ২৯ হাজার ৩৫২ জন। আক্রান্তদের মধ্যে ৫ হাজার ৯৭৭ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এখন পর্যন্ত মোট ৬২ হাজার ৩০১ জন সুস্থ হয়েছে। 

সোমবার সকালে চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন জানিয়েছে, চীনে নতুন করে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ৪০ জন এবং মারা গেছে ২৩ জন। এ পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ৮০ হাজার ৭৩৫ জন এবং মারা গেছে ৩ হাজার ১২০ জন। 

হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান, সেখানাকার একটি জীবন্ত প্রাণী বিক্রির বাজার থেকে ভাইরাসটির উৎপত্তি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। চীন হুবেই প্রদেশকে পুরো দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে। ওই অঞ্চলের সাথে সকল ধরনের যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। 

চীনের সবগুলো প্রদেশসহ বিশ্বের ১০৯টি দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। চীনের বাইরে এ পর্যন্ত ২৯ হাজার ২৪২ জন শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ইটালিতে ৭ হাজার ৩৭৫ জন। যা চীনের বাইরে সর্বোচ্চ।

ভাইরাস সংক্রমণের কারণে চীন ভ্রমণে সতর্কতা, নিষেধাজ্ঞা জারি এবং কড়াকড়ি আরোপ করেছে বিশ্বের প্রায় সকল দেশ। ভাইরাসের কারণে, বিশ্বের অনেক দেশ তাদের নাগরিকদের চীন ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। চীনে অধিকাংশ বিমান সংস্থার ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। 

রবিবার (৮ মার্চ) বাংলাদেশে প্রথম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত তিন ব্যক্তিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। ইতালি থেকে আসা বাংলাদেশিদের মাধ্যমে এই ভাইরাস এ দেশে প্রবেশ করেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা যায়।

এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)। এদের মধ্যে দুই পুরুষ ও একজন নারী।

রবিবার দুপুরে এ তথ্য জানিয়েছেন আইইডিসিআর পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা।

তিনি জানান, রক্তের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করে তাদের শরীরে এই ভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এদের মধ্যে দুজন ইতালি থেকে এসেছেন। এদের বয়স ২০ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে। এ তিনজন ছাড়াও আরও দুজনকে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, আক্রান্ত রোগীদের হাসপাতালে রেখে লক্ষণ-উপসর্গভিত্তিক চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে। তারা বর্তমানে ভালো আছেন। এই বিষয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। রাস্তাঘাটে চলাফেরায় সাবধানতা অবলম্বনের পরামর্শ দেন তিনি।

এদিকে, বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সৌদি আরবে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। স্থানীয় সময় সোমবার থেকে এই নির্দেশনা কার্যকর হবে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত দেশটির সব বিদ্যালয়, বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে দেশটির সরকার। 

সৌদি প্রেস এজেন্সির বরাত দিয়ে আল আরাবিয়ার এক প্রতিবেদনে এই খবর দেওয়া হয়েছে। একই দিন দেশটির পূর্ব কাতিফ রাজ্য পুরোপুরি কোয়ারেন্টাইন করে রাখার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ওই এলাকায় একদিনে ৪ জন করোনা ভাইরাস আক্রান্তের প্রেক্ষিতে এ ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এই ৪ জন সহ সৌদি আরবে মোট ১১ জন আক্রান্ত হয়েছে।

সৌদি আরবের শিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরামর্শ মোতাবেক ‘প্রতিরোধ এবং সতর্কতামূলক’ পদক্ষেপ হিসেবে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যাতে ছাত্র ও কর্মকর্তাদের এই ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা করা যায়। পাবলিক ও প্রাইভেট, কারিগরি ও ভোকেশনালসহ সব রকমের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এই নির্দেশনার আওতায় থাকবে বলে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকাকালীন ভার্চুয়াল বিদ্যালয় ও ডিসটেনস এডুকেশনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানিয়েছে সৌদি শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সৌদি শিক্ষামন্ত্রী হামাদ বিন মোহাম্মেদ বলেন, সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় চালু করার আগে দৈনিক এবং সাপ্তাহিক পর্যবেক্ষণ মূল্যায়ন করা হবে।

অন্যদিকে, করোনা ভাইরাসে ব্যাপকভাবে আক্রান্ত হয়েছে ইউরোপের দেশ ইতালি। এ অবস্থায় দেশটির সরকার দেশের উত্তরাঞ্চলের অধিকাংশ এলাকাকে লকডাউন (অবরুদ্ধ) করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। 

উত্তর ইতালির লম্বার্দি অঞ্চলসহ এবং ১৪ প্রদেশে অন্তত ১ কোটি ৬০ লাখ মানুষকে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী। 

এপ্রিল মাসের প্রথম দিক পর্যন্ত এ অবস্থা বিদ্যমান থাকবে। দেশটিতে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দ্রুত বাড়তে থাকায় জিম, পুল, মিউজিয়াম এবং স্কি রিসোর্টও বন্ধ করে দেওয়া হবে।

উত্তর ইতালির লম্বার্দি অঞ্চল, যেখানে এক কোটি মানুষের বাস, দেশটির অর্থনৈতিক কেন্দ্র মিলান এবং পর্যটন নগরী ভেনিস, পার্মা, রিমিনি ও মোদেনাসহ ১৪টি প্রদেশে জরুরি কারণ ছাড়া প্রবেশ বন্ধ থাকবে। এতে কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন প্রায় এক কোটি ৬০ লাখ মানুষ।

এই ভাইরাসে ইতালিতে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৩৬৬ জনে দাঁড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে নিহত হয়েছে ১৩৩ জন এবং আক্রান্ত হয়েছে ১ হাজার ৪৯২ জন। এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছে ৭ হাজার ৩৭৫। 

পর্তুগালের প্রেসিডেন্ট মার্সেলো রিবেলো ডি সুজা সব ধরনের কাজকর্ম বন্ধ রেখে দুই সপ্তাহের জন্য কোয়ারেন্টাইনে গেছেন। রবিবার দেশটির সরকারি ওয়েবসাইটে এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, গত মঙ্গলবার (৩ মার্চ) পর্তুগালের উত্তারাঞ্চলে একটি স্কুলের শিক্ষার্থীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন প্রেসিডেন্ট রিবেলো। এমনকি একসাথে দাঁড়িয়ে ছবিও তোলেন তারা। গত শনিবার ওই শিক্ষার্থীদের একজনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। এ কারণে, সতর্কতাস্বরূপ দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টাইনে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রেসিডেন্ট। তবে, কোনও সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার নয়, দুই সপ্তাহ নিজ বাড়িতেই আলাদা থাকবেন তিনি।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, শরীরে করোনা আক্রান্তের কোনও লক্ষণ না থাকলেও স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের পরামর্শ মেনে দুই সপ্তাহের জন্য কোয়ারেন্টাইনে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রেসিডেন্ট। এ সময়ে তিনি কোনও ধরনের প্রকাশ্য কার্যক্রমে অংশ নেবেন না।

গত ২৪ ঘণ্টায় পর্তুগালে নতুন করে ৯ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস ধরা পড়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০ জন।

গত ডিসেম্বরে চীনে উদ্ভূত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা। এখন পর্যন্ত চীনের বাইরে বিশ্বের ১০৯টি দেশে ২৯ হাজার ৩৫২ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। শুধু চীনেই আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ৭৩৫ জন।

যেসব দেশে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে-

নিহত হওয়া দেশগুলোর মধ্যে ইটালিতে ৩৬৬, ইরানে ১৯৪, দক্ষিণ কোরিয়ায় ৫৩, যুক্তরাষ্ট্র ২২, ফ্রান্স ১৯, স্পেন ১৭, জাপান ৭, ডায়মন্ড প্রিন্সেস জাহাজে ৭, ইরাক ৬, হংকং ৩, অস্ট্রেলিয়া ৩, যুক্তরাজ্য ৩, নেদারল্যান্ড ৩, সুইজারল্যান্ড ২, ফিলিপাইন, মিশর, থাইল্যান্ড, সান ম্যারিনো, আর্জেন্টিনা ও তাইওয়ানে ১ জন করে। 

যেসব দেশে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে-

চীনে ৮০ হাজার ৭৩৫ জন, দক্ষিণ কোরিয়া ৭ হাজার ৩১৩, ইটালি ৭ হাজার ৩৭৫, ইরান ৬ হাজার ৫৬৬,  ফ্রান্স ১ হাজার ২০৯, জার্মানি ১ হাজার ৪০, স্পেন ৬৭৪, যুক্তরাষ্ট্র ৫৩৮, জাপান ৫০২, সুইজারল্যান্ড ৩৩৭, যুক্তরাজ্য ২৭৩, নেদারল্যান্ড ২৬৫, সুইডেন ২০৩, বেলজিয়াম- ২০০, নরওয়ে ১৭৬, সিঙ্গাপুর ১৫০, হংকং ১১৫, অস্ট্রিয়া ১০৪, মালয়েশিয়া ৯৯, বাহরাইন ৮৫, অস্ট্রেলিয়া ৮০, গ্রীস ৭৩, কানাডা- ৬৪, কুয়েত ৬৪,  ইরাক ৬০, আইসল্যান্ড ৫৮, মিশর ৫৫, থাইল্যান্ড- ৫০, তাইওয়ান ৪৫, আরব আমিরাত ৪৫, ভারত ৪৩, ইজরাইল ৩৯, সান ম্যারিনো ৩৬, ডেনমার্ক ৩৫, লেবানন ৩২, চেক রিপাবলিক ৩২, পর্তুগাল ৩০, ভিয়েতনাম ৩০, ব্রাজিল ২৫, ফিনল্যান্ড ২৫, আয়ারল্যান্ড ২১, আলজেরিয়া ২০, প্যালেস্টাইন ১৯, রাশিয়া ১৭, ওমান ১৬, স্লোভেনিয়া ১৬, কাতার ১৫, রোমানিয়া ১৫, সৌদি আরব ১৫, ইকুয়েডর ১৪, জর্জিয়া ১৩, আর্জেন্টিনা ১২, ক্রোয়েশিয়া ১২, পোল্যান্ড ১১, ফিলিপাইন ১০, ম্যাকাও ১০, এস্তোনিয়া ১০, চিলি ১০, আজারবাইজান ৯, মেক্সিকো ৭, পাকিস্তান ৭, হাঙ্গেরি ৭, বেলারুশ ৬, ইন্দোনেশিয়া ৬, পেরু ৬, ডমিনিকান রিপাবলিক ৫, লুক্সেমবার্গ ৫, নিউজজিল্যান্ড ৫, কোস্টারিকা ৫, ফ্রেন্স গায়ানা ৫, গায়ানা ৫, স্লোভাকিয়া ৫, আফগানিস্তান ৪, সেনেগাল ৪, বুলগেরিয়া ৪, মালদ্বীপ ৪, লাটভিয়া ৩, উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ৩, বাংলাদেশ ৩, বসনিয়া অ্যান্ড হার্জেগোভিনা ৩, মাল্টা ৩, দক্ষিণ আফ্রিকা ৩, কম্বোডিয়া ২, মরোক্কো ২, তিউনিশিয়া ২, আলবেনিয়া ২, ক্যামেরুন ২, ফারো আইল্যান্ড ২, মার্টিনিক ২, সেইন্ট মার্টিন ২, অ্যান্ডোরা, আর্মেনিয়া, জর্ডান,  লিথুনিয়া, মোনাকো, নেপাল, নাইজেরিয়া, শ্রীলঙ্কা, ইউক্রেন, ভুটান, কলম্বিয়া, জিব্রাল্টার, ভ্যাটিকান সিটি, লিচেনস্টেইন, মালদোভা, প্যারাগুয়ে, সেন্ট বার্থ, সার্বিয়া ও টোগোতে ১ জন করে। এর বাইরে ডায়মন্ড প্রিন্সেস জাহাজে ৬৯৬ জন।

Hits: 25


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ