আজাদ হত্যা মামলায় নুরুল হক চেয়ারম্যান জেল হাজতে

Pub: মঙ্গলবার, জুন ১৮, ২০১৯ ৫:২২ অপরাহ্ণ   |   Upd: মঙ্গলবার, জুন ১৮, ২০১৯ ৫:২৩ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

একে কুদরত পাশা, সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি::
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার যুগ্ম আহ্বায়ক আজাদ মিয়া হত্যা মামলার প্রধান আসামি মোল্লাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল হককের জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন আদালত। নূরুল হক হাইকোর্ট থেকে জামিনে ছিলেন। মঙ্গলবার নিম্ন আদালতে হাজিরা দিতে এলে দুপুরে দায়রা জজ ওয়াহিদুজ্জামান শিকদার নূরুল হকের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন। মামলার অন্যমত আসামী পাবেল এবং রিপন এখনো পলাতক রয়েছে।
আজাদ এলাকায় একজন প্রতিবাদী এবং সাধারণ মানুষের বন্ধু হিসেবে পরিিেচত। ২০১৭ সালে সুনামগঞ্জের সকল হাওর ডুবির পর তিনি হাওর আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে কাজ করেন। ২০১৮ সালে প্রায় এককোটি টাকার অপ্রয়োজনীয় বাঁধের বিরুদ্ধে তিনি মামলা করেন। এর পর থেকে তিনি উক্ত বাঁধের কাজের সাথে জড়িত নুরুল হক চেয়ারম্যান আজাদকে পথের কাটা মনে করতে থাকেন।
পুলিশ সুত্রে জানা যায়, আজাদের দীর্ঘদিনের প্রতিপক্ষ পাবেল ও রিপন সুনামগঞ্জ শহরে আজাদকে খুন করার জন্য ভাড়াটিয়া খুনি নিয়োগ করে। ১৪ মার্চ সকালে ভাড়াটিয়া খুনি শ্রাবণকে পাবেল ও রিপন ১০ হাজার টাকা দেয় এবং আজাদকে খুন করার নির্দেশ দেয়। ১৪ মার্চ ‘রাত ১০টার দিকে কেনাকাটা করে আজাদ বাসায় ফেরার পথে সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথের রেস্ট হাউসের সামনে শ্রাবণ, রিপন, পাবেল ও অন্যান্য সহযোগীরা তাকে আক্রমণ করে। ভাড়াটে শ্রাবণ স্টিলের রড দিয়ে আঘাত করে আজাদের মাথায়। তাকে গুরুতর আহত করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে আক্রমণকারীরা। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেন। তিন দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তার।’
আজাদ হত্যার পর থেকেই হাওর বাাঁচাও সুনাগঞ্জ বাাঁচাও আন্দোলন হত্যাকারীদের গ্রেফতাদের দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছে। সোমবার শহরের আলফাত স্কয়ারে হাওর বাাঁচাও সুনাগঞ্জ বাাঁচাও আন্দোলন সদর উপজেলা কমিটির উদ্যোগে আজাদ হত্যা মামলার প্রধান আসামী নুরুল হক চেয়ারম্যানকে জামিন না দেওয়ার জন্য মানববন্ধ থেকে দাবি করা হয়।
উল্লেখ্য গত ১৪ মার্চ রাতে সুনামগঞ্জ পিটিআই সড়কের সামনে দুবৃত্তদের হামলায় আহত হন আজাদ মিয়া। ১৮ মার্চ রাতে তিনি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। এ ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল হককে প্রধান আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের ভাই শিক্ষক আজিজ মিয়া।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ