হাজিরার নামে খালেদা জিয়াকে নির্যাতন করা হচ্ছে : বিএনপি

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

কারা অন্তরীণ খালেদা জিয়ার চিকিৎসার দাবি জানিয়েছে বিএনপি। রোববার নয়াপল্টনে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, তার (খালেদা জিয়া) অসুস্থতা দিনে দিনে বাড়লেও তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে না।

পুরনো রোগগুলো বেড়ে গেছে। চোখে প্রচণ্ড ব্যথা, পা ফুলে গেছে, হাঁটতে পারছেন না। নির্যাতন সহ্য করতে গিয়ে তার পূর্বের অসুস্থতা এখন আরও গুরুতর রূপ ধারণ করেছে। এরকম শারীরিক অসুস্থতার মধ্যেও অমানবিকভাবে কারাগারের ভেতরে স্থাপিত ছোট্ট কক্ষের ক্যাঙ্গারু আদালতে তাকে ঘনঘন হাজির করা হচ্ছে। চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে থাকলেও তিলে তিলে শেষ করে দেয়ার জিঘাংসা চরিতার্থ করে চলেছে সরকার। তাকে আদালতে হাজির করার নামে টানা-হেঁচড়া করে নির্যাতন করা হচ্ছে।

খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘মিথ্যা দণ্ড দিয়ে তাকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখার সাধ পূর্ণ করলেন, এবার মুক্তি দিন। প্রধানমন্ত্রী আপনি দেয়ালের ভাষা পড়–ন, চারিদিকে মানুষের চোখ-মুখ কী বলছে, বোঝার চেষ্টা করুন। পৃথিবীটা ক্ষণিকের, কিন্তু কর্মফল অনন্তকালের। এখনও সময় আছে, এবার দেশনেত্রীকে মুক্তি দিন।’

রিজভী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আপনি অনুগ্রহ করে ফেরাউন-নমরুদ-হিটলার অথবা কল্পরাজ্যের হিরকের রাজাকে টেক্কা দেয়ার প্রতিযোগিতা করবেন না। দুই কোটি টাকার মিথ্যা মামলায় তাকে ১ বছর কারারুদ্ধ করে রাখা অন্যায়, অবিচার ও জুলুম।’

সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার বিষয়টি তুলে ধরে তিনি বলেন, তিনি যখন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন তখন তার মাথার উপর ১৫টি দুর্নীতির মামলা ছিল। সেগুলো আদালতের মাধ্যমে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। আর খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের মামলাগুলোকে চলমান রেখে তাদের সাজা দেয়া হচ্ছে আইন-আদালতকে কব্জা করে। উদ্দেশ্য তাদের রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখা।

খালেদা জিয়ার কারাগারে যাওয়ার ১ বছর পূর্তিতে শনিবার চট্টগ্রাম, হবিগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, জয়পুরহাটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিএনপির প্রতিবাদ কর্মসূচিতে পুলিশের বাধা এবং বরিশালে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আফরোজা খানম নাসরিনকে গ্রেফতারের নিন্দা জানান রিজভী।

৩০ ডিসেম্বরের ভোটে অনিয়মের ঘটনায় নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে মামলা করার বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত হয়নি জানিয়ে রিজভী বলেন, কথাবার্তা হচ্ছে, এখনও চূড়ান্ত হয়নি। মামলায় যাব কী যাব না, কিভাবে যাব, সব আসন থেকে যাব কিনা, এটা আলাপ-আলোচনার মধ্যেই আছে। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হলে আমরা গণমাধ্যমকে জানিয়ে দেব। প্রেস ব্রিফিংয়ে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, কেন্দ্রীয় নেতা মুনির হোসেন, সেলিম রেজা হাবিব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ফোনঃ +৪৪-৭৫৩৬-৫৭৪৪৪১
Email: [email protected]
স্বত্বাধিকারী কর্তৃক sheershakhobor.com এর সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত