fbpx
 

ন্যায়বিচারের স্বার্থে অমিত সাহাকে গ্রেফতার করতে হবে

Pub: বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১০, ২০১৯ ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ   |   Upd: বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১০, ২০১৯ ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পর যে নামটি নিয়ে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে, সেটি হলো- অমিত সাহা।

আববারকে ডেকে নিয়ে শেরেবাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে বেধড়ক পেটানো হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। সেই কক্ষটি বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের আইনবিষয়ক উপসম্পাদক ও সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র অমিত সাহার।

হত্যাকাণ্ডে অমিত প্রত্যক্ষভাবে জড়িত বলে অভিযোগ করেছেন বুয়েটের শিক্ষার্থীরা। কিন্তু পরে ছাত্রলীগের তদন্তে এই ছাত্র ক্যাম্পাসের বাইরে ছিল উল্লেখ করে তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করা হয়। হত্যা মামলায় তাকে আসামিও করা হয়নি।

আবরার হত্যার ন্যায় বিচারের স্বার্থে অবশ্যই অমিত সাহাকে গ্রেফতার করতে হবে বলে মত দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল।

নিজের ফেসবুক পেইজে দেয়া এক স্ট্যাটাসে আসিফ নজরুল লিখেছেন-

অমিত সাহা-কে গ্রেফতার করতে হবে

অমিত সাহা হিন্দু বলে তাকে গ্রেফতারের দাবি করা যাবে না কেন? এ দাবি করাটা যারা সাম্প্রদায়িকতা বলেন তারাই আসল সাম্প্রদায়িক।

তবে অমিত অন্যতম অভিযুক্ত খুনী বলে ঢালাওভাবে হিন্দু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে বলা অত্যন্ত অনুচিত। সেটা করাও হবে সাম্প্রদায়িকতা।

অমিত-এর বিরুদ্ধে আবরার হত্যার অভিযোগ শুনছি প্রথম থেকে। যে রুমে খুন করা হয়েছে আবরারকে সেখানেও থাকতো সে। অথচ তাকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না, ছাত্রলীগের বহিস্কারের তালিকায়ও নেই সে।

তাকে অবশ্যই গ্রেফতার করতে হবে ন্যায়বিচারের স্বার্থে।

প্রসঙ্গত, ভারতের সঙ্গে চুক্তির বিরোধিতা করে শনিবার বিকালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন আবরার। এর জেরে রোববার রাতে শেরেবাংলা হলে তাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

নিহত আবরারকে ‘শিবিরকর্মী’হিসেবে চিহ্নিত করার চেষ্টা চালায় খুনিরা। তবে আবরার কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না বলে নিশ্চিত করেছেন তার পরিবারের সদস্যসহ সংশ্লিষ্টরা।

হত্যাকাণ্ডের প্রমাণ না রাখতে সিসিটিভি ফুটেজ মুছে (ডিলেট) দেয় খুনিরা। তবে পুলিশের আইসিটি বিশেষজ্ঞরা তা উদ্ধারে সক্ষম হন। পুলিশ ও চিকিৎসকরা আবরারকে পিটিয়ে হত্যার প্রমাণ পেয়েছেন।

এদিকে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ মেলায় বুয়েট শাখার সহসভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ১১ জনকে ছাত্রলীগ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ