fbpx
 

ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেই তরিকুলের প্রতি সম্মান জানাবো: দুদু

Pub: Tuesday, November 5, 2019 10:04 PM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী মরহুম তরিকুল ইসলামের স্মৃতিচারণ করলেন কৃষক দলের আহবায়ক ও বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদ।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘আমরা তখনই তরিকুল ইসলামের প্রতি সম্মান জানাতে পারবো যখন এই দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে পারব। মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারব। সুষ্ঠু বিচার ব্যবস্থা চালু করতে পারব। কারণ তিনি দেশে গণতন্ত্র, ভোটার অধিকার, সুষ্ঠু বিচার ব্যবস্থার জন্য আন্দোলন করে গেছেন এবং আন্দোলন করতে করতেই মরে গেছেন। তরিকুল ইসলামের কাছ থেকে আমরা যা পেয়েছি যে আদর্শ পেয়েছি— সেটি অমূল্য সম্পদ।’

মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের মিলনায়তনে তরিকুল ইসলাম স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে তরিকুল ইসলাম এর স্মরণসভায় তিনি এ স্মৃতিচারণ করেন।

তরিকুল ইসলামের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, ‘তরিকুল ইসলাম যেদিন থেকে রাজনীতি শুরু করেছেন সেদিন থেকে এদেশের স্বাধীনতা গণতন্ত্র এবং কৃষক শ্রমিকের পক্ষে কাজ করে গেছেন। তারপরও তার জীবন নিয়ে যদি আমরা বিশ্লেষণ করি তাহলে দেখবো তার অর্থের প্রতি লোভ ছিলেন না, বিলাসিতা প্রতি আকৃষ্ট হতেন না, তিনি আরাম-আয়েশের দিকে থাকেন নাই।’

সাবেক ছাত্রদলের এই সভাপতি বলেন, ‘তরিকুল ইসলাম সারা জীবন কষ্ট করেছেন। দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য জেল জুলুম অত্যাচার নির্যাতন সহ্য করেছেন। তার মতো করে সাধারণ মানুষের সাথে মেশা, কথা বলা অনেকেরই সে ক্ষমতা ছিল না। তিনি যদি কখনো কারো সাথে একটু রাগ করতেন পরবর্তীতে তিনি তাকে কাছে ডেকে নিয়ে ভালোবাসতেন এবং বলতেন— ‘তোর সাথে একটু রাগ করেছি তখন মাথা গরম ছিল মনে কিছু করিস না।’ তিনি ভুলতেন কম জানতেন অনেক।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমান দেশের যে অবস্থা এই অবস্থায় দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য আমরা যারা আন্দোলন করছি। আমরা তরিকুল ইসলামের শুন্যতা অনুভব করছি। এই সময় তার খুব দরকার ছিল।’

বিএনপির এই ভাইস-চেয়ারম্যান আরেক ভাইস-চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকার কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘সাদেক হোসেন খোকা ও তরিকুল ইসলাম একই লাইনের মানুষ তারা দুজনেই গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করে গেছেন। সাদেক হোসেন খোকাকে আমরা পাব আর একটা দিন পরে। তবে জীবিত না মৃত অবস্থায়। তার মাগফেরাত কামনা করি এবং এই দুজনের আদর্শকে আমরা ধরে রাখার চেষ্টা করি।’

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, সেলিমা রহমান, নিতাই রায় চৌধুরী, যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু প্রমুখ।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ