সেই মিছিলে যোগ দিন

Pub: বুধবার, মে ৮, ২০১৯ ১২:৪৮ পূর্বাহ্ণ   |   Upd: বুধবার, মে ৮, ২০১৯ ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সাংবাদিক, লেখকদের এক ধরনের যন্ত্রণাবোধ থাকে। কথায় বলে, যন্ত্রণাবোধ না থাকলে নাকি সাংবাদিক কিংবা লেখক হওয়া যায় না। এক সময় আমারও যন্ত্রণাবোধ ছিল। এখন সেটা নেই। কারণ আমি প্রাপ্তির কাছে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছি। সমাজে, রাষ্ট্রে কত কিছু ঘটছে তা আমি দেখেও দেখি না। লোকে বলে আমার নাকি চোখে ছানি পড়েছে। কে কি বললো, তাতে কি যায় আসে? আমি তো ভালো আছি, সুখে আছি।

মানুষ আমার সমালোচনা করে। বলে, আমি নাকি বিক্রি হয়ে গেছি। এক সময় সমালোচনায় কান দিতাম। এখন দেই না। কারণ সমালোচনা যারা করে তারা আমাকে কি দেবে? তাই আমি আমার পরিচয় ভুলে গেছি। এখন আর নীতিকথা লিখি না। ছোট পর্দায় গিয়ে অনেক নীতিকথা বলি। বলতে হয়, না হলে তো প্রাপ্তিতে টান পড়বে। আমি স্পষ্ট কথা বলি না। বললে ঘুরিয়ে বলি। গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের অন্যতম শর্ত হচ্ছে স্পষ্টবাদিতা। সেটা আমি ভুলে গেছি। এক সময় নানা স্বপ্নের কথা বলতাম। এখন আর বলি না। এখন স্বপ্নই তেমন দেখি না। আমার স্বপ্নের জগৎ ছোট হয়ে গেছে। এখন একটাই স্বপ্ন আরো সামনে যাওয়া। কীভাবে ভালো থাকা যায় তা নিয়েই সব সময় ভাবি। তাই নীতি-আদর্শ বেমালুম ভুলে গেছি। সাংবাদিক হতে হলে যে মেধা, দায়িত্ববোধ, চিন্তার স্বচ্ছতা, শানিত যুক্তিবোধ থাকার কথা- এর কোনোটাই আমার মধ্যে এখন আর নেই। এসব নীতি কথা। গুণীজনেরা এসব নিয়ে ভাবেন। আমার ভাববার কি দরকার। আমার তো কিছুতেই ঘাটতি নেই। বাড়ি-গাড়ি, ব্যাংক ব্যালেন্স সবকিছু হয়ে গেছে। সমাজের উঁচু স্তরের মানুষজন আমাকে চেনেন, জানেন। ছোট পর্দায় আমার কথা শুনে অনেকেই গালি দেয়। সমালোচনা করে। বলে আমি নাকি ভোল পাল্টে বাবার নামও ভুলে গেছি। এসব সমালোচনা আমি আমলে নেই না। আয়নার অপর পিঠটা আমি দেখতে চাই না। একা একা যখন বসি তখন শুধু ভাবি কেন অসহায় আত্মসমর্পণ করলাম। মাঝে মধ্যে যন্ত্রণা হয় বটে। কিন্তু মুহূর্তেই ভুলে যাই। নতুন নতুন ধান্ধা করতে থাকি। ইতিহাসে আমার নাম যেভাবেই লেখা হোক না কেন তাতে আমার কি যায় আসে! শুধু আমি কেন ভাববো? অন্যরা তো ভাবে না। দেখছেন না প্রাপ্তির মিছিল লম্বা হচ্ছে দিন দিন। তাই মনে হয় আমি সঠিক পথে আছি। এক সময় ভাবতাম, লোকে যদি মন্দ বলে। লোক লজ্জার ভয়ে মিছিল থেকে দূরে ছিলাম। এখন আমি মিছিলে যোগ দিয়েছি। অতীত ভুলে আমি এখন মিছিলের সামনে। চিৎকার করে বলি, ভাইসব নীতি-আদর্শ কিতাবের কথা। তাই সব ভুলে আসুন আমাদের মিছিলে। যে মিছিল আপনাকে নিয়ে যাবে নতুন এক ঠিকানায়।

আলী রাবাত, অতিথি লেখক


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ