fbpx
 

ডাকসু নির্বাচনে গায়ের জোরেই ভোট নেবে: মান্না

Pub: শুক্রবার, মার্চ ৮, ২০১৯ ১০:৫৩ অপরাহ্ণ   |   Upd: শুক্রবার, মার্চ ৮, ২০১৯ ১০:৫৩ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে ‘গায়ের জোরে ভোট নেবে, কিছুই করতে পারবেন না। আমরা ৩০ তারিখের ভোটকে বলেছি ডাকাতি, কিন্তু এখানে দিনের বেলায় ভয়ভীতি দেখিয়ে ভোট হয়ে যাবে’ -বলছিলেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না।

শুক্রবার (৮ মার্চ) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে নাগরিক ঐক্যের ঘোষণাপত্র প্রকাশ ও আলোচনা সভায় ডাকসুর সাবেক ভিপি মাহমুদুর রহমান মান্না এসব কথা বলেন। এ সময় ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় মুক্তির লড়াই-এ ঐক্যবদ্ধ হউন’ শিরোনামে ঘোষণাপত্র প্রকাশ করে নাগরিক ঐক্য।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ১০ বছরের ছাত্র রাজনীতির যে বন্ধ্যত্ব, স্থবিরতা, গতিহীনতা, সে কারণে ডাকসুর নির্বাচন ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের মত পরিণতি হবে।

তিনি বলেন, একটি দল ক্ষমতায় থেকে হল দখল করেছে, ক্যাম্পাস দখল করেছে। ভার্সিটির সব ছাত্র সংগঠনের বিকাশ নষ্ট করেছে। ডাকসু নির্বাচনে খাতির করে ১৯টি হলের মধ্যে দুই-তিনটি হল না হলে দিয়ে দেবে। তারপরে বলবে যে, গণতান্ত্রিকভাবে ভোট হয়েছে, না হলে ওরা জিতল কীভাবে?

মান্না বলেন, এমন নির্বাচনের মাধ্যমে কেউ ভিপি, কেউ জিএস হবে। একটা বড়াইয়ের ভাব হবে। গোটা ছাত্রসমাজ যে পদদলিত, পরাস্ত হয়ে গেল সেটা মনে রাখার আর কারণ চলবে না।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ৩০ তারিখ বা ‘২৯ তারিখ রাতের’ ভোট ‘ডাকাতি’ জনগণের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রযন্ত্রের যুদ্ধ। সেই যুদ্ধে নিরস্ত্র জনগণের বিরুদ্ধে নেমেছিল আওয়ামী লীগ। যারা মনে করেছে এই রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে আজীবন রাষ্ট্রযন্ত্র চালাবে, তারা ভুল করেছে। এই রাষ্ট্রযন্ত্রের কাজই হলো নড়েচড়ে তারপরে স্থান পরিবর্তন করে।

মান্না বলেন, অনেকেই প্রশ্ন করে, ভোটে গিয়ে কি লাভ হলো? আমি বলি কি লাভ হয়েছে, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে না গিয়ে ভালো, মন্দ করেছি সে বিতর্কে যাচ্ছি না। কিন্তু মানুষকে সরকার বলতে পেরেছে ওরা তো ভোটেই আসেনি। আওয়ামী লীগ ভোট চুরি, ডাকাতি করল, অন্য দলের কোনো অধিকার রাখেনি। এবার আমরা বলতে পেরেছি, ডাকাত। সরাসরি ডাকাত। এই সরকার বৈধ না, পার্লামেন্টও বৈধ না।

আলোচনা সভায় আলোকচিত্রী শহিদুল আলম বলেন, জনগণের ভীত হওয়ার কোনো কারণ নেই। সবচেয়ে ভীত সরকার। কারণ তার মধ্যে ভেজাল আছে। যার যত ভেজাল, তার তত ভয়। আমাদের এত ভীত হওয়ার কারণ নেই।

এ সময় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টা এস এম আকরাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক সি আর আবরার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষক রাশেদ আল মাহমুদ প্রমুখ।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ