আজকে

  • ৭ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
  • ২১শে জুন, ২০১৮ ইং
  • ৬ই শাওয়াল, ১৪৩৯ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

খালেদা জিয়ার কারামুক্তির জন্য আন্দোলন গড়ে তুলেছে জাসাস: হেলাল খান

Pub: বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৮ ৯:৪২ অপরাহ্ণ   |   Upd: বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৮ ৯:৪২ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

বিশেষ সংবাদদাতা: ১৯ জানুয়ারি ২০১৭ বৃহস্পতিবার, জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থার (জাসাস) নতুন কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়। কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন জনপ্রিয় চিত্রনায়ক-প্রযোজক ও কারাবরণকারী নেতা হেলাল খান। বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে বিএনপির মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই কমিটির অনুমোদন প্রদান করেন। এছাড়া হেলাল খান বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য।
সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের চন্দগ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন হেলাল খান। জনপ্রিয় এই অভিনেতা ও রাজনীতিবীদ আগামী সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৬ আসন গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার থেকে বিএনপির অন্যতম প্রার্থী হিসেবে এরই মধ্যে নিজকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তার সাথে কথায় কথায় রাজনীতি, নির্বাচন ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনের বিভিন্ন বিষয় উঠে আসে। পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হলো।
প্রশ্ন: বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে আপনাদের কর্মপন্থাগুলো কি?
হেলাল খান: আপনারা জানেন বিএনপির চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া অবৈধ সরকারের করাগারে বন্দি আছেন। তাকে মিথ্যা সাজানো মামলায় সাজা প্রদান করে আদালত থেকে সরাসরি জেলে প্রেরণ করা হয়। এ পরিস্থিতিতে চারটি বিষয়কে সামনে রেখে আমরা কাজ করে যাচ্ছি,
১. দেশেনেত্রীকে অবৈধ সরকারের কারাগার থেকে মুক্তকরার জন্য সকল প্রকার গণতান্ত্রিকপন্থার আন্দোলন বেগবান করা।
২. দলকে সাংগঠনিক ভাবে শক্তিশালী করা। তৃণমূলে বিএনপি ব্যপক জনপ্রিয় দল। আমাদের এ বিশাল সমর্থক বাহিনীকে সাংগঠনিকভাবে উজ্জ্বীবিত করে তোলার কাজ করে যাওয়া ও সাধারণ মানুষের কাছে বিএনপির আগামী দিনের রাজনৈতিক পরিকল্পনাগুলোকে উপস্থাপন করা।
৩. অবৈধ সরকারের নানান অপকর্ম, লুটপাট, অর্থপাচার, ব্যাংক লুপপাট, অত্যাচার-অবিচার, গুম-হত্যা, মামলা হামলার কথা মানুষের কাছে তুলে ধরা। সেই সাথে বাকশালী পন্থায় তারা আবারো ক্ষমতায় থাকার যে ষড়যন্ত্র করছে তার বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তোলা।
৪. দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি তারেক রহমান কর্তৃক দেয়া বিএনপির ভিশন-২০৩০ কে সারাদেশের মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়া। অবৈধ সরকার যাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করে রেখেছে ভোট বিপ্লবের মাধ্যেমে তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করার সংগ্রামে সবাইকে এগিয়ে আসার আহবান করা ও সাহস যোগানো।
প্রশ্ন: জাসাস কিভাবে বর্তমান রাজনৈতিক কাজে এগুচ্ছে?
হেলাল খান: জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা জাসাসের অন্যতম কাজ বিএনপির রাজনীতির সাংস্কৃতিক দিকগুলো নিয়ে কাজ করা। উদ্ভূত রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে জাসাসের উদ্যোগে কবিতা, গান, পথনাট্য, গীতিনাট্য ইত্যাদি সাংস্কৃতিক বিষয় দিয়ে মানুষের মননকে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠামুখী করে তোলার কাজ করে যাচ্ছে। দেশমাতা বেগম খালেদা জিয়ার কারা মুক্তির জন্য সাংস্কৃতিক আন্দোলন গড়ে তুলছে জাসাস। দেশনেত্রীর মুক্তির জন্য জাসাস সারাদেশে গণস্বাক্ষর কর্মসূচী পরিচালনা করছে। বিএনপির প্রতিটি কেন্দ্রীয় আন্দোলন কর্মসূচী সফল করার জন্য জাসাস রাজধানীসহ সারাদেশে অংশগ্রহণ করছে।
দেশের গন্ডি পেরিয়ে বহি:বিশ্বেও জাসাস আন্দোলন গড়ে তুলেছে। ২৭ ফেব্রুয়ার যুক্তরাষ্ট্রে হোয়াইট হাউজের সামনে প্রতিবাদ করেছে জাসাস যুক্তরাষ্ট্র কমিটি। এছাড়া যুক্তরাজ্যসহ অন্যান্য দেশগুলোতেও জাসাস কাজ করে যাচ্ছে।
জাসাস আগামী বই মেলায় বিএনপি, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও দেশনায়ক তারেক রহমানের উপর কমপক্ষে ৪ থেকে ৫টি গভেষণাধর্মী গ্রন্থ প্রকাশ করতে কেন্দ্রীয় জাসাস কাজ করে যাচ্ছে এবং খুবশীঘ্র জাসাসকে উন্নতমানের ডাটাবেজের আওতায় নিয়ে আসা হচ্ছে।
প্রশ্ন: জাসাসের কেন্দ্রীয় কমিটি কবে নাগাদ পূর্ণাঙ্গ হবে?
হেলাল খান: গত বছর বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদার নির্দেশে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জাসাসের ৩০ সদস্য বিশিষ্ট (আংশিক) জাতীয় নির্বাহী কমিটি অনুমোদন দিয়েছেন। আমরা দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই কেন্দ্রীয় নির্দেশ মোতাবেক কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার কাজ করছি। কিন্তু অবৈধ সরকার কর্তৃক উদ্ভূত রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে সামান্য বিলম্ব হলেও পরিস্থিতি কিছুটা অনুকূলে আসলেই এ ব্যাপারে পজেটিভ সিদ্ধান্ত আসবে।
পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে আমরা আরো ৫০ জন খ্যাতিমান সাংস্কৃতিক অঙ্গনের মানুষজনকে সম্পৃক্ত করেছি। সারা দেশে জাসাসের সাংগঠনিক অবস্থানকে আরো শক্তিশালী করার জন্য জেলা উপজেলা/থানা, ইউনিয়ন এমনকি ওয়ার্ড পর্যায়েও কমিটি গঠনের উপর জোর দিয়েছি।

প্রশ্ন: অভিনেতা থেকে রাজনীতিতে আসার কারণ কি?
হেলাল খান: আমি অভিনয়ে এসেছিলাম শখের বশে। “মানুষের ভালোবাসা পাব ও মানুষকে আরো ভালোবাসতে শিখব” মনের এমন প্রচন্ড জোর থেকে প্রথমে অভিনয়ে আসি। তবে তারও আগে থেকে আমি রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলাম সেই একই দর্শন নিয়ে। ছাত্র জীবনে আমি ছাত্র রাজনীতি করেছি। পরবর্তীতে যেখানে যে অবস্থায়ই ছিলাম জাতীয়তাবাদী রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলাম।
অবৈধ সরকার কর্তৃক দেশমাতা খালেদা জিয়াকে গৃহবন্দী রাখার প্রতিবাদ জানাতে ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে পুলিশী নির্যাতনের শিকার হই, তারা আমাকে জেলখানায় প্রেরণ করে। কয়েকমাস আমাকে কারাগারে থাকতে হয়। সেই সাথে কয়েকটি মিথ্যা মামলায় আমাকে জড়িয়ে দেয়। এসব মিথ্যা মামলায় আমার সাথে আসামী করা হয় বিএনপির সহ-সভাপতি শওকত মাহমুদ, যুগ্ম-মহাসচিব রিজভী আহমেদ, ঢাকা উত্তর বিএনপির সভাপতি এম এ কাইয়ুম, কেন্দ্রিয় নির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক শ্যামা ওবায়েদ ও শিমুল বিশ্বাসকে।
এতো ঘাত প্রতিঘাত ও সরকারের প্রতিহিংসার পরও বিশ্বাস করি বিএনপি আগামীতে ক্ষমতায় আসবে। আমার এলাকা সিলেট-৬ আসনে বিএনপির উন্নয়নের জোয়ার পৌঁছে দিতে আমি সক্ষম হব ইনশাআল্লাহ।

প্রশ্ন: আপনার নির্বাচনী এলাকা নিয়ে কিছু বলুন।
হেলাল খান: আমার নির্বাচনী এলাকা সিলেট-৬ আসন। গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার নিয়ে সিলেট জেলার অন্যতম আসন এটি। এ আসনে দীর্ঘদিন ধরে বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের সকলকে নিয়ে আমি কাজ করে আসছি। প্রবাসী অধ্যুষিত হওয়ায় এ আসনের মানুষের মনন, চিন্তা-ভাবনা বাংলাদেশের যে কোন এলাকা থেকে অগ্রসরমান। কিন্তু উন্নয়নের কথা বললে বিএনপি সরকারের হাত ধরে যা উন্নয়ন হয়েছে তাতেই থমকে রয়েছে বর্তমান পর্যন্ত। এমনকি আওয়ামী লীগের মন্ত্রী পরিষদে থেকেও বিএনপির সময়ে করা পাকা রাস্তাগুলোকে সঠিক ভাবে কার্পেটিং করতে পারছেনা তারা। তাই গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজারের উন্নয়ন মানেই বিএনপি ও ধানের শীষ; এটা এলাকার জনগণ ভালো করে উপলব্দি করতে পেরেছে।
ধানের শীষ মার্কা গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজারের জনগণের কাছে উন্নয়নের বার্তা হলেও বিগত দিনগুলোতে এ জনপ্রিয় মার্কা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তারা। স্বাধীনতার পর মাত্র একটি নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দিতে পেরেছেন জনগণ।
বিগত ৭/৮ বছর ধরে বিএনপি গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজারে ভালো অবস্থানে আছে। নির্বাচনের পক্ষপাতিত্ব করার পরও বিগত ইউপি নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীক গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজারে ভালো করেছে। জনগণের ভালোবাসায় ৫০% ভোট ও আসন আমাদের ধানের শীষ মার্কা অর্জন করে নিয়েছে। তাই এবার জোটের কোন মার্কা নয়, গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজারে ধানের শীষই বিজয়ী হবে ইনশাআল্লাহ। ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে এলাকার জনগণের উন্নয়নে তাদের পাশে থেকে কাজ করতে চাই।

বিশেষ প্রতিনিধি: আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ

হেলাল খান: আপনাদেরও অসংখ্য ধন্যবাদ।

Print

শীর্ষ খবর/আ আ

সংবাদটি পড়া হয়েছে 2468 বার

 
 
 
 
ফেব্রুয়ারি ২০১৮
রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
« জানুয়ারি   মার্চ »
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮  
 
 
 
 
WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com