সতর্কতার সঙ্গে আচরণবিধি অনুসরণের প্রতিশ্রুতি আ’লীগের মেয়র প্রার্থীদের

Pub: Thursday, January 16, 2020 3:21 AM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি নির্বাচনে আচরণবিধি মেনে চলার বিষয়ে সতর্ক থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের মেয়র প্রার্থীরা। নির্বাচনী প্রচারের ষষ্ঠ দিনে (বুধবার) তারা এমন প্রতিশ্রুতি দেন। পাশাপাশি বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে লিফলেট বিতরণ করেন এবং তাদের কাছে নৌকা মার্কায় ভোট চান।

বিভিন্ন ওয়ার্ডে প্রচারকালে যানজটমুক্ত পরিকল্পিত শহর গড়ে তোলার কথা বলেন ঢাকা উত্তরের আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। অন্যদিকে ঢাকাবাসীর প্রত্যাশা পূরণে দায়িত্ব পাওয়ার প্রথম দিন থেকে কাজ শুরু করার ঘোষণা দিয়েছেন দক্ষিণের প্রার্থী ফজলে নূর তাপস।

বুধবার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর ফার্মগেটের আল-রাজী হাসপাতালের সামনের খালি জায়গায় সংক্ষিপ্ত পথসভায় অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে প্রচারণা শুরু করেন উত্তরের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। এ সময় তিনি বলেন, আমরা একটি পরিকল্পিত শহর গড়ে তুলতে চাই। এজন্য ঘরে ঘরে উন্নয়নের মার্কা নৌকা পৌঁছে দিতে হবে।

আতিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের চ্যালেঞ্জ আছে অনেক কিন্তু আপনাদের নিয়ে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে সুন্দর ঢাকা শহর গড়ে তুলব। প্রথমেই ঢাকা শহরে যানজটমুক্ত করার উদ্যোগ নেব। বাস মালিকদের সঙ্গে বসে বাস রুট ‘রেশনালাইজেশনের’ কাজ করতে চাই।

তিনি আরও বলেন, আমরা মাদকের বিরুদ্ধে একটি সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলব। নৌকা প্রতীক মানে উন্নয়নের প্রতীক। উন্নয়ন চলছে, চলবে। আর এজন্য নৌকা মার্কায় ভোট দিতে হবে আপনাদের। ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা আমাদের আরেকটি চ্যালেঞ্জ। জলাবদ্ধতা নিরসনে ইতিমধ্যে পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। আশা করছি, পর্যায়ক্রমে ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা নিরসন করতে পারব।

আওয়ামী লীগের এই মেয়র প্রার্থী বলেন, গত নয় মাসে যথেষ্ট অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। এই কঠোর অনুশীলনের ‘ইফেক্ট’ আগামীতে সুন্দরভাবে প্রয়োগ করতে পারব যদি আপনারা আমাকে নৌকা মার্কায় নির্বাচিত করেন। নৌকার কোনো ‘ব্যাক গিয়ার’ নেই। নৌকার গিয়ার শুধু উন্নয়নের গিয়ার। আশা করছি, একটি সুন্দর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সেই নির্বাচনে জনগণ ভোট দিয়ে নৌকাকে নির্বাচিত করবেন।

এর আগে সকাল ১০টা থেকে আল-রাজী হাসপাতালের সামনে পিকআপ ভ্যানে সাউন্ডবক্সে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ‘থিম সং’ বাজতে থাকে। দলীয় নেতাকর্মীরা স্লোগান দিতে থাকেন বিরতিহীনভাবে। এ সময় ফার্মগেট এলাকায় কিছু সময়ের জন্য যানজটের সৃষ্টি হয়।

হাসপাতালের সামনে এমন নির্বাচনী প্রচার প্রসঙ্গে আতিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, এখানে স্থানীয় কাউন্সিলর শামীম হাসান আছেন। তিনি এখানে সমাবেশের ব্যবস্থা করেছেন। আর আমরা এখানে সারাক্ষণের জন্য সমাবেশ করছি না।

আবার এখানে আমরা বড় মাইকও ব্যবহার করছি না। ২৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী শামীম হাসান বলেন, এটা হাসপাতাল নয়। এখানে বিকালে রোগী দেখা হয়, এটি ডাক্তারদের চেম্বার।

এরপর ঢাকা ১২ আসনের অন্তর্ভুক্ত ২৩, ২৪, ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের হলিক্রস স্কুল গলি, ছাপরা মসজিদ, তেজকুনিপাড়া, লুকাসের মোড়, রেলগেট, নাবিস্কো, বেগুনবাড়ী ও তেজগাঁও এলাকায় নির্বাচনী গণসংযোগ করেন আতিকুল। এ সময় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বাংলাদেশের মানচিত্রখচিত লাল-সবুজ রংয়ের টি-শার্ট পরেছিলেন।

এ সময় তার সঙ্গে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচি, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। প্রচারণার ফাঁকে নেতাকর্মীদের নিয়ে একটি হোটেলে দুপুরের খাবার খান আতিকুল ইসলাম।

এদিন প্রচারে অংশ নিয়ে চিত্রনায়ক রিয়াজ, নায়িকা বাঁধন, তারানা হালিম, সাবেক ফুটবলার কায়সার হামিদসহ তারকারা আতিকুলের পক্ষে ভোট চান। পাশাপাশি তারা পথচারীদের কাছে ভোট চেয়ে লিফলেট বিতরণ করেন। তাদের ঘিরে সাধারণ মানুষের উৎসাহ দেখা গেছে।

বিকাল ৩টায় বাঙলা কলেজে ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সঙ্গে এবং সন্ধ্যা ৬টায় বিএফডিসিতে চলচ্ছিত্র শিল্প সমিতির সঙ্গে মতবিনিময় করেন আওয়ামী লীগের এই মেয়র প্রার্থী। আর সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় ফার্মগেটের একটি রেস্টুরেন্টে খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় অংশ নেন।

তাপসের প্রচার

কদমতলী-শ্যামপুর এলাকা থেকে ষষ্ঠ দিনের মতো প্রচার শুরু করেন ঢাকা দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস। এ সময় প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি।

রাজধানীর ধোলাইপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এক নির্বাচনী পথসভায় শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, নির্বাচনে নেতাকর্মী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ কিন্তু মাঠে নেমে গেছে। একটা উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচনের আমেজ বজায় রেখেছে। আমরা আশা করি, অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে নির্বাচনটা সম্পন্ন হবে এবং প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের উৎসবমুখর পরিবেশ বজায় থাকবে।

মেয়র নির্বাচিত হলে প্রথম দিন থেকে কাজ শুরু করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তিনি বলেন, গত পাঁচ দিন ঢাকাবাসীর কাছ থেকে আমরা গণসংযোগে ব্যাপক স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া পাচ্ছি। আমরা যে উন্নয়নের রূপরেখা দিয়েছি পাঁচভাবে বিভক্ত করে, ঢাকাবাসী সেটা সাদরে গ্রহণ করেছে। তারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন এবং আমাদের অনেক ভালোবাসা দিয়ে আলিঙ্গন করছেন। আমি বিশ্বাস করি, ৩০ জানুয়ারি বিপুল ভোটে নৌকার বিজয় হবে। আমরা ঢাকাবাসীর প্রত্যাশা পূরণে দায়িত্ব পাওয়ার প্রথম দিন থেকে কাজ আরম্ভ করব এবং উন্নত ঢাকা গড়ে তুলব।

আচরণবিধি লঙ্ঘন নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী বলেন, কোনো ধরনের কাজে যাতে আচরণবিধি লঙ্ঘন না হয়, সেজন্য আমাদের মনিটরিং টিম সার্বক্ষণিকভাবে কাজ করছে। সেদিকে আমরা খুব সজাগ ও সতর্ক দৃষ্টি রাখছি। যেখানে আমরা জানতে পারছি, সেখানে সঙ্গে সঙ্গে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি। আমাদের নির্বাচন পরিচালনা কমিটিও সার্বিকভাবে কাজ করছে।

একই সঙ্গে এলাকাভিত্তিক যে নির্বাচনী মনিটরিং টিম করেছি, তারাও কাজ করছে। মানুষের মধ্যে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। একটি গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। এজন্য হয়তো জনগণের কিছুটা অসুবিধা হতে পারে। তবে যা হোক, আমরা এই বিষয়টি আরও সচেতনভাবে দেখব।

শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, আপনারা লক্ষ করেছেন, আমি যেখানেই যাচ্ছি, সেখানে কিন্তু সবাইকে নির্দেশনা দিচ্ছি, তারা যেন সুশৃঙ্খলভাবে প্রচারণায় অংশগ্রহণ করেন। জনগণের যেন কোনো ভোগান্তি না হয়।

সরস্বতী পূজার জন্য নির্বাচন পেছানোর দাবি প্রসঙ্গে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, তফসিল ঘোষণার পর প্রার্থী হিসেবে আমি নির্বাচনী প্রচারণা করছি। আমি যেটা জেনেছি, নির্বাচন কমিশন আলাপ করেছিল। কিন্তু পঞ্জিকা অনুযায়ী হয়তো একটু ভুল হয়ে গেছে। তাদের প্রতি সমবেদনা-সহমর্মিতা রয়েছে। কিন্তু এখন যেহেতু নির্বাচনের তারিখ নির্ধারিত হয়েছে, সেহেতু আমার নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যেতে হবে। আমি আশা করি, সবাই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। গণসংযোগকালে মীরহাজীরবাগ ও শ্যামপুর এলাকার মানুষের কষ্ট লাঘবে এখানকার পানির সমস্যা দূর করার আশ্বাস দেন শেখ ফজলে নূর তাপস।

এ সময় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, সানজিদা খানম, স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঢাকা দক্ষিণের সভাপতি কামরুল হাসান রিপন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে আজ বেলা ১১টায় মিরপুর-১২ নম্বরের আলোকদি ঈদগাহ মাঠ থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু করবেন ঢাকা উত্তরের আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। পরে সেকশন-১১-এর পলাশনগর, সেকশন-১০, সেকশন-১২, পল্লবী মিল্কভিটা ও রূপনগর এলাকায় গণসংযোগ করবেন তিনি।

অন্যদিকে বেলা ১১টায় বিডিআর ৩ নম্বর গেট থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু করবেন দক্ষিণের আওয়ামী লীগের প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। এ সময় এলাকাবাসীসহ আওয়ামী লীগ ও সব অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা প্রচারণায় অংশ নেবেন। দিনব্যাপী প্রচারণায় নিজে উপস্থিত থেকে ভোটারদের কাছে নৌকা মার্কায় ভোট চাইবেন তিনি।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
নিউজটি পড়া হয়েছে 1001 বার

Print

শীর্ষ খবর/আ আ