fbpx
 

‘মানবাধিকার সুরক্ষায় দায়িত্ব এড়াচ্ছে সরকার’

Pub: শনিবার, মে ২৫, ২০১৯ ৬:৪৪ অপরাহ্ণ   |   Upd: শনিবার, মে ২৫, ২০১৯ ৬:৪৪ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে গঠিত নাগরিক নিরাপত্তা জোটের ব্যানারে এক সংবাদ সম্মেলনে দেশে বর্তমানে সংকটাপন্ন পরিস্থিতি বিরাজ করছে বলে অভিযোগ এনে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তারা বলেন,সরকার যেখানে জনগণের নিরাপত্তা ও ন্যায়বিচার প্রদানে সাংবিধানিকভাবে দায়বদ্ধ, সেখানে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে সরকার ও রাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থা জনগণের মানবাধিকার ও নাগরিক অধিকার সুরক্ষায় ব্যর্থ হচ্ছে বা দায়িত্ব এড়িয়ে যাচ্ছে।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের আবদুস সালাম হলে ‘আইনের শাসন, নিরাপত্তা, জবাবদিহিতা ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার’ দাবিতে এক সংবাদ সম্মেলনে জোটের ব্যানারে বিশিষ্টজনেরা এসব কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ড. হামিদা হোসেন, খুশী কবির, শীপা হাফিজা, শাহীন আনাম, জিয়াতারিক আলী, ড. ইফতেখারুজ্জামান, শামসুল হুদা, জাকির হোসেন, শরীফ জামিল সহ নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ । সম্মেলনে বর্তমান পরিস্থিতির উপরে একটি লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন শামসুল হুদা।

এতে বলা হয়, সাম্প্রতিক সময়ে দেশে প্রতিনিয়ত নানা অন্যায়, অবিচার, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, গুম, নির্যাতন, মত প্রকাশ ও মুক্ত চিন্তার অধিকারের ওপর আঘাত, নারী ও শিশু নির্যাতন, হত্যা, ধর্ষণের মতো জঘন্য মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে। রাষ্ট্রে আইনের শাসন ও জবাবদিহিতার অভাব, ক্ষমতার অপব্যবহার, ন্যায়বিচার প্রাপ্তির ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা, বিচারের দীর্ঘসূত্রতা নাগরিকের মানবাধিকার লঙ্ঘনকে আরো বেশি সংকটাপন্ন করে তুলছে।

বিশিষ্ট ব্যক্তিরা তাদের বক্তব্যে বলেন, সুশাসন প্রতিষ্ঠায় রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলো স্বাধীনভাবে কাজ করতে না দিলে এবং গণতন্ত্রকে সুসংহত করতে না পারলে কোন উন্নয়ণই দীর্ঘস্থায়ী হয় না। বর্তমান পরিস্থিতিতে সমাজে অন্যায়,অরাজকতা ও বিশৃংখলা বিরাজমান,সর্বোপরি জনগণের মধ্যকার নিরাপত্তাহীনতা একটি ভয়ের সংস্কৃতি সৃষ্টি করেছে,যা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। তারা বলেন,টেকসই উন্নয়ণ অভীষ্ট অর্জন বাংলাদেশ দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হলেও এপরিস্থিতি চলমান থাকলে বাংলাদেশ এলক্ষ্যমাত্রা অর্জনে পিছিয়ে পড়বে। তারা প্রাতিষ্টানিক দলয়ি করণ বন্ধেও সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে বলেন।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ