অভিযোগ দেয়ার পরও পদক্ষেপ নেই ইসির: বিএনপির মেয়র প্রার্থী

Pub: Thursday, January 16, 2020 3:22 AM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রচারে নানা শঙ্কার কথা জানিয়েছেন বিএনপির দুই মেয়রপ্রার্থী। পোস্টার ছেঁড়াসহ কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলার বিষয়ে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) প্রতিদিন অভিযোগ দেয়া হলেও কোনো পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না- এমন অভিযোগ ধানের শীষের দুই প্রার্থীর।

উত্তরের মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেছেন, প্রতিদিন নতুন নতুন পদ্ধতিতে প্রচারে বাধা দেয়া হচ্ছে। এতদিন বিএনপি প্রার্থীদের পোস্টার ছিঁড়ে ফেলা হতো। এখন মাইক কেড়ে নেয়া হচ্ছে। পোস্টার না লাগাতে হুমকিধমকি দেয়া হচ্ছে। হামলা করা হচ্ছে। অনেককে গ্রেফতারও করা হচ্ছে। আর দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন দাবি করেছেন, বর্তমানে যে নির্বাচনী পরিবেশ, এটা লেভেল প্লেয়িংয়ের নমুনা হতে পারে না।

বুধবার সকালে উত্তর বাড্ডা রহমাতুল্লাহ গার্মেন্টের সামনে থেকে ষষ্ঠ দিনের মতো প্রচার শুরু করেন তাবিথ আউয়াল। আর দুপুরে ধানমণ্ডিতে বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন ইশরাক হোসেন। এ সময় দুই প্রার্থীর সঙ্গে কেন্দ্রীয় ও নগর নেতাদের পাশাপাশি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী প্রচারে অংশ নেন।

ইশরাকের প্রচার

ঢাকা দক্ষিণে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন দাবি করেছেন, রাজনৈতিকভাবে হেয় করতেই সরকার এক-এগারোর মামলা সচল করেছে। বুধবার সন্ধ্যায় বাংলামোটর এলাকায় গণসংযোগকালে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

এর আগে দুপুর ১টায় ধানমণ্ডি বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন ইশরাক হোসেন।

এ সময় তিনি অভিযোগ করেন, সন্ত্রাসীরা অনেক জায়গায় ধানের শীষের পোস্টার লাগাতে বাধা দিচ্ছে। বিভিন্ন স্থানে লাগানো পোস্টার ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে। কর্মীদের মারধর ও পুলিশে ধরিয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হচ্ছে। এসব বিষয়ে নির্বাচন কমিশনে আমরা প্রতিদিনেই অভিযোগ করছি। কিন্তু কমিশনের দিক থেকে কোনো উদ্যোগ দেখছি না।

সরস্বতী পূজার দিন ভোট প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জাবাবে ইশরাক হোসেন বলেন, অবশ্যই নির্বাচন কমিশনকে বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করা উচিত। মুসলমানদের ঈদের দিন এমন একটি আয়োজন হলে আমাদেরও খারাপ লাগত। তবে যেহেতু বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে, তাই এ ব্যাপারে চূড়ান্ত কোনো মন্তব্য করতে চাই না।

গণসংযোগকালে রাস্তার দু’পাশে দাঁড়িয়ে থেকে নারী-পুরুষসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ হাত নেড়ে, করতালি দিয়ে ধানের শীষের প্রার্থীর প্রতি সমর্থন জানান।

ইশরাকও হাত নেড়ে তাদের শুভেচ্ছার জবাব দেন। ধানমণ্ডি, হাজারীবাগ, জিগাতলা, কলাবাগান, স্যায়েন্স ল্যাবরেটরি, সেন্ট্রাল রোড, হাতিরপুল, এলিফ্যান্ট রোড, নীলক্ষেতের বিভিন্ন এলাকায় ও অলিগলিতে যান এবং ভোটারদের কাছে ধানের শীষের প্রতীকে ভোট চেয়ে লিফলেট দেন।

বিভিন্ন জায়গায় নারী ভোটাররাও ইশরাককে শুভেচ্ছা জানাতে ঘর থেকে রাস্তায় নেমে আসেন শিশুসন্তানকে কোলে নিয়ে। প্রচারে নেমে ইশরাককে ছোট্ট শিশুকে কোলে নিয়ে আদর করতেও দেখা গেছে।

গণসংযোগকালে ইশরাকের সঙ্গে ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেল, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, অ্যাডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহ উদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন প্রমুখ। এ ছাড়াও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মীও ছিলেন।

এদিকে বিকালে ইশরাক হোসেনের পক্ষে প্রচার চালান তার প্রচার কমিটির আহ্বায়ক বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদের নেতৃত্বে দলের নেতাকর্মীরা। তারা রামকৃষ্ণ মিশন, ইত্তেফাক মোড়সহ পুরান ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় প্রচারে অংশ নেন। এ সময় আরও ছিলেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য কাজী রফিক, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আবদুল হাই পল্লব, ছাত্রদলের নাসির সরদার শাওন, আবুল খায়ের প্রমুখ।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় যাত্রাবাড়ীর দয়াগঞ্জ মোড় থেকে প্রচার শুরু করবেন ইশরাক হোসেন। পরে দিনভর ৪৮, ৪৯, ৫০, ৬২, ৬৩, ৬৪ ও ৬৫নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন জায়গায় গণসংযোগ করবেন তিনি।

তাবিথের প্রচার

ঢাকা উত্তরে বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেছেন, নির্বাচনী প্রচারে বাধা দেয়ার ক্ষেত্রে নতুন নতুন ধারা দেখছি। আগে পোস্টার ছেঁড়া হতো। এখন অনেক জায়গায় ব্যাটারিসহ মাইক নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। কিছু ক্ষেত্রে ফেরত দিচ্ছে, কিছু ক্ষেত্রে হদিস পাওয়া যাচ্ছে না।

বুধবার সকালে উত্তর বাড্ডার রহমতুল্লাহ গার্মেন্ট থেকে গণসংযোগ শুরুর আগে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

নির্বাচনের জন্য সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরিতে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) প্রতি আবারও আহ্বান জানিয়ে তাবিথ আউয়াল বলেন, লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড (সবার জন্য সমান সুযোগ) করে সবার জন্য একটি সুস্থ পরিবেশ তৈরি করুন। নির্বাচনের আরও ১২ দিন বাকি আছে। প্রতিটি দিন যেন সবাই সুস্থভাবে প্রচার চালাতে পারেন।

বাড্ডা এলাকার সমস্যা তুলে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী বলেন, এই এলাকা নতুন করে সিটি কর্পোরেশনে যুক্ত হয়েছে। কিন্তু নাগরিক সুবিধা নেই। রাস্তাঘাট খারাপ। সড়কে বাতি নেই। কর্মজীবী নারীদের জন্য এখনও অনিরাপদ। গত মৌসুমে এ এলাকার মানুষ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে। তিনি প্রতিশ্রুতি দেন, মেয়র নির্বাচিত হলে নাগরিকদের নিরাপত্তাসহ সব রকমের ব্যবস্থা নেবেন।

নির্বাচনী প্রচারে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আতিকুল ইসলামের চা বানিয়ে প্রচারণায় জনগণকে আকৃষ্ট করা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে তাবিথ আউয়াল বলেন, আমার প্রতিপক্ষ তার নির্বাচনী প্রচার যেভাবে পারেন, করবেন। এ ব্যাপারে আমি কিছু বলব না।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, নিপুণ রায় চৌধুরী, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, ঢাকা মহানগরের আহসান উল্লাহ হাসান, যুবদলের সাইফুল আলম নীরব, এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন, মহিলা দলের সুলতানা আহমেদ প্রমুখ।

সকালে উত্তর বাড্ডার ৪১নং ওয়ার্ডের সাঁতারকুল, মেরাদিয়া, জোয়ারসাহারা, পশ্চিম পদরদিয়া, পূর্ব পদরদিয়া, ইসলামবাগ হয়ে ৪২ নম্বর ওয়ার্ডের মগাইর থেকে শুরু হয়ে রহমাতুল্লাহ কলেজ, আকছারটেক, বেরাইদ, নামার বাজার হয়ে ফকিরখালি পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন। এ সময় বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে ভোট চেয়ে লিফলেট বিতরণ করেন তাবিথ।

দুপুরে উত্তর বাড্ডার বেরাইদ এলাকায় নির্বাচনী দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের উদ্দেশে তাবিথ আউয়াল বলেন, আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। মনোবল ভাঙা যাবে না। যত সমস্যাই আসুক মোকাবেলা করে বিজয়ী হতে হবে। তিনি এ সময় নিজের প্রতীক ধানের শীষ ছাড়াও ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী নবী হোসেন (ঘুড়ি প্রতীক) ও নারী কাউন্সিলর প্রার্থী সালেহা ইসলামের (আনারস প্রতীক) পক্ষে ভোট চান।

আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় পান্থপথের বসুন্ধরা সিটির সামনে থেকে প্রচার শুরু করবেন তাবিথ আউয়াল। তিনি দিনভর ২৬, ২৭ ও ২৮নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করবেন।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
নিউজটি পড়া হয়েছে 1001 বার

Print

শীর্ষ খবর/আ আ