fbpx
 

সিলেটে দুই প্রার্থীর প্রচারণায় মুহিত

Pub: Saturday, March 16, 2019 1:15 AM
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সিলেট থেকে :
এখন তিনি মন্ত্রী নন। আগের মতো প্রভাব নেই। নিজেকেও গুটিয়ে নিয়েছেন অনেকখানি। নিতান্তই প্রয়োজনের বাইরে চলেন না। এরপরও সম্পর্ক ভুলেননি এখনো। তিনি হলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। সম্পর্কের খাতিরে তিনি ঢাকা থেকে সিলেটে এসে দুই উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন। দিয়েছেন বক্তব্যও।

তার এই উপস্থিতি ভোটের মাঠে অনেক বেশি প্রভাব পড়ছে। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সব মান-অভিমান ভুলে এই দুই প্রার্থীর পক্ষে মাঠে সক্রিয় হয়ে নেমেছেন। তারা নৌকার পক্ষে ঐক্যবদ্ধও হয়েছেন। বদলে গেছে পরিস্থিতিও। এখন জয়ের স্বপ্ন দেখছেন ওই দুই প্রার্থী। এর মধ্যে একজন হলেন সিলেট সদর উপজেলার আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আশফাক আহমদ ও অপরজন বিশ্বনাথ উপজেলার আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী এসএম নুনু মিয়া। বিগত ১০ বছর ধরে সিলেট সদর উপজেলার কর্তৃত্ব উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদের কাছে। তিনি পরপর দুই বার এ উপজেলা থেকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। আর সাবেক অর্থমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠজন হওয়ার কারণে তিনি এ উপজেলায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। সাবেক মন্ত্রীর মুহিতেরও নির্বাচনী এলাকা এটি। এ কারণে তিনি আশফাককে দিয়ে কাজ করাতে দ্বিধাবোধও করেননি। আশফাকও সিলেটের ভোট প্রচারণায় বলে বেড়াচ্ছেন- সাবেক অর্থমন্ত্রীর দেয়া টাকায় তিনি সিলেট সদরকে আধুনিক উপজেলায় রূপান্তর করেছেন। এবার হ্যাট্রিক চান্সে প্রার্থী আশফাক আহমদ। কিন্তু ভোটের মাঠ এবার সহজ নয় তার জন্য। এর কারণ- এ উপজেলায় এবার তার সঙ্গে বিদ্রোহী হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট নুরে আলম সিরাজী। এ কারণে আওয়ামী লীগে দ্বিধা-বিভক্তি ছিল। নৌকার পক্ষে থাকলেও ভোটের মাঠে নীরব ছিলেন অনেক নেতা। বৃহস্পতিবার সিলেটে এসে আশফাক আহমদের তিনটি নির্বাচনী সভায় বক্তব্য দিয়েছেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এর মধ্যে ধোপাগুল, খাদিমপাড়া ও টুকের বাজার এলাকায়। সাবেক এই মন্ত্রী নির্বাচনী প্রচারণায় নামার কারণে মান-অভিমান ভুলে আওয়ামী লীগ নেতারা প্রচারণায় নেমেছেন। এবং তারা নৌকার পক্ষে ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠে নেমেছেন। পারিবারিক ভাবে আশফাকের সঙ্গে সম্পর্ক মুহিতের। ২০০১ সালে যখন মুহিত সিলেট-১ আসনে প্রার্থী হয়েছিলেন তখন তার সঙ্গে ছায়াসঙ্গী ছিলেন আশফাক। সেই সম্পর্কের সূত্র ধরে মুহিত এবার অবসর জীবনের মধ্যেও এসে আশফাকের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন। আরেকজন প্রার্থী বিশ্বনাথের এসএম নুনু মিয়ার পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বিশ্বনাথে নির্বাচনী জনসভায় ভাষণও দেন। এবার বিশ্বনাথ আওয়ামী লীগে নবাগত প্রার্থী এসএম নুনু মিয়া। তাকে নিয়েও স্থানীয় আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরে বিভক্তি ছিল। কেউ কেউ বিশ্বনাথের বর্তমান বিএনপি দলীয় চেয়ারম্যান সুহেল আহমদ চৌধুরীর পক্ষে ভেতরে ভেতরে কাজ করছিলেন। কিন্তু মুহিতের সফরের পর পাল্টে গেছে দৃশ্যপট। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সকল ভেদাভেদ এবার এসএম নুনু মিয়ার পক্ষে মাঠে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করেছেন। সরব হয়েছেন বিশ্বনাথ আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকি খানও। তিনি বিশ্বনাথের প্রভাবশালী ব্যক্তি। তার ভোটব্যাংকও রয়েছে। একমাত্র দলীয় কোন্দলের কারণেই তিনি ২০১৪ সালের নির্বাচনে নিশ্চিত জয় হাতছাড়া করতে হয়। এবার এসএম নুনুর মিয়ার নাম সবার আগেই প্রস্তাব করেন তিনি। এরপর থেকে পংকি খানসহ বর্তমান কমিটির নেতারা নুনু মিয়ার পক্ষে একাট্টা রয়েছেন। নুনু মিয়ার জয়ের মাধ্যমে বিগত নির্বাচনের প্রতিশোধ নিতে চান পংকি খান। নুনু মিয়া সিলেট আওয়ামী লীগে পরিচিত নাম। নগরীর গুলশান সেন্টারে আওয়ামী লীগের বৈঠকের সময় গ্রেনেড হামলার ঘটনায় তাকে ওই সময় গুলশান সেন্টার থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। ওই সময় নুনু মিয়াকে হামলাকারী সাজাতে নানা চক্রান্ত হয়। কারাবরণও করেন নুনু মিয়া। ওই ঘটনার পর থেকে তিনি সিলেটের রাজনীতিতে সরব রয়েছেন। বিশেষ করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের অনুসারী হিসেবে সিলেটের রাজনীতিতে পথ চলেন। দীর্ঘদিন মুহিতের সঙ্গে থাকার কারণে এবার তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন। এদিকে প্রচারণা শেষ করে গতকাল দুপুরের ফ্লাইটে ঢাকা চলে গেছেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ঢাকায় যাওয়ার সময়ও আশফাক এবং নুনু মিয়া তাকে বিমানবন্দরে গিয়ে বিদায় জানান।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ