‘ট্রানজিটের সময় শেখ হাসিনা বলেছিলেন দেশ নাকি সিঙ্গাপুর হবে’

Pub: রবিবার, অক্টোবর ১৩, ২০১৯ ১০:৫১ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ফেনী নদীর পানি বণ্টনসহ ভারতের সঙ্গে চুক্তির সমালোচনা করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেছেন, ‘এখন পোর্টগুলো বাকি আছে। ট্রানজিট দেয়ার সময় শেখ হাসিনা বলেছিলেন এটা দিয়ে দিলে বাংলাদেশ নাকি সিঙ্গাপুরের মতো হবে। সেই জন্য বাংলাদেশের লাখ লাখ যুবক বেকার দেশের মানুষ দু-বেলা ঠিকমত খেতে পারে না। ট্রান্সজিট থেকে নাকি উপার্জন হয়েছে মাত্র ৩৪ লক্ষ টাকা। এবার সুপ্রিয় পানি দিয়ে দেশ যে কত উন্নত হবে এটা জানি না।’

রবিবার (১৩ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবের মিলনায়তনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এর উদ্যোগে আবরার হত্যার বিচারের দাবিতে এক সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

টুকু বলেন, ‘আবরারের কি দোষ ছিলো? তার ছোট্ট একটি দোষ ছিল, তা হল সে দেশকে ভালোবেসে দেশের কথা বলেছে এই জন্য তাকে পিটিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে। আবরার হত্যায় আমাদের যে শোক এই শোককে রাজপথে প্রজ্জলিত করতে হবে তাহলে আবরারের আত্মা শান্তি পাবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিনি প্রায়ই দিল্লিতে যান, কিছুদিন আগেও গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি ফেনী নদীর পানি দিয়ে এসেছেন কিন্তু ফারাক্কা বাঁধ নিয়ে কোনও কথা বলেন নাই। তিনি বলেছেন- এদেশে নাকি যতটুকু পানি এসেছে তিনি নিয়ে এসেছেন। আমি একটা কথা বলতে চাই। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান প্রথম ফারাক্কা বাঁধের পানি আলোচনার মধ্য দিয়ে এদেশে নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন, বেগম খালেদা জিয়াও এনেছেন।

বিএনপির এই নীতিনির্ধারণী ফোরামের সদস্য বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া কখনও কোন কিছু ভুলে যান না। বিশেষ করে বাংলাদেশের সত্য ব্যাপারটা। তত্ত্বাবধায়ক সরকার তাকে বিদেশে যেতে বলেছিলো কিন্তু তিনি বলেছিলেন আমার ঠিকানা বিদেশে নয় বাংলাদেশ যার কারণে তিনি আজ কারাগারে ধুঁকে ধুঁকে মরছেন। তিনি দেশকে ভালোবাসেন বলে বিদেশে যান নাই। বিদেশে গেলে আজ কারাগারে থাকতে হতো না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা জাতীয়তাবাদী দল সব সময় এ দেশের জাতির স্বার্থে কাজ করে যাব। আমরা কখনো ভারত বিরোধী আন্দোলন করি না। আমরা এ দেশের স্বার্থ নিয়ে, অধিকার নিয়ে আন্দোলন করি। বিএনপি সব সময় ভারতকে প্রতিবেশি বন্ধু হিসেবে দেখে কিন্তু এ দেশের স্বার্থ বিরুদ্ধে গেলে বিএনপি কথা বলবেই।’

দেশের সকল জনগণ, বিএনপি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য টুকু বলেন, ‘আপনাদের সন্তান মারা গেছে, আমাদের সন্তান মারা গেছে। তাই আসুন বুকের রক্ত চাপা দিয়ে এই স্বৈরাচারীর বিরুদ্ধে আন্দোলন করি যাতে এই সরকারের পতন হয়।’

আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন ড. কামাল হোসেন, জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি আবু সাঈদ, তানিয়া রব প্রমুখ।

Hits: 1


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ