জামায়াতকে জনসম্মুখে ক্ষমা চাইতে বললেন জাফরুল্লাহ

Pub: বুধবার, মে ১৫, ২০১৯ ৩:২৮ অপরাহ্ণ   |   Upd: বুধবার, মে ১৫, ২০১৯ ৩:২৮ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির মিয়া মোহাম্মাদ গোলাম সারোয়ারের সামনে ১৯৭১ সালে দেশবিরোধী ভূমিকা পালনের জন্য জামায়াতকে জনসম্মুখে ক্ষমা চাইতে বলেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘২০ দলের অন্যতম শরিক দল হচ্ছে জামায়াতে ইসলামী। তারা যদি সত্যিকার অর্থে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চায় তাহলে তাদেরকে জনসম্মুখে ক্ষমা চাইতে হবে। আজ তাদের পিতারা যে ভুল করেছেন তার জন্য বর্তমানে যারা আছে তাদেরকে জনসম্মুখে ক্ষমা চাওয়া যুক্তিসঙ্গত হবে। কারণ তাদেরও রাজনীতি করার অধিকার রয়েছে।’

বুধবার (১৫ মে) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে আব্দুস সালাম হলে এক আলোচনা সভায় ডা. জাফরুল্লাহ এসব কথা বলেন।

‘মধ্যবর্তী নির্বাচন এবং বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি’ শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি)।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চারপাশে ‘র’ পরিবেশিত। তাদের চিন্তা-চেতনার কারণেই খালেদা জিয়া আজ জেলে। আর খালেদা জিয়াকে বের করে আনতে সামগ্রিক আন্দোলন প্রয়োজন। সেই আন্দোলনের মূল ভূমিকা বিএনপিকেই রাখতে হবে। বিএনপিকে সকল প্রকার ভুল-ত্রুটি শুধরে বেগম জিয়ার মুক্তির জন্য কাজ করতে হবে।’

খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটকে রেখে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ভুল করছেন- এমন মন্তব্য করে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘আপনি (প্রধানমন্ত্রী) মহাভুল করছেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় খালেদা জিয়া তিন মাস আত্মগোপনে ছিলেন। তারপর তিনি যখন গ্রেফতার হন তখন সেনানিবাসে আবদ্ধ ছিলেন। ধানমন্ডির বাড়িতে দুজনেই একসঙ্গে ছিলেন। কিন্তু আজ একজন বন্দি আর একজন বাহিরে। আপনি যদি আত্মরক্ষা করতে চান তাহলে আর দেরি না করে খালেদা জিয়ার জামিনের ব্যবস্থা করে দিন।’

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে তিনি আরও বলেন, ‘আজ আপনি (প্রধানমন্ত্রী) যা স্বপ্ন দেখছেন, সব স্বপ্ন বিভিন্নভাবে ভুল পথে নেমে যাচ্ছে। একদিন আপনি বলেছেন, দেশে চিকিৎসা নিবেন, কিন্তু আপনি দেশে চিকিৎসা নিতে পারেননি। কেন পারেননি? আজ আপনি উন্নয়নের কথা বলছেন। কিন্তু কৃষক নিজেই খেতে আগুন দিয়ে ধান পুড়িয়ে ফেলছে, এটা কি উন্নয়নের নমুনা?’

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট প্রসঙ্গে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘৩০ তারিখের নির্বাচন ২৯ তারিখে হওয়াটা ঐক্যফ্রন্টর একটা ব্যর্থতা বলতে পারেন। আর কোনও সুযোগ নাই। তাই সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।’

এলডিপির সভাপতি কর্নেল অলি আহমেদের সভাপতিত্বে গোলটেবিল আলোচনা সভায় জামায়াতের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির মিয়া মোহাম্মাদ গোলাম সারোয়ার, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর: (অব:) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতীক, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, এলডিপির মহাসচিব ড: রেদোয়ান আহমেদ, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, সাবেক এমপি গোলাম মাওলা রনি, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমতউল্লাহ ও নিলুফার চৌধুরী মনি প্রমুখ বক্তব্য দেন।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ

সংবাদটি পড়া হয়েছে 1082 বার