ছাদবাগানে সবুজের একটু ছোঁয়া

Pub: রবিবার, জুলাই ২২, ২০১৮ ৪:৪২ অপরাহ্ণ   |   Upd: রবিবার, জুলাই ২২, ২০১৮ ৪:৪২ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

ইট-পাথরের নগরজীবনে একটু প্রকৃতির ছোঁয়া পাওয়া বড় দায়। আমরা যারা বড় বড় শহরের বাসিন্দা আমাদের পক্ষে মাসেও একবার দুচোখে সবুজের দিকে তাকানোর সুযোগ হয় না। এমন অনেকেই আছি- যারা বহুদিন কোনও গাছের পাতা ছুঁয়ে দেখতে পারি না। অথচ সাধের গ্রামে কত সবুজের সমারোহ।

তারপর জীবনের টানে, বেঁচে থাকার তাগিদে যারা বাধ্য হয়ে শহরের অধিবাসী তাদেরকে নিজেদের মতো করেই খুঁজে নিতে হবে একটু সবুজের ছোঁয়া। সেক্ষেত্রে ‘ছাদবাগান’ হতে পারে উৎকৃষ্ট উপায়। কিংবা বাসার বেলকনিতে দু-চারটি ছোট গাছ টবে থাকলেও চোখে অন্তত এক পলক সবুজের দেখা মেলে।

আমাদের এই প্রিয় শহরের বাড়িগুলোর ছাদে আজকাল তাই অনেকেই বাগান করতে শুরু করেছেন। সবুজের সমারোহ, এমনকি পরিবেশ বাঁচাতে বা পরিবেশ এর প্রতি ভালবাসা থেকে বিন্নধর্মী এসব পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।

দালানকোটা আর দূষণের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে শহরের তাপমাত্রা। বাড়ছে জনসংখ্যাও। খালি জায়গায় তৈরি করতে হচ্ছে বড় বড় ইমারত। তাহলে পরিবেশ বাঁচাতে বৃক্ষের স্থান কোথায় !! মানুষ আজ সচেতন এবং সোচ্চার। তাই বাড়ির ছাদে গাছ লাগিয়ে বাগান তৈরি করে নিজে লাভবান হওয়ার পাশাপাশি রক্ষা করছে পরিবেশকে।

আপনি হয়তো বিকেলে বাসার ছাদে বসে আছে। দূরের হাওয়া মাঝেমধ্যে আপনার শরীর শীতল করে যাচ্ছে। কিন্তু তখনই আপনার চোখে পড়লো পাশের বাসার ছাদ যেন একখণ্ড আমাজান হয়ে উঠেছে। দারুণ উপভোগ করছেন আপনি। কিন্তু এরকম ছোটখাটো বাগান তো আপনিই করে ফেলতে পারেন।

তারপর সেই বাগানের পরিচর্যা, সবুজের সংস্পর্শ- সব মিলে জীবনের নতুন এক স্বাদ এসে ধরা দেবে আপনার চোখেমুখে। প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে পাবেন কাজেকর্মে। পরিবেশে বেড়ে যাওয়া বিষাক্ত গ্যাস থেকে জীবকুলকে একমাত্র গাছই বাঁচাতে পারে। শহর অঞ্চলে ব্যাপকভাবে ছাদ বাগান প্রকল্প সম্প্রসারণ করা সম্ভব হলে তা কার্বন ডাই অক্সাইডসহ বেশকিছু ক্ষতিকর উপাদানের মাত্রা কমিয়ে দূষণ কমাবে এবং পরিবেশের তাপমাত্রা স্বাভাবিক রাখতে সহায়তা করবে।

বর্তমান সময়ে বাসাবাড়ির ছাদে বাগান করার দিকে ঝুকছে মানুষ। যে বাসার শিশুটি ছোটকাল থেকে একটু সবুজের পরশ পায়নি তার দৃষ্টিসীমাই তো থাকে সীমিত। তাই শিশু-কিশোর এমনকি বৃদ্ধদেরও মন ভালো করে দেয় বৃক্ষের সান্নিধ্য।

আপনি বাসার ছাদে কাটা ড্রামে মাটি ভর্তি করে কিংবা ছোট ছোট টবে নানা জাতের গাছ রোপন করতে পারেন। সেখানে থাকতে পাচ্ছে পছন্দের পাতাবাহার কিংবা প্রিয় কিছু ফুলের গাছও। যানজট আর জনজটের হাত থেকে মুক্তি না মিললেও সারা দিনের কর্মক্লান্তি শেষে একবার যখন সেই বাগানের কাছে যাবেন, সবুজ পাতান নাক ডুবিয়ে একটু বিশুদ্ধ নিঃশ্বাস নেবেন তখন মন আপনি থেকে ভালো হয়ে যাবে। পাবেন বাড়তি জীবনীশক্তিও। তাই নিজে ছাদবাগান করুন, অন্যকেও এ ব্যাপারে উৎসাহিত করুন।

Print

শীর্ষ খবর/আ আ

সংবাদটি পড়া হয়েছে 1064 বার

আজকে

  • ১১ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
  • ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
  • ১৫ই মুহাররম, ১৪৪০ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

 
 
 
 
 
জুলাই ২০১৮
রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
« জুন   আগষ্ট »
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
 
 
 
 
WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com