“যদি হতে পার,কবি নজরুলের মত “আমি সৈনিক” তবেই মুক্ত খালেদা জিয়া, তবেই মুক্ত এদেশের গণতন্ত্র “

Pub: শুক্রবার, মে ২৪, ২০১৯ ৫:১৭ অপরাহ্ণ   |   Upd: শুক্রবার, মে ২৪, ২০১৯ ৫:২৬ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সায়েক এম রহমান :

এক.

কাজী নজরুল ইসলামের,,,, অগ্নি বীণা, বিষের বাঁশী, মরুভাস্কর, সাম্যবাদী, সঞ্চিতা, সন্ধ্যা, জিঞ্জির, প্রলয় শিখা, দোলন চাঁপা,সিন্ধু হিন্দোল,ছায়ানট, দুর্দিনের যাত্রী, ঝিঙে ফুল, চন্দ্রবিন্দু ও নতুন চাঁদ, এভাবে অগনিত কাব্যগ্রন্হ, জীবনী গ্রন্হ, ও মহাকাব্য গুলি যাকে চীর অমর করে রেখেছে, তিনি হলেন বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম। আজ ২৪ মে তাঁহার ১২০তম জম্মবার্ষিকী। লক্ষ কোটি মানুষের প্রাণপ্রিয় কবি,অমর কবি, বিদ্রোহী কবির আত্নার মাগফেরাত কামনা করি এবং সাথে বিনম্র শ্রদ্ধা ও অফুরন্ত ভালোবাসা জানিয়ে, তাঁহার ঐতিহাসিক “দুর্দিনের যাত্রী ” গ্রন্হের ” আমি সৈনিক ” প্রবন্ধটি দিয়ে আজকের আমার রচনা শুরু করছি।

এখন দেশে সেই সেবকের দরকার, যে সেবক সৈনিক হতে পারবে।
সেবার ভার নেবে নারী কিংবা সেই পুরুষ, যে পুরুষের মধ্যে নারীর করুণা প্রবল। নারীর ভালোবাসা আর পুরুষের ভালোবাসা বিভিন্ন রকমের। নারীর ভালোবাসায় মমতা আর চোখের জলের করুণাই বেশী। পুরুষের ভালোবাসায় আঘাত আর বিদ্রোহীই প্রধান।
দেশকে যে নারীর করুণা নিয়ে সেবা করে, সে পুরুষ নয়, হয়তো “মহাপুরুষ “। কিন্তু দেশ এখন চায়,,,, সেই পুরুষ যার ভালোবাসায় আঘাত আছে, বিদ্রোহ আছে। যে দেশকে ভালোবাসে শুধু চোখের জলই ফেলবে না, সে দরকার হলে,আঘাত করবে, প্রতিঘাতও বুক পেতে নেবে, বিদ্রোহ করবে।

দুই.

পাঠক,,,, দেশের মানুষ কিন্তু সরকারের বিভিন্নরকম অনাচার অত্যাচারের দরুন অতিষ্ঠ হয়ে গণবিপ্লব মূখী হয়ে আছে। কিন্তু হলে কি হবে? মাঠের বিরোধী দল আছে নিরামিষ রাজনীতি আর নিরামিষ আন্দোলন নিয়ে ব্যস্ত। তৃর্ণমূল নেতাকর্মীরা যা চাচ্ছে তা পাচ্ছে না। দিন দিন বড় নেতাদের প্রতি তাদের আস্তা ও বিশ্বাস লোপ পাচ্ছে। কারন চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়া আজ ১৫ মাসের উপরে হয়ে গেছে কারাগারে। বড় নেতাদের বক্তব্য শুনতে শুনতে নেতাকর্মীদের কান বুতা হয়ে গেছে। নেতাদের কাছ থেকে কোন কর্মসূচি আসে না। শুধু হলে হলে গিয়ে সান্তনা বক্তব্য, বড়জোর মানব বন্ধন, নেতাকর্মীদের মাথায় হাত বুলানো, সভা সেমিনারে চোখের জল ফেলা, আর অসুস্থ বা জখম হলে হাসপাতালে রোগী দেখা। আমার প্রিয় কবির ভাষায়,,,,, এই মহুর্তে সেই সেবকের দরকার নাই। এখন প্রয়োজন আমি সৈনিক সেবকের।

পাঠক,,,,, কবি কিন্তু এখানে আমি সৈনিক প্রবন্ধটির মাধ্যমে খুবই চমৎকার ভাবে তুলে ধরেছেন দেশ সেবার দুটি পথ। একটি হলো স্নেহময়, প্রেম, ভালোবাসা আর অন্যটি হলো আঘাত, প্রতিঘাত ও বিদ্রোহ। কবি এখানে পরিস্কার করে বলে গেছেন,,,,, যে নারীর করুণা স্নেহ, প্রেম, ভালোবাসা ইত্যাদি নিয়ে দেশকে ভালবাসে সে পুরুষ নয়, হয়তো সে “মহাপুরুষ “। কিন্তু দেশতো আজ চায়,,,সেই পুরুষ যার ভালোবাসায় আঘাত আছে, হিংসা আছে, বিদ্রোহ আছে। যে পূজার নয়, ঘৃণার। যে দেবতার নয়, হিংস্রর।

কারণ,,,আজ এক এক করে দশ বৎসরের উপরে হতে চলছে, একটা ফ্যাসিবাদী সরকারের, একটি অবৈধ সরকারের, ষ্টিম রুলারে দেশের মানুষ হামলা, মামলা, হত্যা,খুন,গুম, ক্রসফায়ার, ব্যাংক ডাকাতি, ভোট ডাকাতি, ইত্যাদিতে গণতান্ত্রিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক মহা সঙ্কটের ভারে মানুষ দিশেহারা ও শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতির সম্মুখীন। শুধু তাই নয়, আজ একটি দেশের সবচাইতে জনপ্রিয় নেত্রী,সাবেক তিনবারের প্রধান মন্ত্রী, গণতন্ত্রের প্রতীক,বেগম খালেদা জিয়াকে একটি টুনকো মামলায় সম্পূর্ণ অন্যায় ভাবে বিনা চিকিৎসায় ৭৩ বৎসর বয়সে জেলবন্দী করে রাখছে এবং বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকেও অন্যায় ভাবে উদ্দেশ্য প্রণোদিত মামলায় রায় দিয়ে দেশান্তরে রাখছে।
অপরদিকে ফ্যাসিষ্ট প্রধানমন্ত্রী তাঁহার চোখের ছানি কাটানোর জন্য বিশাল বহর নিয়ে লন্ডনে গিয়ে কয়েক শত কোটি টাকা বাজেট করলেন। এছাড়া তাহার ভাইরাল ফোনালাপে প্রধানমন্ত্রী সগৌরবেই বললেন,” বিএনপির তারেককে জানিয়ে দিয়েন, তারেক যদি বেশী বাড়াবাড়ি করে, তা হলে তার মা জীবনেও জেল থেকে বের হতে পারবে না। এই হলো ফ্যাসিষ্টের অবস্হা!
আজ দেশটির ভাগ্য আকাশে কাল মেঘ জমা হয়ে আছে। বাংলাদেশ এযাবৎ সব চেয়ে কঠিন সময় পার করছে। এছাড়া হাওর পাড়ের কৃষক থেকে শুরু করে, গ্রামগঞ্জ শহরতক আকাশে বাতাসে সাধারণ মানুষের ক্রন্দন আর ক্রন্দন শোনা যাচ্ছে।

তিন.

এমতাবস্থায় গণতন্ত্রের প্রতীক,আপোষহীন নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বড়ই প্রয়োজন। আজ এদেশের গণতন্ত্রকে উদ্ধার করতে হলে, বেগম খালেদা জিয়াকে উদ্ধার করতে হবে। আর বেগম খালেদা জিয়াকে উদ্ধার করতে হলে,,,, বিদ্রোহী কবি নজরুলের ভাষায় প্রতিটি জাতীয়তাবাদ বিশ্বাসী মানুষকে “আমি সৈনিকের “ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে হবে। তাই কবি বলছেন, ” দেশে এখন সেই সেবকের দরকার, যে সেবক সৈনিক হতে পারবে।

আজ লক্ষ কোটি মানুষের প্রাণের কবি, বিদ্রোহী কবি, কাজী নজরুল ইসলামের ১২০তম জম্মবার্ষিকীতে বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদ বিশ্বাসী প্রতিটি মানুষকে “আমি সৈনিক ” প্রবন্ধের সাথে একাত্নতা প্রকাশ করে, বলতে হবে,,,,,,, আমি প্রলয়ের, আমি প্রেমের নই। আমি রুদ্রের, আমি করুণার নই। আমি সেবার নই, আমি যুদ্ধের। আমি সেবক নই, আমি সৈনিক।
আমি পূজার নই, আমি ঘৃণার। আমি অবহেলার, আমি অপমানের। আমি দেবতার নই, আমি হিংস্র, বন্য, পশু। আমি সুন্দর নই, আমি বীভৎস। আমি বুকে নিতে পারি না, আমি আঘাত করি।
তবেই মুক্ত হবে বেগম খালেদা জিয়া, তবেই মুক্ত হবে এদেশের গণতন্ত্র।

লেখক :
লেখক ও উপদেষ্টা সম্পাদক
শীর্ষ খবর ডটকম
[email protected]


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ