fbpx
 

প্রধানমন্ত্রীর প্রতি ন্যাপ : মুক্তিযোদ্ধা খোকার শেষ ইচ্ছা পূরনে মানবিক বিবেচনা করুন

Pub: Sunday, November 3, 2019 8:28 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র, সাবেক মন্ত্রী ও ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানী সাদেক হোসেন খোকার শেষ ইচ্ছা পূরনে মানবিক বিবেচনা জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

রবিবার (২ নভেম্বর) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এ আহ্বান জানান।

তারা বলেন, ১৯৭১ এর রণাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকা দূরপ্রবাসে মৃত্যুর অপেক্ষায় বেঁচে আছেন। এই বীর মুক্তিযোদ্ধার শেষ ইচ্ছা অনুসারে তাকে স্বদেশে ফেরার পেছনের সকল প্রতিবন্ধকতা অপসারণের ব্যবস্থা করার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে আশা প্রকাশ করি।

নেতৃদ্বয় বলেন, রাজনৈতিক মতপার্থ্ক্য ও মতবিরোধ থাকার পরও সকলেই স্বীকার করবেন যে, সাদেক হোসেন খোকা সারা জীবন দেশ ও জাতির উন্নয়নে কাজ করেছেন। খোকা কেবল একজন মুক্তিযোদ্ধাই নন, তিনি মেয়র হওয়ার পর রাজধানী ঢাকার অনেকগুলো সড়কের নাম মুক্তিযুদ্ধের সকল সেক্টর কমান্ডার ও খেতাবধারী মুক্তিযোদ্ধাদের নামে নামকরণ করেছিলেন। তিনিই প্রথম বিজয় দিবসে নগরভবনে মুক্তিযোদ্ধাদের মিলনমেলার আয়োজন করেছিলেন। অথচ তার মতো একজন দেশপ্রেমিক মানুষের জীবিত কিংবা মৃত অবস্থায় দেশে ফেরা অনিশ্চিত। এর চেয়ে পরিতাপের আর কি হতে পারে? মৃত্যুর পর কোনো বিশেষ ব্যবস্থায় তার মরদেহ দেশে নেয়া সম্ভব হলেও পাসপোর্ট না থাকায় স্ত্রী ইসমত হোসেন সঙ্গে যেতে পারবেন না। সেটা হবে আরো মর্মান্তিক বিষয়।

তারা বলেন, নিউ ইয়র্কের একটি ক্যান্সার সেন্টারে চিকিৎসাধীন খোকার শারীরিক অবস্থার পরিবর্তনের আশা ছেড়ে দিয়েছেন চিকিৎসকরা। তারা খোকার সব চিকিৎসা বন্ধ করে দিয়েছেন। খোকার জীবনের শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী অন্তিম সময়ে তাকে দেশে নেয়াও পরিবারের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। পাসপোর্ট না থাকায় দেশে ফিরতে পারছেন না তিনি। পরবর্তী সময়ে কী হবে, এ নিয়ে স্বজনরা গভীর দুর্ভাবনায় পড়েছেন।

এ অবস্থায় সরকার প্রধানের কাছে আবেদন জানিয়ে নেতৃত্বয় বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কণ্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে সকল বাধা দূর হয়ে জীবনের শেষ ক’টা মুহুর্ত স্বদেশের আলো-বাতাসে প্রাণভরে নিশ্বাস নেয়ার সুযোগ করে দিবেন বলে আশা করি।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ