চিকিৎসককে ধর্ষণের হুমকি, গ্রেফতারের পরেই মুক্ত ছাত্রলীগের সেই সারোয়ার

Pub: মঙ্গলবার, মে ১৪, ২০১৯ ৫:৫১ অপরাহ্ণ   |   Upd: মঙ্গলবার, মে ১৪, ২০১৯ ৫:৫১ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 সিলেট: সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসককে ‘ধর্ষণের’ হুমকি দেওয়া ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার হোসেন চৌধুরীকে গ্রেফতার করেই ছেড়ে দিচ্ছে পুলিশ। হুমকির ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আগাম জামিন নিয়ে রেখেছিলেন তিনি।

মঙ্গলবার (১৪ মে) দুপুর ১টায় সিলেট সদরের বন্দরবাজারের কোর্ট বিল্ডিং এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় সারোয়ারকে। পরে তার কাছে আগাম জামিনের নথি থাকায় তাকে ছেড়ে দিচ্ছে পুলিশ।

সিলেট কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম মিঞা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সারোয়ারের আগাম জামিন নেওয়া ছিল। তাকে গ্রেফতারের পর তিনি বিষয়টি আমাদের জানান। পরে আদালতের নথি আমাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। তাকে ছেড়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

পরে থানা থেকে বের হয়ে সারোয়ার সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনাটি যেভাবে প্রচার করা হয়েছে, ‘সেভাবে ঘটনাটি ঘটেনি। সেদিন (৯ মে) আমাদের নেত্রীকে নিয়ে খারাপ কথা বলার কারণে উত্তেজিত হয়ে একটু বেয়াদবি করে ফেলেছি।’ ওই সময় ধর্ষণের হুমকি দেননি বলেও দাবি করেন তিনি।

এর আগে, সোমবার (১৩ মে) রাতে সারোয়ারের বিরুদ্ধে বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. ফেরদৌস আহমেদ। মামলায় ১৩ জন চিকিৎসককে সাক্ষী করা হয়েছে।

এর আগে, গত ৯ মে সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক রোগীর চিকিৎসাসেবা নিয়ে চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সারোয়ার হোসেন চৌধুরীর। একপর্যায়ে চিকিৎসক ডা. নাজিফা আনজুম নিশাতকে ধর্ষণ ও হত্যার হুমকি দেন সারোয়ার। এ ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনার ঝড় ওঠে। পরে অভিযুক্ত সারোয়ার জানান, ‘মাথা গরম’ হয়ে যাওয়ায় তিনি ওই ঘটনা ঘটিয়েছেন।

এ ঘটনায় শনিবার (১১ মে) অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন ইন্টার্ন চিকিৎসকরা। তারা বলেন, ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার ইন্টার্ন চিকিৎসককে ধর্ষণ ও অসদাচরণ করার প্রতিবাদে সকাল থেকে নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে কর্মবিরতি পালন করছেন তারা। তারা সারোয়ার হোসেন চৌধুরীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ