কেমন চলছে ২৫০শয্যার মৌলভীবাজার সরকারী হাসপাতাল?

Pub: বুধবার, আগস্ট ৭, ২০১৯ ২:১৯ অপরাহ্ণ   |   Upd: বুধবার, আগস্ট ৭, ২০১৯ ২:১৯ অপরাহ্ণ
 
 
 

শীর্ষ খবর ডটকম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

যুক্তরাজ্য থেকে তাজুল ইসলাম: হাসপাতাল জুড়ে দুর্নীতি আর আবর্জনার গন্ধে সুস্থ মানুষ অসুস্থ হয়ে যাবার উপক্রম। বায়লোজিতে একটা কথা আছে আবর্জনার মধ্যে সবচাইতে বেশি ব্যাকটেরিয়া থাকে। আর আমাদের এই অপরিচ্ছন্ন হাসপাতাল হলো ব্যাকটেরিয়ার আদর্শ বাসস্থান। সম্প্রতি ইউনিটি অব মৌলভীবাজার একটা সামাজিক সংগঠন উদ্যোগ নিয়েছে হাসপাতাল পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করার।ধন্যবাদ ইউনিটি অব মৌলভীবাজারকে তাদের এই সুন্দর মানসিকতার জন্য আশা করি কিছুদিনের জন্য হলেও হাসপাতাল থাকবে পরিচ্ছন্ন এবং ব্যাকটেরিয়া মুক্ত। হয়তো এগুলো দেখে কর্তৃপক্ষের ঘুমন্ত বিবেক জাগ্রত হবে পরিচ্ছন্ন করে রাখার জন্য । একটা হাসপাতাল পরিচালনায় সরকার দপ্তর অনুযায়ী বেতনভোগী শ্রমিকের নিয়োগ দেয় এবং প্রতি মাসে সরকার লাখো টাকা খরচ করে হাসপাতাল পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করে রাখার জন্য। এখন প্রশ্ন হচ্ছে দপ্তরের সুইপারের কাজটা কি? হাসপাতালের দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষ যদি তাদের নিজেদের পেট ভড়ানোর দায়িত্ব আগে পালন করেন তাহলে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার তদারকি কে করবে? অনিয়ম আর দুর্নীতির জন্য নিজ এলাকার লোকজন পাচ্ছে না সটিক চিকিৎসা।একটা ২৫০ শয্যার হাসপাতালে যদিও আমরা এলাকার মানুষগুলো ভালো চিকিৎসা সেবা পাচ্ছি না তবে কিছু কর্মহীন অসাধু লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে !! আর এই অসাধুরা কিন্তু আমাদের ক্ষমতাবানদের ছত্রছায়ায় থেকে সাধারন মানুষকে ধোঁকা দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে রাষ্ট্রের হাজার হাজার টাকা। একটা সরকারি হাসপাতালে জনগন যতটুকু ফ্রি চিকিৎসা সেবা পাবার কথা তারা কিন্তু সেটা পাচ্ছে না, অভিযোগ আছে চিকিৎসার জন্য অনেককে বিনিময়ে টাকা গুনতে হয়। আসলে দিন বদলের দিনে আমরা এখন ডিজিটাল! আর ছবি তুলে চাপাবাজি এখন আমাদের কাছে অনেক বেতনের চাকুরী। আমরা যখন পত্রিকা অথবা সোস্যাল মিডিয়ায় দেখি মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে কর্তব্যরতদের অবহেলায় রুগীর মৃত্যু, অথবা ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যু পথ যাত্রী তখন আমরা সোস্যাল মিডিয়াতে ঝর তুলি এর প্রতিবাদ করি, তবে আমরা কেউ কোনদিন সাহস করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে প্রশ্ন করি না কেন আমাদের হাসপাতালের এই অবস্হা? আর আমাদের হাসপাতালে দালালদের মুল চালিকা শক্তি কে? মৌলভীবাজারের বাসিন্দা হিসেবে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের ও খোঁজ আপনাদেরকে রাখতে হবে।কেননা আপনার আজ সামর্থ আছে বলে আপনি পরিবার পরিজনকে প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে পারতেছেন, কিন্তু আমাদের এলাকার সামর্থহীনদের উপায়টা কি? আসুন আমরা একটু সচেতন হয়ে হাসপাতালে কোন অনিয়ম দেখলে সেই অনিয়মের চিত্র সোস্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সবার কাছে তুলে ধরি এর যতাযত প্রতিবাদ করি তাহলেই হয়তো মুক্তি পাওয়া যেতে পারে অসাধুদের কাছ থেকে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Print

শীর্ষ খবর/আ আ